ব্রেকিং নিউজঃ
Home / দেশজুড়ে / মতলব উত্তরে মুক্তিযোদ্ধা তাফাজ্জল হোসেনকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন
মতলব উত্তরে মুক্তিযোদ্ধা তাফাজ্জল হোসেন সরকারের রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রদান করা হয়। ইনসাইডে তাঁর ছবি।

মতলব উত্তরে মুক্তিযোদ্ধা তাফাজ্জল হোসেনকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন

মতলব উত্তর ব্যুরো : মতলব উত্তরে মুক্তিযোদ্ধা তাফাজ্জল হোসেন সরকারের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার বাদ আসর মতলব উত্তর উপজেলার আউলিয়াবাগ দাখিল মাদ্রাসা মাঠে জানাযা পূর্বক মুক্তিযোদ্ধা তাফাজ্জল হোসেন সরকারকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদার গার্ড অব অনার জানানো হয়। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে গার্ড অব অনারে অংশ নেন উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্ককর্তা মালিক তানভীর হোসেন। মতলব উত্তর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মুজাম্মেল হক, মতলব উত্তর থানা পুলিশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন এসআই গোলাম সারোয়ার ও একটি চৌকস বাদকদল।

জানাযায় উপস্থিত ছিলেন- তিতাস গ্যাসের ডিজিএম লুৎফর হায়দার মাসুম সরকার, সহকারী সেটেলম্যান্ট অফিসার এএসএম শাহিন সরকার, সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা খোরশেদ আলম, উপজেলা সমবায় সমিতির সভাপতি শাহিন চৌধুরী, ছেংগারচর সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক মোল্লা মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন, আউলিয়াবাগ দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোশারেফ হোসেন, সহকারী সুপার তাওহিদুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক, মুক্তিযোদ্ধা আলী আহম্মেদ, চরকালিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সদস্য জসিম উদ্দিন মুন্সি, সাংবাদিক কবির হোসেন সরকার, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা আব্দুর রউফ, সালাউদ্দিন, সালাউদ্দিন মিয়াজী, শরিফুল ইসলাম, শফিউল্যাহ, মতলব সরকারী ডিগ্রী কলেজের জিএস রাহমত চৌধুরীসহ বিভিন্ন শ্রেনী-পেশার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।

জানাযা পড়ান মাওলানা মানিক সরকার। জানাযা শেষে মরহুম তাফাজ্জল হোসেন সরকারকে সরকার বাড়ী পারিবারিক গোরস্থানে সমাহিত করা হয়।

গত ২৬ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ছৈয়ালকান্দির নিজ বাড়ীতে অসুস্থ্য হয়েপড়লে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার বক্ষব্যাধি হাসপাতাল,আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতাল, বারডেম হাসপাতাল, ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতাল, কিংসস্টোন হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

গত ১ মাস ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর অবশেষে ২৪ জানুয়ারী শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬ টায় তিনি ঢাকার কিংস্টন হাসপাতালে মারা যান (ইন্নানিল্লাহি—-রাজেউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর।

তিনি ১৯৭১ এর মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। পেশায় কৃষি বিভাগে চাকুরী করতেন। সর্বশেষে কয়েক মাসপূর্বে মতলব উত্তর উপজেলা কৃষি অফিস থেকে উপজেলা সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তার পদ থেকে অবসর গ্রহন করেন।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২ পুত্র ও ২ কন্যা সন্তান রেখে গেছেন। বড় ছেলে জাকারিয়া কমল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স শেষ করেছে। ছোট ছেলে গোলাম রাব্বী ও বোন তাহমিনা ঢাকার মিরপুর বাংলা কলেজে দ্বাদশ শ্রেণীতে পড়ে এবং ছোটমেয়ে তিশা ছেংগারচর সরকারী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯ম শ্রেণীতে পড়ে।

Facebook Comments

Check Also

নিম্ন আয়ের মানুষের ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রেপক্ষের : ইসমাঈল বেঙ্গল

এস.এম ইকবাল : নিম্ন আয়ের মানুষের ঘরে খাবার পৌঁছে দেয়ার দায়িত্ব রাষ্ট্রের বলে মনে করেন লিবারেল …

vv