ব্রেকিং নিউজঃ
Home / আঞ্চলিক খবর / মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে : ৩৬ হাজার মেট্রিক টন উৎপাদনের লক্ষ্যে ধান কাটা শুরু

মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে : ৩৬ হাজার মেট্রিক টন উৎপাদনের লক্ষ্যে ধান কাটা শুরু

মনিরুল ইসলাম মনির : সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা এই বাংলাদেশ। অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি আমাদের গ্রামাঞ্চল।

বোরো ধানের মৌ মৌ গন্ধে কৃষাণ-কৃষাণীরা মন ভরে গেছে। মতলব উত্তর উপজেলায় অবস্থিত দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মেঘনা-ধনাগোদা সেচ প্রকল্প। সেচ প্রকল্পের পুরো এলাকা এখন কাঁচা-পাকা ধানে ভরপুর। তবে বেশির ভাগ ধানই পেকে গেছে। সেচ প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা গেছে বাম্পার ফলন। ফলন ভাল হওয়ায় কৃষকের মুখেও আনন্দের হাসি।

মতলব উত্তর উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে এ বছর বোরো মৌসুমে ৯ হাজার ১ শ’ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। বিশেষ করে উফসী জাত ব্রি-২৮,২৯, বিআর-৩ বি ৫০, ৫৮, ৫৯, ৬৩, ৬৪, ৬৫, ৭৮। এছাড়াও স্থানীয় ভাবে আলাল, ভোজন, কালি জিরা, বোরো প্রভৃতি।

মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের ব্রাক্ষ্মণচক, মিঠুুরকান্দি, মরাদোন, সুজাতপুর, তালতলী, জীবগাঁও, কালীপুর, সাদুল্লাপুর, হানিরপাড়, খাগকান্দা, কলাকান্দা, লুধুয়া এলাকা ঘুরে দেখা গেছে জমির বেশির ভাগ ধান পাঁকা। ফলন ও ভাল। কৃষকের মুখে আনন্দের হাসি। পুরোদমে ধান কাটা চলছে কৃষকের পাশাপাশি কৃষাণীরা ধান কাটা ও মাড়াই কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

তালতলী গ্র্রামের কৃষক লিয়াকত সর্দার (৬০) জানান, মরাধোন বিলে পানি নিষ্কাশন আমাদের পাকা ধান পানিতে তলিয়ে গেছে। সেজন্য আমরা ধান কেটে নৌকা দিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।

ওটারচর গ্রামের কৃষক আবদুল লতিফ (৪৫) জানান, তিনি ৫০ শতক জমির ধান কেটেছেন তাতে বিআর ২৮ জাতের ধান ৪০ মন ধান হয়েছে।

মেঘনা ধনাগোদা পওর বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, জলবদ্ধতার বিষয়ে আমরা অবগত আছি। বিদ্যুতের সমস্যার কারনে আমার পাম্প চালু করতে পারিনা। পানি নিষ্কাশন খাল গুলো সচল করার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছি।

মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পের পানি ব্যবস্থাপনা এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সরকার মো. আলাউদ্দিন বলেন, কাল বৈশাখী ঝড় ও বৃষ্টিতে বিদ্যুতের খুটি ও তার ছিড়ে যাওয়ায় সেচ পাম্পগুলো সঠিক সময় জলাবদ্ধতার নিরসনে পানি নিষ্কাশন করতে পারেনি।

মতলব উত্তর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সালাউদ্দিন জানান, এ বছর বোরো মৌসুমে মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে ৯ হাজার ১শ’ ৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ করা হয়েছে। ফলন খুবই ভালো আশা করা যাচ্ছে বাম্পার ফলন হয়েছে। তবে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৩৫ হাজার ৮শ’ ২৯ মেট্রিক টন। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে।

মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার বলেন, মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্পে বোরো ধানের ফলন ভালো হয়েছে। পুরোদমে ধান কাটা ও মাড়াই চলছে। আশা করা যাচ্ছে কৃষক তার চাহিদা মিটিয়ে বাজার জাত করতে পারবে বলে আমি মনে করি।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুর নব নির্বাচিত পৌর মেয়রকে রামপুর ইউনিয়ন আ’লীগের শুভেচ্ছা

গাজী মোঃ ইমাম হাসান : চাঁদপুর পৌরসভার নব-নির্বাচিত মেয়র এডঃ জিল্লুর রহমান জুয়েলকে  ফুলেল শুভেচ্ছা …

vv