ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / শাহরাস্তিতে নববধূর মেহেদির রং না শুকাতে আত্মহনন

শাহরাস্তিতে নববধূর মেহেদির রং না শুকাতে আত্মহনন

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে এক নববধূ হাতের মেহেদির রঙ না শুকাতেই আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে। পরে পুলিশ শাহরাস্তি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ওই গৃহবধূ মরদেহ উদ্ধার করে।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) বিকেলে শাহরাস্তি উপজেলার টামটা উত্তর ইউপির হোসেনপুর গ্রামের স্বর্ণকার পাড়ায় আত্মহননের এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আত্মহননে প্ররোচনায় স্বামীর পরিবারের বিরুদ্ধে অভিযোগে এনে মামলা দায়ের করেছে গৃহবধূর নানা মোঃ শহিদ মিয়া (৬৫)।

নিহত গৃহবধূর পরিবার সূত্র জানায়, কুমিল্লার কোতয়ালী মডেল থানাধীন সালধর গ্রামের মনির হোসেনের কন্যা ভিকটিম মীম (১৮) শাহরাস্তি উপজেলার টামটা উত্তর ইউপির হোসেনপুর গ্রামের স্বর্ণকার পাড়ায় তার নানার বাড়িতে বসবাস করছিল। ওই গ্রামের নজরুল ইসলামের পুত্র ফাহিমের (২১) সঙ্গে তাঁর প্রণেয়ের সৃষ্টি হয়। ওই থেকে দুজনের মধ্যে দেখা-সাক্ষাৎ হত।ওই হিসেবে গত ২১ এপ্রিল রাত ৮ টার সময় ফাহিম ও মীমকে একত্রে পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের আটক করে।

পরে বিষয়টি নিয়ে নানা নাটকীয়তা শেষে দুই পরিবারের সম্মতিতে ধর্মীয় রীতি নীতি অনুসারে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। পরে বরপক্ষ নববধূকে নিজ বাড়িতে না নিয়ে ওই গৃহবধূর নানার বাড়িতে তাকে রাখে। এদিকে নিহত গৃহবধূ নানা মোঃ শহিদ মিয়ার অভিযোগে জানা যায়, মীমকে তার শ্বশুর আলয় উঠিয়ে নেয়ার বিষয়ে স্বামীর বাড়ির লোকজনের সাথে বনিবনা না হওয়ায় ২৫ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৭ ঘটিকার সময় মীম তার নানার বাড়ি দালান ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে গলায় গামছা লাগিয়ে ফাঁস দিয়া আত্মহত্যা করে।

পরে বাড়ির লোকজন গৃহবধূকে ফাঁস থেকে নামিয়ে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়া গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। বিষয়টি চাউর হতে শাহরাস্তি থানা পুলিশ নিহত গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম মিন্টু জানান, ওই গৃহবধূ তার নানার বাড়িতেই ছিল। ঈদের পর তাকে স্বামীর বাড়িতে উঠিয়ে নেয়ার কথা ছিল। এদিকে বিয়ের পাঁচ দিন পর হাতের মেহেদির রং না শুকাতেই মেয়েটি আত্মহননের পথ বেছে নিল।

এ ঘটনায় নিহতের নানা মোঃ শহিদ মিয়া বর ফাহিম, তার পিতা নজরুল ইসলাম, মাতা সুবর্ণা বেগম (৪০), চাচা নুরুল আলম(৩০) ও দাদী মাজেদা বেগমের বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে শাহরাস্তি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

শাহরাস্তি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নান গণমাধ্যমকে জানান, নিহত গৃহবধূর নানা তার স্বামীর পরিবারের অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে সোমবার গৃহবধূর মিমের মরদেহের আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ শেষে দাফনের কথা রয়েছে।

Facebook Comments

Check Also

মৃত্যুর আগে সেলিম ফিরতে চান চাঁদপুরের আপনজনদের কাছে

নিজস্ব প্রতিনিধি : ৪০ বছর আগে যখন বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান সেলিম মিয়া, তখন সবেমাত্র ম্যাট্রিক …

Shares
vv