ব্রেকিং নিউজঃ
Home / প্রিয় অনুসন্ধান / মতলব উত্তরে ঋণ দেওয়ার প্রলোভনে ১৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারক চক্র
জহিরুল ইসলাম।

মতলব উত্তরে ঋণ দেওয়ার প্রলোভনে ১৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিল প্রতারক চক্র

মতলব উত্তর ব্যুরো : মিচ্যুয়াল বিজনেস ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড নামে একটি কথিত বেসরকারি সংস্থার (এনজিও) কর্মকর্তা গ্রাহকদের প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা নিয়ে উধাও হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৯ অক্টোবর শুক্রবার অভিযুক্ত প্রতারককে আটক করেছে স্থানীয় ভূক্তভোগীরা। আটক জহিরের বাড়ি উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের মনুরকান্দি গ্রামের মৃত্য রফিকুল ইসলামের ছেলে জহিরুল ইসলাম (৩৫) এতে বিপাকে পড়েছেন গ্রাহকেরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ সংস্থাটি মতলব উত্তর উপজেলার মনুরকান্দি গ্রামের জহিরুলকে ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ দেয় চার মাস আগে।পরে জহির উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ঋন দেওয়ার কথা বলে টাকা নেয়। ভুক্তভোগী আবুরকান্দি গ্রামের ব্যাবসায়ী মানিক বেপারি, তোফাজ্জল হোসেন, রোবেল হোসেন, রশিদ প্রধানসহ ২৮ জন থেকে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। তারা জানান, ৯১ জন সদস্যের মধ্যে যে ২৮ জনকে ঋন দেওয়ার জন্য টাকা নেওয়া হয়েছে তারা ব্যাংকে গিয়ে টাকা না পেয়ে জহিরের নাম্বারে ফোন দিলে মোবাইল বন্ধ পায়। পরে হেড অফিসে ফোন দিলে তাদের মোবাইলও বন্ধ পায়। পরে কৌশল অবলম্বন করে জহিরকে আটক করে তারা।

তারা আরো জানায়, উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামে ৯১ জন গ্রাহক তৈরি করে জহির। যত টাকা ঋন দিবে তার ১০ ভাগ জমা দিতে হবে বলে গ্রাহকদের কাছ থেকে ২০ থেকে শুরু করে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত নেয় সে। এভাবে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকা নেয়। ঋণের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি আসে এবং ঋন পাশ হয়েছে বলে জানান কথিত এনজিওর কর্মকর্তারা। পড়ে গ্রাহকরা ব্যাংকে গিয়ে দেখে ঐ এনজিওর ব্যাংক একাউন্টে কোন টাকা নেই। অথচ তারাই আবার সিকিউরিটি হিসেবে গ্রাহকদের কাছ থেকে ব্যাংকের ব্যালংক চেক নিয়েছে। পরে কৌশল অবলম্বন করে জহিরকে আটক করে।

অপরদিকে জহিরের মা জোসনা বেগম মতলব উত্তর থানায় গিয়ে তার ছেলেকে আটক করে মারধর করার অভিযোগ করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে মতলব উত্তর থানার এসআই মিজানুর রহমান ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয়দের নিয়ে উভয় পক্ষের সম্মতিতে টাকা উদ্ধারের লক্ষে ২০ দিন সময় দিয়ে জহিরকে তার মায়ের কাছে তুলে দেয়।

স্থানীয়ভাবে নিয়োগ পাওয়া ম্যানেজার জহির বলেন, ‘বিশ হাজার টাকা মাসিক বেতনে চার মাস আগে এখানে যোগ দিয়েছি। ৩/৪ দিন আগে গ্রাহকদের কয়েক লাখ টাকা ঋণ দেওয়ার কথা ছিল। কাউকে কিছু না বলেই টাকা নিয়ে কর্তৃপক্ষ পালিয়ে গেছে।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা সাইদুর রহমান তপু বলেন, মিচ্যুয়েল বিজনেস ম্যানেজমেন্ট নামে কোনো সংস্থা সমাজসেবা অফিসের সাথে যোগাযোগ করেনি।

Facebook Comments

Check Also

অনিদ্রার কারণ ও প্রতিকার

: হাকীম মিজানুর রহমান : অনিদ্রা একটি রোগ, এটি হয়তো সবাই জানেন না। অনিদ্রা থেকে …

Shares
vv