ব্রেকিং নিউজঃ
Home / স্বাস্থ্য / শাহরাস্তিতে পল্লীচিকিৎসকের উপসর্গ গোপনে স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকিতে

শাহরাস্তিতে পল্লীচিকিৎসকের উপসর্গ গোপনে স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকিতে

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে এক পল্লী চিকিৎসক (কোভিড-১৯) উপসর্গের তথ্যগোপন করে সেবা নিয়ে মৃত্যু হয়েছে। ওই পল্লী চিকিৎসকের মৃত্যুর পরে কোভিড পজেটিভ শনাক্ত হয়।

উপজেলার টামটা উত্তর ইউপি’র বলশীদ দৈলবাড়ী গ্রামের আহমদ উল্লাহ গাজী বাড়ি পল্লী চিকিৎসক আব্দুল মোমেন (৪৫) পেটের ব্যথার কথা বলে চিকিৎসা নেওয়ায় এ অবস্থা সৃষ্টি হয় ।

গত সোমবার রাত (৮জুন) এক ঘণ্টা চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় পর তিনি মৃত্যুবরণ করেন। পরদিন স্বজনরা স্বাস্থ্যবিধিন আংশিক মেনে অর্ধশতাধিক লোকের উপস্থিতিতে তার দাফন কাজ সম্পন্ন করে। ওই তথ্যগোপনে তার চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের কর্তব্যরত স্বাস্থ্যকর্মীরা সংক্রমণের ঝুঁকিতে পড়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শনিবার (৬জুন) ওই পল্লী চিকিৎসক আব্দুল মোমেন অসুস্থতা বোধ করে শাহরাস্তি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এসে কোভিড-১৯ নমুনা দেন।

সোমবার (৮জুন) দিবাগত রাত বারোটার কিছু সময় পরে করোনা উপসর্গ ও নমুনা দেওয়ার কথা গোপন করে পেট ব্যথা দেখিয়ে শাহরাস্তি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসার জন্য আসেন।ওই সময় কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডাঃ গোলাম মাওলা নাঈম ও উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার মোঃ আবু সুফিয়ানসহ হাসপাতালের অন্যান্য সাকমো স্টাপরা তার সেবায় এগিয়ে আসেন।পরে তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘণ্টাখানেক পরে মৃত্যুবরণ করেন।
এদিকে বুধবার(১০জুন) ওই মৃত পল্লী চিকিৎসকের কোভিড-১৯ পজিটিভ রিপোর্ট এলে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম (পিপিই)ব্যতিরেকে চিকিৎসা কাজে নিযুক্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের মাঝে করোনা ভীতি ছড়িয়ে পড়ে।
ওই রাতে জরুরী বিভাগে নিয়োজিত স্বাস্থ্য কর্মী আবু সুফিয়ান জানান, ওই রোগীর তথ্য গোপন রেখে শুধুমাত্র পেট ব্যথার কথা জানিয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করে। পরে ওই পল্লী চিকিৎসকের মৃত্যু হলে তার স্বজনরা করোনা উপসর্গের বিষয়টি খোলাসা করেন। এতে তার সেবায় কাজে যুক্ত সকল স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকিতে পড়লো।গণমাধ্যমকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্বাস্থকর্মী বলেন, আমি ইতোমধ্যে অসুস্থ বোধ করছি বলে, বৃহস্পতিবার (১১জুন) নিজের নমুনা পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছি।টামটা উত্তর ইউপি আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক দিদার পাটোয়ারী জানান, ওই মৃত চিকিৎসকের নামাজে জানাজায় অন্তত ৩০-৪০ জন স্থানীয় অধিবাসী স্বাস্থ্যবিধি মেনে অংশগ্রহণ করেন। তবে দাফনকাজ স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন করা হয়।
এদিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভারপ্রাপ্ত (ইউএইচএফপিও) ডাঃ অচিন্ত্য কুমার চক্রবর্তী জানান, কেউ নিজের শারিরীক অবস্থার কথা গোপন করে সেবা নিয়ে অন্যকে ঝুঁকিতে ফেলা বিষয়টি সমীচীন নয়। এছাড়া ভবিষ্যতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে সন্দেহাতীত রোগীদের সেবা প্রদান করা হবে।

Facebook Comments

Check Also

ফরিদগঞ্জ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতি সম্পাদক শহিদুল্লাহ’র মৃত্যুতে দোয়া ও সহায়তা প্রদান

এস.এম ইকবাল : বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতি চাঁদপুর জেলা ফরিদগঞ্জ শাখার প্রায়ত সাধারণ সম্পাদক মো. …

vv