ব্রেকিং নিউজঃ
Home / আঞ্চলিক খবর / যুক্তি, তথ্য, তত্ত্ব, উপাত্ত বিষয়ের সমাহারে প্রতিপক্ষের বক্তব্য খন্ডনের সাবলীল মাধ্যম
১০ম পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতার মতলব উত্তর উপজেলার প্রান্তিক পর্বের পুরস্কার বিতরণ করছেন প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন- উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ।

যুক্তি, তথ্য, তত্ত্ব, উপাত্ত বিষয়ের সমাহারে প্রতিপক্ষের বক্তব্য খন্ডনের সাবলীল মাধ্যম

মনিরুল ইসলাম মনির : বিতর্ক মানে হল বিশেষ ভাবে তর্ক। যার আভিধানিক অর্থ হচ্ছে কোনো একটি বিষয় নিয়ে যুক্তি দিয়ে কথা বলে মীমাংসায় পৌঁছানোর চেষ্টা করা। যারা বিতর্ক করে তারা হচ্ছে তার্কিক বা বিতার্কিক। বিতর্ক চর্চা ছাত্র-ছাত্রীদের যেসব কাজে লাগে তা হচ্ছে, বিতর্কে অংশগ্রহণকারী ছাত্র-ছাত্রীদের কথা বলার জড়তা কেটে যায়। এতে তাদের আত্মবিশ্বাস যেমন বাড়ে তেমনি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বেশি যুক্তি দিয়ে কথা বলার অভ্যাস গড়ে উঠে। অনেকের সামনে কথা বলতে হয় বলে বিতার্কিকদের সাহস বাড়ে। তারা দাঁড়িয়ে কথা বলতে ভয় পায় না।

তিনি বলেন, বিতর্ক হচ্ছে যুক্তির খেলা। এর ফলে শিক্ষার্থীরা প্রতিপক্ষকে যুক্তি দিয়ে ঘায়েল করার কৌশল শেখে। যে কোনো বিষয়ে দ্রুত যৌক্তিক বিশ্লেষণের ক্ষমতা বাড়ে। বিতর্ক করলে যেমন মনোযোগী শ্রোতা হওয়া যায়, তেমনি বাড়ে সময় সচেতনতা। বিতর্ক হচ্ছে যুক্তি, তথ্য, তত্ত্ব, উপাত্ত প্রভৃতি বিষয়ের সমাহারে প্রতিপক্ষের বক্তব্য খন্ডনের সাবলীল মাধ্যম। যার মাধ্যমে একজন বক্তা হয়ে উঠে কথা বলায় পারদর্শী। যা তাকে শ্রোতাদের কাছে করে তোলে অনন্য। ১০ম পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতার মতলব উত্তর উপজেলার প্রান্তিক পর্বে শনিবার মায়া বীর বিক্রম অডিটোরিয়ামে সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ এসব কথা বলেন।

‘যুক্তিতে বেঁধেছি ঘর, বিতর্কের দশ বছর’ এ প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে ১০ম পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতার মতলব উত্তর উপজেলার প্রান্তিক পর্বে কাক ঢাকা ভোর থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি চলতে থাকলেও অংশগ্রহণকারী বিতর্ক দলগুলো যথা সময়ে এসে উপস্থিত হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় অডিটোরিয়াম প্রাঙ্গণ থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক ঘুরে পুনরায় অডিটোরিয়াম ফিরে আসে। র‌্যালিতে অংশ নেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সালাউদ্দিন, বিভিন্ন বিদ্যালয় থেকে আগত বিতার্কিক, দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক, সাংবাদিক, সুধীজন ও চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক ফাউন্ডেশনের নেতৃবৃন্দ।

দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক ও চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী শাহাদাতের পরিচালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. সালাউদ্দিন। অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন- চরকালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক (অব.) মো. নাসির উদ্দিন শাহ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন- সিকেডিএফ মতলব উত্তর শাখার সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের মতলব উত্তর ব্যুরো সকাল ৯টায় ১০ম বর্ষপূর্তির আনুষ্ঠানিকতা শেষে মায়া বীর বিক্রম অডিটোরিয়ামে বিভিন্ন বিদ্যালয় থেকে আগত দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও আমন্ত্রিত অতিথিদের উপস্থিতিতে বিতার্কিকরা স্ব-স্ব যুক্তি-তর্কের মাধ্যমে নির্ধারিত বিষয়ে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন। পক্ষ-বিপক্ষ দলের বিতার্কিকদের যুক্তিতর্কে মুখরিত হয়ে উঠে মায়া বীর বিক্রম অডিটোরিয়াম। প্রতিযোগিতাকে মুহুর্মুহু করতালি দিয়ে জমজমাট করে তোলে উপস্থিত বিতর্কপ্রেমীরা।

