ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / ১১ নভেম্বর ইউপি নির্বাচনে চাঁদপুর সদরে দলীয় মনোনয়ন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

১১ নভেম্বর ইউপি নির্বাচনে চাঁদপুর সদরে দলীয় মনোনয়ন পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ

মাসুদ হোসেন : করোনা সংকটে আটকে থাকা স্থানীয় সরকার নির্বাচন অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নিতে শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। চলতি বছরের আগামী ১১ নভেম্বর নির্বাচনের ভোটগ্রহণের প্রস্তুতির কথা জানিয়েছে ইসি। এর আগেই ইউপিগুলোতে সব দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের হয়ে লড়তে চান, এমন প্রার্থীদের মধ্যে দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। তেমনি চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০ ইউনিয়নেও শুর হয়েছে আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। এ ইউনিয়নগুলোতে প্রায় অর্ধশতাধিক চেয়ারম্যান প্রার্থী মাঠে তৎপর রয়েছে। সম্ভাব্য প্রার্থীদের প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে গ্রামীণ হাটবাজার ও জনপদ। সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা ইতোমধ্যে ব্যানার-ফেস্টুন টানিয়ে দিয়েছে হাটবাজার ও রাস্তার মোড়ে মোড়ে। দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রধান দু-দল আ’লীগ ও বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছে।
সম্ভাব্য প্রার্থীদের আত্মীয়-স্বজন কিংবা সমর্থকরা ইতোমধ্য প্রতিটি গ্রামে গ্রামে গিয়ে ভোট ও দোয়া চাইতে শুরু করেছে। তেমনি ক্ষমতাসীন দলের এক প্রার্থী ৫নং রামপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মোঃ আল মামুন পাটওয়ারী বলেন, আমি আওয়ামী লীগ-এর একজন কর্মী। ছাত্রজীবন থেকেই আমি এ দলের সাথে সম্পৃক্ত। তাই গত নির্বাচনের ন্যায় এবারো আশা করছি দলীয় টিকিট আমি পাব। এ উদ্যেশে আমি নির্বাচনী এলাকায় প্রচার প্রচারণা আন্তরিকভাবে চালানোর চেষ্টা করছি। এছাড়াও বিএনপি সমর্থিত এক প্রার্থী শাহমাহমুদপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান স্বপন মাহমুদ বলেন, বিগত নির্বাচনে আমি বিপুল ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। এখন ইউপি নির্বাচনের জন্য সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি এবং যথাযথ প্রচারণা চালাচ্ছি। জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে তাহলে আমি এবারো নমিনেশন পাব বলে আশা করছি।
উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা যায়, আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হয়েছে। চাঁদপুর সদর উপজেলাটি ১৪টি ইউপি ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। কিন্তু সদরের ভোটার তালিকা হালনাগাদ ও সীমানা জটিলতার প্রেক্ষিতে ইউনিয়ন নাগরিকগণহাইকোর্টে রীট দায়ের করলে আদালত কল্যাণপুর, রাজরাজেশ্বর ও ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নে নির্বাচন স্থগিত ঘেষিনা করেন। এর আগে লক্ষীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। তাই সদর উপজেলার বাকী ১০ ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে সম্ভাব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন কলাকৌশলে তাদের প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে প্রার্থীরা বিভিন্ন প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন। তাছাড়া কেউ-বা পোস্টার ছাপিয়ে ও ব্যানার টাঙিয়ে তাদের প্রার্থীতার বিষয়টি ভোটাদের মাঝে আগাম জানিয়ে দোয়া চান। অপরদিকে বিএনপি বা অন্যান্য দলের প্রার্থীরা ইউপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা না করা তাদের দলের কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় নীরব রয়েছেন। বিএনপি বা অন্য কোনো দল অংশগ্রহণ না করলেও তাদের দলের প্রার্থীরা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে অনেকেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে।
জানা গেছে, গত বুধবার (২৯ সেপ্টেম্বর) নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মোঃ হুমায়ুন কবির খোন্দকার নির্বাচন ভবনে আগামী ১১ নভেম্বর নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা করেন। তফসিল অনুযায়ী, দ্বিতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ১৭ অক্টোবর, মনোনয়নপত্র বাছাই ২০ অক্টোবর, বাছায়ের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল দায়ের ২১ থেকে ২৩ অক্টোবর, আপিল নিষ্পত্তি ২৪ ও ২৫ অক্টোবর, প্রার্থীতা প্রত্যাহার ২৬ অক্টোবর, প্রতীক বরাদ্ধ ২৭ অক্টোবর ও ভোটগ্রহণ ১১ নভেম্বর।
Facebook Comments

Check Also

অনিদ্রার কারণ ও প্রতিকার

: হাকীম মিজানুর রহমান : অনিদ্রা একটি রোগ, এটি হয়তো সবাই জানেন না। অনিদ্রা থেকে …

Shares
vv