ব্রেকিং নিউজঃ
Home / মতামত / হাজীগঞ্জে সাংবাদিক রনিকে লাঞ্ছিতকারিরা কি করোনা থেকে শক্তিশালী!

হাজীগঞ্জে সাংবাদিক রনিকে লাঞ্ছিতকারিরা কি করোনা থেকে শক্তিশালী!

মোঃ মাসুদ রানা : পৃথিবীর মানব সভ্যতাকে যখন ঘাতক করোনাভাইরাস গিলে খাচ্ছে। ওই সময় এ দানবকে থামাতে রাষ্ট্রের চালিকা শক্তি সরকার ,প্রশাসন, ডাক্তার ও গণমাধ্যম কর্মীরা সম্মুখযুদ্ধে থেকে জীবন বিলিয়ে দিয়ে রাস্তায় রয়েছেন। ওই পথটুকু এত সোজা নয়। ওই ভাইরাসকে রুখতে বৈশাখের দাবদাহে কেউ পিপিই, মাক্স পরে, সুখে,দুঃখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাস্তায় থেকে এটির সঙ্গে যুদ্ধ করে বেড়াচ্ছেন।

এক্ষেত্রে অন্য কর্মজীবীদের জীবন ও জীবিকার আর্থিক নিশ্চয়তার একটি রোডম্যাপ রয়েছে। মফস্বল সংবাদকর্মীদের দৃশ্যমান কিছুই নেই। এরমধ্যে ঢাকার জাতীয় দৈনিক ও সংবাদকর্মীরা ধারদেনা করে বেঁচে থাকার সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে। তারপরও সংবাদকর্মীরা বসে নেই, যে যার মত করে হোম কোয়ারেন্টিইন থেকে আবার অনেকে, আইসোলেশন থেকে কেউ বা রাস্তায় ঘুরেফিরে সংবাদ কুড়িয়ে প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ায় যোগান দিচ্ছেন। বিনিময় মানুষের ভালোবাসা, প্রাপ্তি এটুকুই।

এরমধ্যে যদি কোন ব্যক্তি বা প্রভাবশালী মহল সংবাদকর্মীকে গিলে খাওয়ার কিংবা পিষে মারার কিংবা থামিয়ে দেওয়ার হুমকি দেন সেটি কতটুকু যুক্তিযুক্ত তা ভাবার দাবি রাখে। বলছি হাজীগঞ্জের দোকানের ‘‘শাটার অর্ধেক খোলা রেখে’’ ব্যবসা করার শিরোনাম সংবাদটি কথা। যিনি এই সংবাদ পরিবেশন করেছেন তিনি কতটুকু তার নিজের জন্য এ লেখা লিখেছেন, আমরা কি তা একবার ভেবে দেখেছি।

আমরা যতটুকু জানি উনার পরিবারের কেউ এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হননি। কিন্তু তিনি রাতদিন হাজীগঞ্জ বাসির কল্যাণে বেঁচে থাকার পথ দেখাতে ফেইসবুক ও সোশ্যাল মিডিয়ায় নানান লেখালিখি করে সজাগ রাখছেন। এতে হয়তো কারো গাত্রদাহ হচ্ছে। যাদের গা জ্বালা পোড়া করছে তারা কি ভেবে দেখেছেন ওই সংবাদকর্মী লেখার কতটুকু ওনার ব্যক্তিগত প্রয়োজনে, নাকি সামষ্টিক একটি অঞ্চলকে রক্ষা করা বা প্রাণঘাতক করোনাভাইরাস থেকে এজনপদের মানুষকে রক্ষার প্রয়াস। তাহলে কেন এই লাঞ্ছনা। দেশের ক্রান্তিলগ্নে যখন সবার মধ্যে একটি সহমর্মিতা ভালোবাসা স্থাপন করার জন্য প্রকৃতির ডাক দিয়েছে।

আমরা কেন ব্যক্তিবিশেষ সংবাদকর্মীদের মত একটি বৃহৎ শিল্পের বিরুদ্ধে অবস্থান নেই। কোভিডে-১৯ আক্রান্ত রোগীকে কবরস্থ করতে তার স্বজনরা তো থাকছে না, হয় পুলিশ না হয় প্রশাসনের লোক অথবা ইসলামী ফাউন্ডেশন আর সংবাদকর্মীরা ছুটছেন।

আমরা ঘৃণা জানাই ,নিন্দা জানাই, জানাই প্রতিবাদ। এই লিখাটি কাউকে আক্রমণের জন্য নয়, শোধরাবার জন্য। আসুন সচেতন হই যার যে পেশা তাকে সহযোগিতা করি। তাহলে এ ভাইরাসের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাবে এ জনপদ তথা দেশ ও জাতি। প্রশাসন ঘোষিত লকডাউন উপেক্ষা করে দোকানের অর্ধেক ঝাঁপ খোলা রেখে কৌশলে ব্যবসা পরিচালনা ও মোবাইল কোর্টে জরিমানার সংবাদ প্রকাশ করাকে কেন্দ্র করে প্রিয় চাঁদপুর প্রধান সম্পাদক এবং দৈনিক আলোকিত সকালের হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি এবং মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস এক্টিভিটিস ফাউন্ডেশন চাঁদপুর জেলা সভাপতি মজিবুর রহমান রনিকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে কয়েকজন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে।

শুক্রবার (১৫ মে) হাজীগঞ্জ মধ্যবাজার পৌর হকার্স মার্কেটের সামনে এ ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটে।

ওই ঘটনায় প্রিয় সংবাদকর্মীর এই লাঞ্ছনা আর বঞ্চনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন, শাহরাস্তি প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ইউনিটি, মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের সকল নেতৃবৃন্দসহ সকল গনমাধ্যামকর্মী।

Facebook Comments

Check Also

ডাক্তারদের রোগী দেখার আহ্বান

: সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী : এক একজন প্রতিষ্ঠিত ডাক্তারের ব্যাংক ব্যালান্স কত জানেন? মোটামুটি …

vv