ব্রেকিং নিউজঃ
Home / ধর্ম / করোনার প্রাদুর্ভাবে সাচার ঐতিহ্যবাহী রথযাত্রা স্থগিত

করোনার প্রাদুর্ভাবে সাচার ঐতিহ্যবাহী রথযাত্রা স্থগিত

মোঃ রাছেল, কচুয়া : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় জনসমাগম এড়াতে এশিয়া মহাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রথযাত্রা উৎসব সাচার ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ ধাম ও সাংস্কৃতিক সংঘের আয়োজনে রথযাত্রা উৎসব স্থগিত করা হয়েছে। এ বৎসর ১৫৩তম রথযাত্রা উৎসব অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দিরে ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা পালন করার কথা জানিয়েছে রথযাত্রা উদযাপন কমিটি।

সনাতন ধর্মালবম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব রথযাত্রা। পঞ্জিকা অনুযায়ী আষাঢ় মাসের শুক্লপক্ষের দ্বিতীয় তিথিতে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। সে অনুযায়ী আজ মঙ্গলবার (২৩ জুন) রথযাত্রা শুরু হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সব ধরনের উৎসব স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে সনাতন ধর্মালবম্বীদের অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব রথযাত্রা স্থগিত করা হয়।

সাচার জগন্নাথ ধাম সাংস্কৃতিক সংঘের আহবায়ক কমিটির আহবায়ক বটু কৃষ্ণ বসু জানান, কচুয়ায় দিন দিন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় উপজেলা প্রশাসন সঙ্গে বৈঠক করে এবারের রথযাত্রা ও রথমেলা স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, ১৫৩ তম বছরের পুরনো আমাদের সাচার জগন্নাথ ধামের রথযাত্রা পুরো বছর জুড়ে চলে এর আয়োজন। আমাদের সব আয়োজন আমরা শেষ করে রেখেছিলাম কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে এবার সব বন্ধ করে রাখতে হলো। তবে বড় পরিসরে অনুষ্ঠান না করা গেলেও ছোট পরিসরে মন্দির কেন্দ্রীক পূজা অনুষ্ঠিত হবে।’

এ রথযাত্রার উৎসবকে ঘিরে কচুয়া সহ সারাদেশের হিন্দু ধর্মাবলম্বী ভক্তবৃন্দদের মধ্যে এক আমেজ বিরাজ করত। এ রথটিকে ঘিরে সাজসজ্জায় মেতে থাকতো কিশোর-কিশোরী ও বয় বৃদ্ধরা সহ অসংখ্য ভক্তবৃন্দরা। কিন্তু এ করোনার থাবায় বন্ধ হয়ে গেছে সেই আনন্দ, আমেজ ও সাজসজ্জা। রথকে ঘিরে কৌতুহল থাকলেও করোনার ভয়ে হারিয়ে গেছে মানুষের মন থেকে সে রথযাত্রার উৎসবের কথা।

সাচার রথ ও জগন্নাথ ধাম প্রতিষ্ঠা নিয়ে কথিত আছে যে, প্রায় দেড়শত বছর পূর্বে সাচার বাবু বাড়ির জমিদার গঙ্গা গোবিন্দ সেন ভারতে হিন্দু তীর্থস্থান পুরীতে জগন্নাথ দর্শনে গেলে, জগন্নাথ গঙ্গা গোবিন্দকে দর্শন দেননি। বরং পুরীর দরজা-জানালা গুলো আপনা আপনি বন্ধ হয়ে যায়। দর্শন লাভে ব্যর্থ হয়ে পরম ধার্মিক গঙ্গা গোবিন্দ সেন দর্শন লাভের আশায় পুরীর বাহিরে আমরন-অনশন শুরু করে দেয়। অনশনের কয়েকদিন অতিবাহিত হলে গঙ্গা গোবিন্দ সেন স্বপ্নাদৃষ্ট হন যে, এ স্থানে জগন্নাথ গঙ্গা গোবিন্দ সেনকে দর্শন না দিয়ে তার সাচারের বাড়ির সম্মুখের দীঘিতে ভাসমান নিম কাঠ আকৃতিতে দর্শন দিবেন। স্বপ্নাদিষ্ট হয়ে গঙ্গা গোবিন্দ সেন নিজ বাড়ি ফিরে আসেন এবং ক’দিন পর উক্ত দীঘিতে স্নান করার সময় আকস্মিক ভাবে ভাসমান নিম কাঠ আকৃতিতে জগন্নাথ দর্শন লাভ করেন।

Facebook Comments

Check Also

পুরানবাজার রাম ঠাকুর দোল মন্দির মেঘনায় বিলীন হওয়ার আশঙ্কা!

অমরেশ দত্ত জয় : চাঁদপুর পুরানবাজারের শ্রী শ্রী রাম ঠাকুর দোল মন্দির প্রাঙ্গণ মেঘনার তীব্র …

vv