১০ম পাঞ্জেরী-চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক প্রতিযোগিতার মতলব উত্তর উপজেলার প্রান্তিক পর্বের উদ্বোধনী র‌্যালী তে নেতৃত্ব দেন উপজেলা নিবার্হী অফিসার শারমিন আক্তার।

প্রান্তিক পর্বেও বিতর্কে মতলব উত্তর উপজেলা থেকে মাধ্যমিক পর্যায়ে ৮টি বিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ে ২টি কলেজ দল অংশগ্রহণ করে। সব মিলিয়ে ৫টি বিতর্ক শেষে অনুষ্ঠিত হয় পুরস্কার বিতরণ।

এ পর্বে সিকেডিএফ মতলব উত্তর শাখার সাধারণ সম্পাদক ও দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের মতলব উত্তর ব্যুরো ইনচার্জ মাহবুব আলম লাভলু সভাপ্রধানে এবং দৈনিক চাঁদপুর কণ্ঠের প্রধান সম্পাদক ও চাঁদপুর কণ্ঠ বিতর্ক ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী শাহাদাতের পরিচালনায় সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন- উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার। এ ছাড়া বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট আবৃত্তিকার শামীম আহমেদ খান ও চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সিনিয়র শিক্ষক আলহাজ্ব আব্দুল মালেক।

বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন শামীম আহমেদ খান, আলহাজ্ব আব্দুল মালেক ও রাজন চন্দ্র দে। মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন বিতর্ক সংগঠক আবু সালেহ, আবদুল্লাহ আল নোমান ও মো. রোবেল হোসেন।

অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান, দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক, বিতার্কিক, সাংবাদিক ও এলাকার সুধীজন উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে অতিথিবৃন্দ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ও শ্রেষ্ঠ বিতার্কিকদের হাতে পুরস্কার এবং অংশগ্রহণকারী সকলের হাতে সনদ তুলে দেন।

মাধ্যমিক পর্যায়ে দশানী মোহনপুর অংশ নেয় লুধুয়া স্কুল এন্ড কলেজের স্কুল এন্ড কলেজ জয় লাভ করে। এ বিতর্কে দল জয়লাভ না করলেও সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হন দশানী মোহনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দলপ্রধান রোকেয়া আক্তার।

ফতেপুর উচ্চ বিদ্যালয় অংশ নেয় বাগানবাড়ী আইডিয়াল একাডেমির বিপক্ষে। তাদের প্রস্তাবিত বিষয় ছিল ‘উন্নত বাংলাদেশ নির্মাণে দুর্নীতিই সবচেয়ে বড় বাধা’। এতে ফতেপুর উচ্চ বিদ্যালয় জয়লাভ করে। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হন- ফতেপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দলপ্রধান মোঃ জমাদিউস সানী।

চরকালিয়া উচ্চ বিদ্যালয় অংশগ্রহণ করে জমিলা খাতুন উচ্চ বিদ্যালয়ের বিপক্ষে। তাদের প্রস্তাবিত বিষয় ছিল ‘আজকের প্রজন্মের বিকাশে সনদ নির্ভর শিক্ষাই বড় বাধা’। এ বিতর্কে জয়লাভ করে জমিলা খাতুন উচ্চ বিদ্যালয় । শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হন জমিলা খাতুন উচ্চ বিদ্যালয়ের দলপ্রধান জেবা চৌধুরী।

দুর্গাপুর জনকল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয় অংশগ্রহণ করে হাজী মইন উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের বিপক্ষে। তাদের প্রস্তাবিত বিষয় ছিল ‘জনসচেতনতাই উন্নয়নের বড় হাতিয়ার’। এ বিতর্কে জয়লাভ করে দুর্গাপুর জনকল্যাণ উচ্চ বিদ্যালয় । শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হন একই বিদ্যালয়ের দলপ্রধান মোঃ রাকিব।

কলেজ পর্যায়ে বিতর্কে মুন্সি আজিম উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ অংশগ্রহণ করে লুধুয়া হাই স্কুল এন্ড কলেজের বিপক্ষে। তাদের বিষয় ছিল ‘অর্থনৈতিক উন্নয়ন বিনিয়োগ নির্ভর নয়, সুষম বণ্টন নির্ভর’। এতে জয় লাভ করে লুধুয়া হাই স্কুল এন্ড কলেজ । শ্রেষ্ঠ বক্তা হওয়ার গৌরব অর্জন করেন লুধুয়া স্কুল এন্ড কলেজের দলের দ্বিতীয় বক্তা নাহিদা জাহান রুমা।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুর নব নির্বাচিত পৌর মেয়রকে রামপুর ইউনিয়ন আ’লীগের শুভেচ্ছা

গাজী মোঃ ইমাম হাসান : চাঁদপুর পৌরসভার নব-নির্বাচিত মেয়র এডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েলকে  ফুলেল শুভেচ্ছা …

vv