ব্রেকিং নিউজঃ
Home / ইলিশের বাড়ি চাঁদপুর / সেনগাঁও সপ্রাবি’র ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তীতে নবীন প্রবীণদের মিলনমেলা
চাঁদপুর সদরের সেনগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে নবীন প্রবীণদের মিলনমেলায় উপস্থিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান।

সেনগাঁও সপ্রাবি’র ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তীতে নবীন প্রবীণদের মিলনমেলা

গাজী মোঃ মহসিন : চাঁদপুর সদর উপজেলার ২নং আশিকাটি ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২০নং সেনগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে প্রাক্তন নবীন-প্রবীন শিক্ষার্থীদের প্রথম পুর্নমিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রথম পুনর্মিলনীতে পুরো মাঠ সেজেছিলো লাল-নীল বর্ণিল সাজে।

শনিবার (২৭ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে সেনগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে এ উপলক্ষে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়ক রোড হয়ে চাঁদখার বাজার, ঘোষেরহাট বাজার সহ পুরো সেনগাঁও গ্রামে প্রদক্ষিণ হয়ে বিদ্যালয় মাঠে এসে শেষ হয়।

সকাল ১০টায় জাতীয় সংগীতের মাধ্যমে এবং বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান।

করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য সচেতনতার লক্ষ্যে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ সহ নানা কর্মসূচি পালিত হয় এই মিলনমেলায়। এসো স্মৃতির প্রাঙ্গণে, মিলি প্রীতির বন্ধনে ’’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে আয়োজিত এই আনন্দ আয়োজনে প্রায় ৩ শতাধিক প্রাক্তন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানের প্রধান উপদেষ্টা মোঃ জাকির হোসেন জাহাঙ্গীর এর সভাপতিত্বে এবং উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক মোহাম্মদ মামুন পাটওয়ারী ও সদস্য সচিব রবিউল হাসান মিঠুর প্রাণবন্ত পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা সমিতির সভাপতি মোঃ ইলিয়াস মিয়া, সাধারণ সম্পাদক মোঃ সাখাওয়াত হোসেন পাটওয়ারী, সেনগাঁও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুল আজিজ, আশিকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলমগীর হোসেন সরকার সহ, প্রাশাসনিক, রাজনৈতিক, শিক্ষক ও এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা মোবাইল ফোনে সেলফি তোলা, ছোট ছোট গ্রুপে আড্ডা, আনন্দ ও উল্লাসে মেতে উঠেন সকলেই। বিদ্যালয়ের আশে পাশে ও অনুষ্ঠানস্থলে খুবই আনন্দঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল বিভিন্ন ধরণের খেলাধুলা, স্মৃতিচারণ, স্থানীয় প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা ও রাতে আতশবাজি ও রাফেল ড্র।

প্রাণের প্রিয় স্কুলে বন্ধুর সঙ্গে আবার দেখা, ফের ফিরে এল সেই আনন্দের দিন। তাইতো ভোরের সূর্য উদিত হতেই বিদ্যালয়ের দিকে ছুটেন প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। অনেকদিন পর সহপাঠীদের কাছে পেয়ে আনন্দে উচ্ছাসিত সবাই। ‘পুরানো সেই দিনের কথা ভুলবি কি রে হায়। ও সেই চোখে দেখা, প্রাণের কথা, সে কি ভোলা যায়ৃ’।

প্রাক্তন ছাত্রছাত্রীরা একত্রিত হয়ে হারিয়ে যায় সেই পুরনো দিনে। প্রাক্তনদের আবেগ যেন একটু বেশিই ছিল। খুনসুটিতেও কেউ কাউকে ছেড়ে দেননি। তাদের আবেগ-স্মৃতিচারণ-আড্ডা ছুঁয়ে যায় বিদ্যালয় মাঠ। আর গানের সেই কলির মতোই ‘প্রাণ জুড়াবে তাই’ এর মতোই দীর্ঘদিনের পুরনো বন্ধু, সতীর্থ, শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পেয়ে প্রাণ জুড়িয়েই সম্পন্ন হয় পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান।

Facebook Comments

Check Also

রোজাদার ও সুবিধা বঞ্চিতদের মাঝে হাজীগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের এক বেলা আহার প্রধান

নিজস্ব প্রতিবেদক : হাজীগঞ্জ পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ জালাল রুবেল এর উদ্যোগে রোজাদার, …

Shares
vv