ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / লাউতলীতে কথিত এক প্রভাবশালীর কাছে জিম্মি গ্রামবাসী

লাউতলীতে কথিত এক প্রভাবশালীর কাছে জিম্মি গ্রামবাসী

ফরিদগঞ্জ উপজেলার গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের লাউতলী গ্রামের এক মো: তাজুল ইসলাম কাজী নামে এক প্রভাবশালীর কাছে জিম্মি পুরো গ্রামবাসী।

এলাকার মানুষ বিশেষ করে পুরুষরা তার বিরুদ্ধে কথা বলতে চাইলেও ভয়ে কথা বলেন না। কারণ জানতে চাইলে তারা জানান, তাকে লোকজন কাজী ডাকার কারণ তিনি বিয়ের কাজী নয় অপর্কমসহ সকল কাজের কাজী। তার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুললে কদিন পরেই তার বিরুদ্ধে আদালত বা থানা থেকে নোটিশ এসে পড়ে। ফলে ভয়ে কেউই মুখ খুলতে চায় না । বাধ্য হয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্যরা স্থানীয় সংসদ সদস্য বরাবর বিষয়টি জানিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য লিখিত আবেদন করেছেন।

এছাড়া তার বিরুদ্ধে নারী ঘটিত বেশ কয়েকটি অভিযোগ থানায় ও আদালতে রয়েছে।

সরেজমিন গেলে ফরিদগঞ্জ উপজেলার গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের লাউতলী গ্রামের লাভলী আক্তার, নারগিস আক্তার, বয়োবৃদ্ধ ইব্রাহিম, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি শিবলী সাদেক চৌধুরী, নাছির উদ্দিন বেপারী, ফারুক আমিন, ফরিদ হোসেন দেওয়ান, মো: ইউছুপ, আমির হোসেনসহ লোকজন জানান, তাজুল ইসলাম গত ৭/৮ মাস পুর্বে চট্টগ্রাম থেকে নিজের গ্রামের বাড়ি লাউতলী গ্রামে আসে। বাড়িতে আসার পর থেকে তার সাথে বাড়ির লোকজনসহ আশেপাশের প্রতিবেশিদের সাথে একের পর ঝামেলা বাঁধতে থাকে।

তারা জানান, সাবেক ওয়ারেন্ট অফিসার হিসেবে নিজেকে পরিচয় দেয়ার সাথে সাথে তার সাথে মন্ত্রী, এমপি, পুলিশের আইজি, রাষ্ট্রপতির ছেলের সাথে সর্ম্পক রয়েছে পরিচয় দিয়ে মানুষর মাঝে ভয় ও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন বলে জানান। তার বিরুদ্ধে এলাকার বেশ কয়েকজন মহিলা অশোভন আচরণ ও যৌন হয়রানির অভিযোগ করেন।

এসব নিয়ে স্থানীয় লোকজন প্রতিবাদ করলেই তার বিরুদ্ধে আদালতে বা থানায় মামলা ঠুকে দেন। তাজুল ইসলামের পাশের ঘরের হতদরিদ্র কাঁচামাল বিক্রেতার স্ত্রী নারগিস আক্তার জানান, তাজুল ইসলাম সর্ম্পকে তার চাচা হলেও তিনি তাকে প্রায়শ:ই উত্যক্ত করাসহ নানা অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করেন। যা দৃষ্টিকটু হওয়ায় তিনি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে লিখিত অভিযোগ করেছেন। কিন্তু তিনি সেখানে হাজির না হয়ে উল্টো তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন।

বয়োবৃদ্ধ ইব্রাহিম তাজুল ইসলামের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে বলেন, তাদের সাথে কোন বিরোধ নেই । বাড়ির জায়গার মাপঝোপের টাকা দিতে দেরি হওয়ায় তিনিসহ তার পুত্র, পুত্রবধুর বিরুদ্ধে আদালতে মিথ্যা ও হয়রানি মূলক মামলা দায়ের করেছেন। তার বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি কেঁদে ফেলেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মাসুদ আলম পাটওয়ারী তাজুল ইসলামের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে বলেন, গত ৭/৮ মাসে তাজুল ইসলামকে নিয়ে অন্তত শতাধিক সালিশ করেছেন। এভাবে চলতে থাকলে তার ওয়ার্ডের অন্যদের সমস্যার সমাধান বাদ দিয়ে শুধু তাদের নিয়ে থাকতে হবে। এলাকার জনপ্রতিনিধি হিসেবে তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে তার কাছে অন্তহীন মৌখিক অভিযোগ রয়েছে। তিনি বলেন, তিনি একজন সাবেক সেনাকর্মকর্তা হলে তার বিরুদ্ধে এত অভিযোগ হবে কেন। সচেতন ব্যক্তি ভুল একবার করতে পারে , কিন্তু বারবার নয়।

এদিকে নারী ঘটিত ও বিভিন্ন বিষয়ে আনিত অভিযোগের বিষয়ে জানতে তাজুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, দীর্ঘ ৩৪ বছর পর তিনি এলাকায় এসেছেন। এসে নিজের ক্রয়কৃত ও পৈত্রিক জমি উদ্ধার ও রক্ষা করতে যাওয়ার তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ তুলে তাকে হয়রানি করছেন। তিনি তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবী করেন। আদালতে মামলার বিষয়ে জানান, তার বিরুদ্ধে যেমন মামলা রয়েছে, তেমনি তিনি মামলা দায়ের করেছেন।

একটি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ফরিদগঞ্জ থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক ফারুক আলম জানান তাহার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফরিদগঞ্জ থানার ওসি(তদন্ত) মাহবুবুর রহমান মোল্লা জানান, তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ পাওয়া গেছে। দায়েরকৃত অভিযোগের আলোকে তদন্ত চলছে।

প্রতিবেদন: নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদগঞ্জ

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুর গাছ ও দেয়াল পরে দুই শিশু আহত

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর শহরের রহমতপুর আবাসিক এলাকায় আমগাছ ও দেয়ালের চাপায় ২ শিশু গুরুত্বর …

vv