ব্রেকিং নিউজঃ
Home / সমস্যা-সম্ভাবনা / হাজীগঞ্জে গ্রামীণ সড়কের বেহাল দশা; জনদূর্ভোগ চরমে
সংস্কার না হওয়ায় সড়কে দেখা দিয়েছে ছোট ছোট গর্ত।

হাজীগঞ্জে গ্রামীণ সড়কের বেহাল দশা; জনদূর্ভোগ চরমে

সাইফুল ইসলাম সিফাত : বর্ষা মৌসুমে অতিবৃষ্টি ও অনাবৃষ্টিতে চলাচলের একেবারেই অনুপযোগী হয়ে পড়ে হাজীগঞ্জ উপজেলার গ্রাম-গঞ্জের প্রায় অর্ধ শত রাস্তার। এসব রাস্তা সঠিক সময়ে সংস্কার কাজ না করায় বর্ষার সময়ে অতি বৃষ্টির ফলে রাস্তা ভেঙ্গে অস্তিত্ব হারাচ্ছে। বর্তমানে জনদূর্ভোগ চরমে, যেন দেখার কেউ নেই!

হাজীগঞ্জ উপজেলার ১২ টি ইউনিয়ন ও একটি আধুনিক পৌরসভা নিয়ে গঠিত। পৌর এলাকার দক্ষিণ অঞ্চলের ১০,১১ ও ১২ নং ওয়ার্ডের কয়েকটি রাস্তা ইতিমধ্যে যানবাহন চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। পুকুর পাড় কিংবা বিলের তীর দিয়ে বয়ে যাওয়া রাস্তার পাশের সাইডগুলো ভেঙ্গে পড়ছে। কিছু কাঁচা রাস্তায় ইট কংক্রিট না ফেলায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

এদিকে উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে বিশেষ করে ডাকাতিয়া নদীর দক্ষিণ অঞ্চলের ৬নং বড়কূল পূর্ব, ৭নং বড়কূল পশ্চিম, ৯নং গন্ধর্ব্যপুর উত্তর ও ১০ নং গন্ধর্ব্যপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের কাঁচা পাকা অধিকাংশ রাস্তা অতি বৃষ্টি ও বর্ষার পানির ডেউয়ে ছোট বড় চাক ধরে ভেঙ্গে পড়ছে। এ ভেঙ্গে পড়ার মূল কারন হচ্ছে রাস্তার দুই পাশে মাটি না থাকা। অনেক রাস্তা বছরের পর বছর ধরে সংস্কার না হওয়ায় অস্তিত্ব বিলিন হয়ে যাচ্ছে।

এছাড়া উপজেলার ৮নং হাটিলা ইউনিয়ন পরিষদের বেশীরভাগ রাস্তা গ্রামের বিলের তীর দিয়ে বয়ে যাওয়ায় প্রতিবছর রাস্তার পাশ ভেঙ্গে পড়ছে। এই ইউনিয়নের মৎস্য খামারের মালিক জামাল ও মিজান গুরুত্বপূর্ন দুইটি রাস্তা ভেঙ্গে ফেলার জন্য দায়ী করেন স্থানীয় গ্রামবাসী।

বেহাল এ রাস্তাগুলো দিয়ে চলাচলরত যাত্রীসাধারনের অভিযোগ, কবে নাগাদ কিভাবে কাজ হয়েছে অনেকে তা মনে করতে পারছে না। যেসকল ঠিকাদার কাজ করেছে বেশীভাগ কাজে অনিয়ম হয়েছে। যে কারনে পাকা রাস্তাগুলোর পিচ উঠে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া গ্রামীন রাস্তাগুলোতে ভারী যানবাহন চলাচল করায় ছোট বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। আর এসব গর্তে বর্ষার পানি জমে কাদায় পরিনত হয়ে পড়ে থাকতে দেখা যায়।

এদিকে স্থানীয় চেয়ারম্যান কিংবা উপজেলা প্রকৌশলী বিভাগ রাস্তা সংস্কারে তেমন গুরুত্ব না দেওয়ায় গ্রামের সাধারন মানুষের দুর্ভোগ দিন দিন বেড়ে যাচ্চে। এর কারন হচ্ছে এসব রাস্তা দিয়ে সিএনজি বা অটো রিক্সা চলাচল করতে চায় না। গেলেও অতিরিক্ত ভাড়া গুনতে হচ্ছে বলে অভিযোগ ভূক্তভোগী যাত্রীসাধারনের।

৬নং বড়কূল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির হোসেন মিয়াজী বলেন, আমার ইউনিয়নের বড়কূল ঘাট থেকে রায়চোঁ বাজার পর্যন্ত সড়কটি উদ্বোধনের আগেই পাশ ভেঙ্গে গেছে। ঠিকাদার ও পৌকোশলী বিভাগকে বিষয়টি অবহিত করেছি। সরকারের বরাদ্ধ অনুযায়ী কাজ ঠিকমত হচ্ছে না।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাকির হোসেন বলেন, গ্রামীন রাস্তাগুলো কাজ করতে গিয়ে নানা জটিলতা দেখা দেয়। প্রতিবছরে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে আমরা যে যে রাস্তাগুলো ভেঙ্গে গেছে কিংবা সংস্কার করা প্রয়োজন এসব রাস্তার পরিমাপ নিয়ে উপরস্থ কার্যালয়ে পুণঃসংস্কার এর জন্য আবেদন দিয়ে থাকি। আশাকরি বর্ষা শেষ হলে পুনরায় এসব রাস্তাগুলোর যে যে স্থানে সমস্যা দেখা দিয়েছে তা সংস্কার করা হবে।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে আটক ইউপি মেম্বারকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুরের মেঘনা নদীতে মা ইলিশ রক্ষার অভিযানে নৌ পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় …

Shares
vv