ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / হাজীগঞ্জে বিদ্যালয়ের সভাপতি পদ পেতে নিজ সন্তানকে দু’শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি!

হাজীগঞ্জে বিদ্যালয়ের সভাপতি পদ পেতে নিজ সন্তানকে দু’শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি!

স্টাফ রিপোর্টার : হাজীগঞ্জ উপজেলার ৩নং কালচোঁ উত্তর ইউনিয়নের ২৪ নং রাজাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির পুনরায় সভাপতির পদ পেতে (খায়েস মিটাতে) ছেলেকে দু’শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করালেন এক পিতা।

এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত ক্লাশ করলেও এই বিদ্যালয়ে নাম মাত্র ভর্তি দেখিয়ে পুনরায় সভাপতি হওয়ার চেষ্ঠা অব্যাহত রেখেছেন। যা বিদ্যালয়ের হাজিরা খাতায় ভর্তির দিন থেকে ওই শিক্ষার্থী ক্লাশে অনুপস্থিতির প্রমাণও মেলে। আর এসব বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে দায়সারা জবাব প্রধান শিক্ষক জান্নাত আক্তারের। অন্যদিকে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বললেন এটি নিয়মের মধ্য পড়ে না। ওই নামের তালিকা বাদ যাবে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ২৪নং রাজাপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ শেষ ২০১৯ সালের ৩ সেপ্টেম্বর। ওই কমিটির সভাপতি ছিলেন কালচোঁ উত্তর ইউনিয়নের রাজাপুর ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন।

কিন্তু সরকারী নিয়মের বাহিরে গিয়ে পুনরায় তিনি সভাপতি হতে পারবেন জেনে চলতি বছরের ১লা জানুয়ারী তার ছেলে নিশাদ আব্দুল্লাহকে এই বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীতে ভর্তি করেন। তবে নিশাদ আব্দুল্লাহ চাঁদপুর শহরের আল আমিন একাডেমীর প্রাথমিকের ১ম শ্রেণীর নিয়মিত শিক্ষার্থী। শুধুমাত্র ওই বিদ্যালয়ের সভাপতির পদ ভাগিয়ে নিতে নিজ সন্তানকে নাম মাত্র ভর্তি দেখিয়েছেন সাখাওয়াত হোসেন।

সরকারী নিয়মানুযায়ী চলতি বছরে যে কোন শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে ভর্তি হলে তাদের অভিভাবকগন ম্যানেজিং কমিটির কোন সদস্য পদই লাভ করতে পারবেন না। কিন্তু এসব জেনেও ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জান্নাত আক্তার সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেনের নাম নতুন ম্যানেজিং কমিটির বিদ্যুৎসাহী সদস্য পদের নামের তালিকায় উপজেলা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বরাবর প্রেরণ করেছেন।

আর প্রধান শিক্ষক জান্নাত আক্তার দায়সারা হতে এবং সাখাওয়াত হোসেনের সভাপতি পদটি পাকাপুক্ত করতে সরকার বিরোধী ব্যক্তি এবং ইউনিয়ন বিএনপির যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক প্রবাসী নাজির হোসেন (পুরুষ বিদ্যুৎসাহী) ও তার স্ত্রী সানজিদা পারভিনের নাম মহিলা বিদ্যুৎসাহী নামের তালিকায় অন্তর্ভূক্ত করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার নিকট জমা দিয়েছেন।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক জান্নাত আক্তার বলেন, আমি নতুন, তাই আমার অভিজ্ঞতা নেই। আমি পূণরায় তালিকা তৈরি করে আবার প্রেরণ করবো।

অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গির আলম বুলবুল সরকার বলেন, দায়িত্বপ্রাপ্ত এটিও কে বিদ্যালয়ে পাঠিয়ে তদন্ত করে দেখার পর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments

Check Also

মা ইলিশ রক্ষা সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে : চাঁদপুর জেলা প্রশাসক

সজীব খান : চাঁদপরে জাটকা রক্ষা সংক্রন্ত জেলা টাস্কফোর্স কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রবিবার বিকাল ৩টায় …

vv