Home / শীর্ষ / হাজীগঞ্জে ফায়ারম্যান মনির আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ

হাজীগঞ্জে ফায়ারম্যান মনির আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ

সাইফুল ইসলাম সিফাত : হাজীগঞ্জ ফায়ার ষ্টেশন অফিসে কর্মরত ফায়ারম্যান মনির হোসেন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত রয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি এই কর্মস্থলে যোগ দিয়েই অগ্নি নির্বাপক যন্ত্রাংশ ও ড্রাই পাউডার অগ্নি নির্বাপক রিফিল কাজ করে থাকেন। এই ব্যবসার জন্য ফায়ার ষ্টেশনের উত্তর পার্শে একটি টং দোকানও তিনি মাসিক ভাড়ায় নিয়েছেন। যদিও সরকারী কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান (ব্যবসার) সাথে জড়িত থাকতে পারবেন না। কিন্ত কোন অদৃশ্য শক্তির কারনে মনির হোসেন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত রয়েছেন এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে খোদ সহকর্মীদের মাঝেও। তবে এক্ষেত্রে দায়সারা বক্তব্য দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

সূত্রে জানা যায়, ফায়ারম্যান মনির হোসেন বাজারের বিভিন্ন মার্কেটের মালিক বা মার্কেট কর্তৃপক্ষের লোকজনদের সাথে সমন্বয় করে তাদের কাছে অগ্নি নির্বাপকের বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জাম বিক্রি করেন এবং ড্রাই পাউডার (অগ্নি নির্বাপক) রিফিল করেন। কুমিল্লা বাগিচাগাঁও গোমতী ফায়ার টেকনোলজী ও হাজীগঞ্জে নিউ গোমতী ফায়ার টেকনোলজী-২ প্রতিষ্ঠানের নামে তার এই ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। এই দুইটি প্রতিষ্ঠানের একটির ক্যাশ মেমো ও আরেকটির ভিজিটিং কার্ড এ প্রতিবেদকের কাছে রয়েছে। তবে এ দুইটি প্রতিষ্ঠানের ফায়ার লাইসেন্স নং একই। যার নং-১০১৬৫।

ফায়ারম্যান মনির হোসেনের নিউ গোমতী ফায়ার টেকনোলজী-২ প্রতিষ্ঠানের সাথে থাকায় জৈনক চা-দোকানদারের কাছে তার খোঁজ করা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে দোকান দেখিয়ে দেন এবং তার একটি ভিজিটিং কার্ড হাতে ধরিয়ে দেন।

অপরদিকে ক্রেতা সেজে কুমিল্লার বাগিচাগাঁও গোমতী টেকনোলজীর ক্যাশ মেমোতে থাকায় ফোন নাম্বারে তাকে খোঁজ করা হলে অপর প্রান্তে থাকা ব্যক্তিটি ০১৮৫০৪৯৪২২৪ নাম্বারে যোগাযোগ করতে বলেন। এমনকি ওই ব্যক্তি এক পর্যায়ে এই প্রতিষ্ঠানের সাথে ফায়ারম্যান মনির হোসেনের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

সোমবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে ০১৬৪৮৩৩০৩২৮ থেকে ক্রেতা সেজে পূনরায় তার ব্যবহৃত ০১৮১৫৫৮৪৫৮১ মোবাইল নাম্বারে কথা হলে তিনি বলেন এখানে আমার দোকান নেই, আমার দোকান কুমিল্লা, ওইখানে কাজ করানো যাবে।

তার কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে তিনি এই প্রতিবেদককে যারা করে তাদের বলে দিব এখানে ব্যবসা না করতে। এই কথা বলেই তিনি সংবাদ কর্মিদের সিনিয়র ষ্টেশন অফিসারের কক্ষে বসিয়ে রেখে স্থানীয় আরেক সংবাদ কর্মিকে ডেকে এনে প্রতিবেদককে নগদ অর্থ দিয়ে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন।

এ প্রসঙ্গে হাজীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ষ্টেশন অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মো. রুবেল মিয়া বলেন, আমি এই বিষয়টি উদ্দর্তন কর্মকর্তাকে অবহিত করবো।

চাঁদপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, কুমিল্লা তার যে প্রতিষ্ঠান ছিলো আমরা অভিযোগ পেয়েই সেটির থেকে তার সম্পৃক্ততা দূর করা হয়। বর্তমানে ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি নিয়ে এই কর্মকর্তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি এড়িয়ে গিয়ে বলেন বক্তব্য দেওয়ার কি আছে। আপনারা বিষয়টি ভালো ভাবে ক্ষতিয়ে দেখেন এই বলেই তিনি মোবাইল ফোনের লাইনটি কেটে দেন।

Facebook Comments

Check Also

মধ্যরাত থেকে করোনা নেগেটিভ সনদ ছাড়া প্রবেশ নিষেধ

শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে করোনাভাইরাসের নেগেটিভ সনদ ছাড়া কোনো এয়ারলাইন্সের যাত্রী দেশে প্রবেশ …

Shares
vv