ব্রেকিং নিউজঃ
Home / ফিচার / হাজিগঞ্জ ইউএনও’র ভিন্ন জগত!

হাজিগঞ্জ ইউএনও’র ভিন্ন জগত!

খুব বড় পরিসর নয়। কিন্তু অল্প পরিসরে শোভা পাচ্ছে নানা রঙের ফুল আর সবজি। হাতের নিপুন ছোঁয়া আর মমতায় গড়ে তোলা বাগানটি দেখলেই চোখ জুড়িয়ে যায়। চারপাশের কলহের ভীড়ে এক প্রশান্তির অনুভূতি জাগে হৃদয়ে।

হ্যাঁ, নিজের বাসভবনের জায়গায় এমনই এক বাগান গড়ে তুলেছেন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহাবুবুল আলম মজুমদার।

শখ থেকে বাগানটি গড়ে তুলেছেন তিনি। তবে ফরমালিন আর নানা ভেজালের ভীড়ে এখন বাগানটিই হয়ে উঠেছে তার পরিবারের বিশুদ্ধ ও টাটকা শাক-সবজির প্রধান উৎস।

নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম মজুমদার বলেন, ‘আমি শখে এই সবজির চাষাবাদ করছি। এতে করে ফরমালিনমুক্ত খাবার খেতে পারি।

তিনি আরও বলেন, সবার বসতভিটার আশপাশে পরিত্যক্ত জায়গা রয়েছে। একটু উদ্যেগী হলে এ থেকে পরিবারের আয় বাড়ানোর পাশাপাশি ভেজালমুক্ত খাবার খাওয়া সম্ভব।

মাহবুব আলম মজুমদারের বাগানে রয়েছে ফুল-ফল আর সবজি মিলিয়ে প্রায় ৪০ প্রজাতির গাছ। বাসভবনের আঙ্গিনার স্বল্প পরিসরের বাগান এতো প্রজাতির গাছ, সত্যিই অবাক হওয়ার মতোই।

রয়েছে লাউ, মিষ্টি কুমড়ো, টমেটো, ঢেঁড়শ, মুলা, শিম, ঝুকীনী, লালশাক, পালং শাক, কলমী শাক, পাট শাক, পুঁইশাক, বাটিক শাক, পেয়াঁজ, রসুন, মরিচ, বেগুন, ধনিয়া পাতা, শসা, সরিষা, বোম্বাই মরিচ, তুলসী পাতার মতো শাক সবজি।

এছাড়া ফুলের মধ্যে রয়েছে তিন প্রজাতির গোলাপ, গাঁদা, রঙ্গনা, কচমচ, গন্ধরাজ, পাথরকুচি, পাতা বাহার ও ডালিয়া। ফলের মধ্যে রয়েছে, নারকেল, বেল, আম ও পেয়ারা, দুই প্রজাতির কলা।

রতিদিন ভোর হলে মাহবুব আলম নিজেই বাগান পরিচর্চার কাজে নেমে পড়েন। ছুটির দিন বা অবসরের বেশির ভাগ সময় বাগান পরিচর্যায় কেটে যায় তার।

শুধু হাজিগঞ্জে নয়, কর্মের তাগিদে যেখানে যান, সেখানেই সবজি আর ফল-ফুল-সবজির বাগান করেন তিনি।

এর আগে লক্ষীপুর জেলার কমলনগর উপজেলার ইউএনও ছিলেন। সেখানেও বাগান করেছিলেন তিনি।


সূত্র: মনিরুজ্জামান বাবলু, চাঁদপুর প্রতিনিধি : দ্য রিপোর্ট টুয়েন্টিফোর ডটকমক

Facebook Comments

Check Also

বাংলাদেশে অনলাইন স্কুল কার্যক্রমে ভবিষ্যতের দ্বার উন্মোচন

♦ রাফিউ হাসান ♦ করোনার মহামারীতে স্থবির জনজীবন। গত চার মাসের উপর বন্ধ স্কুল, কলেজ, …

vv