ব্রেকিং নিউজঃ
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / মতলব উত্তরে অর্থনৈতিক অঞ্চল বাস্তবায়নে ধীরগতি

মতলব উত্তরে অর্থনৈতিক অঞ্চল বাস্তবায়নে ধীরগতি

মনিরুল ইসলাম মনির : চাঁদপুরের মতলব উত্তর অর্থনৈতিক অঞ্চল উন্নয়ন প্রকল্পে বিরাজ করছে ধীর গতি। ৪ বছরে অগ্রগতি হয়েছে যতসামান্য। ফলে প্রকল্পটি থেকে কাক্সিক্ষত সুফলবঞ্চিত হচ্ছে এলাকাবাসী।

সেই সঙ্গে স্থানীয়দের মধ্যে বিরাজ করছে অসন্তুষ্টি। প্রকল্প এলাকায় পশুপালন ও মাছ চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করলেও তারা এখন তা করতে পারছেন না। আবার শিল্প স্থাপন না হওয়ায় কর্মসংস্থানও হয়নি। এ অবস্থায় স্থানীয়রা পড়েছেন বিপাকে।

চাঁদপুরের মতলব উত্তরে অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন প্রকল্প চূড়ান্ত করেছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। উপজেলার পদ্মা-মেঘনার তীরবর্তী এলাকা অর্থনৈতিক অঞ্চল বাস্তবায়নের জন্য জমি অধিগ্রহণ করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসাবে ‘মেগা প্রকল্প ইকোনমিক জোন’ মতলব উত্তরের মানুষকে উপহার দিয়েছেন। দেশের পিছিয়ে পড়া অঞ্চলে শিল্প স্থাপনের মাধ্যমে সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করতে সরকার এ ধরনের অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। সরকার আশা করছে, অর্থনৈতিক অঞ্চলটি স্থাপন হলে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ বাড়বে। এতে ওই এলাকায় ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়বে। ফলে মানুষের কর্মসংস্থান ও আয় বাড়বে।

উপজেলা ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ২০১৮ সালে ২৮ ফেব্রুয়ারি মতলব উত্তর উপজেলা ভূমি অফিসের মাধ্যমে এক লাখ এক হাজার ১০১ টাকায় ভূমির প্রতীকী মূল্য নির্ধারণ করে তিন হাজার ৩৭ একর জমি রেজিস্ট্রি করা হয়। রেজিস্ট্রিকৃত ওইসব জমির দলিলকে (বেজা) হস্তান্তর করা হয়েছে। কিন্তু অর্থনৈতিক অঞ্চলের জমি (বেজা) তিন বছর বুঝে নেওয়ার পরও এখনো কোনো দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই।

ইউএনও গাজী শরিফুল হাসান জানান, ইকোনমিক জোন বাস্তবায়নের জন্য বেজা কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরুল আমিন রুহুল সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে প্রকল্পটি দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য জোর দাবি জানান।

Facebook Comments

Check Also

মৃত্যুর আগে সেলিম ফিরতে চান চাঁদপুরের আপনজনদের কাছে

নিজস্ব প্রতিনিধি : ৪০ বছর আগে যখন বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান সেলিম মিয়া, তখন সবেমাত্র ম্যাট্রিক …

Shares
vv