ব্রেকিং নিউজঃ
Home / সমস্যা-সম্ভাবনা / ফুঁসছে মেঘনা, ভাঙছে চাঁদপুর

ফুঁসছে মেঘনা, ভাঙছে চাঁদপুর

প্রিয় চাঁদপুর : ভয়াবহ ভাঙনের কবলে পড়েছে চাঁদপুরের ইব্রাহিমপুর ও পাশের আলুবাজার ফেরিঘাট এলাকা।

গত কয়েকদিনের মেঘনার ভাঙনে ২ শতাধিক বসতবাড়ি, ছোট একটি বাজার এবং বিআইডাব্লিউটিসির বিশাল টার্মিনালের একাংশ নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। নতুন করে ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে আশপাশের আরো কয়েক শ পরিবার। সোমবার মেঘনা নদীর পশ্চিমপাড় চাঁদপুর সদরের ইব্রাহিমপুর এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

মৌসুমের এ সময় দেশের উত্তরের জনপদ এবং সিলেট অঞ্চলের বানের পানি তীব্র স্রোত নিয়ে চাঁদপুরের পদ্মা ও মেঘনা নদী দিয়ে দক্ষিণের সাগরে নামতে শুরু করেছে। এমন পরিস্থিতিতে ভাঙনের মুখে পড়েছে সদর উপজেলার মেঘনা নদীর পশ্চিমপাড়ের ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নের অংশবিশেষ। গত কয়েকদিনের তীব্র ভাঙনের কবলে পড়ে এই এলাকার নদীপাড়ের ২ শতাধিক বসতবাড়ি বিলীন হয়ে গেছে। এখন ভাঙছে চাঁদপুর-শরীয়তপুর ফেরিসার্ভিসের বিআইডাব্লিউটিসির আলুরবাজার টার্মিনাল। এর মধ্যে পাশের ছোট একটি বাজারও বিলীন হয়ে গেছে। পানির স্রোত বেড়ে যাওয়ায় বিগত ২০০১ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেখানে ভাষণ দিয়েছিলেন তা-ও এখন হুমকির মুখে। এর মধ্যে সেই এলাকার অর্ধেক নদীতে চলে গেছে।

৮০ বছরের বৃদ্ধ নূর মোহাম্মদ। মেঘনা নদীর ভাঙনের কালের সাক্ষী তিনি। সেই যৌবন থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে এই পর্যন্ত ১০ বার স্থান পরিবর্তন করেছেন তিনি। তারপরও রাক্ষুসে ভাঙন তার পিছু ছাড়ছে না। তাই এই বয়সেও ভয়ার্ত চোখে নদীর মতিগতি চেয়ে চেয়ে সময় পার করছেন তিনি। পাশের রহিমা খাতুন (৬০)। গত কয়েক বছর আগে পরপারে পাড়ি জমান তার স্বামী। নদী ভাঙনে ভিটেবাড়ি হারিয়ে এখন তিন সন্তানই তার শেষ ভরসা। ইব্রাহিমপুরের এই দুটি পরিবারের মতো দুইশতাধিক পরিবারের এখন একটাই আকুতি, নদী আমাদের সব কেড়ে নিয়েছে। তাই শেষবারের জন্য আমরা একটু আশ্রয় চাই।

স্থানীয় সমাজসেবক সোহাইব আহমেদ বালা বলেন, এই এলাকার অনেক পরিবারই পাশের শরীয়তপুর জেলায় আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন। স্থায়ী কোনো ঠিকানা না থাকায় মেঘনায় ভাঙনের শিকার কয়েক শ পরিবার মানবেতর জীবনযাপন করছেন। ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মনা গাজী বলেন, ভাঙনের শিকার মানুষের দুর্ভোগের কারণে নিজেকেও বড় অসহায় মনে হয়। তাদের অভাব অভিযোগ শুনেই এখন দিন কাটাচ্ছি।

ইব্রাহিমপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কাশেম খান জানান, বিগত ২০১৬ সালে আলুরবাজার ফেরিঘাটের নৌ চ্যানেল ড্রেজিং করার পর থেকেই দক্ষিণ পাশের বিশাল এলাকাজুড়ে এই ভাঙন চলছে। তবে বর্ষা এলে তার তীব্রতা বেড়ে যায়। তিনি অভিযোগ করেন, মূলত অপরিকল্পিত ড্রেজিংয়ের ফলে নদীর পানির তীব্র স্রোত এবং ঢেউ পাড়ে আছড়ে পড়ছে। ফলে কোনো অবস্থায় তা রোধ করা যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে ভাঙন রক্ষায় স্থানীয় সংসদ সদস্য, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীমের দ্রুত হস্তক্ষেপ চেয়েছেন চেয়ারম্যান আবুল কাশেম খান।

চাঁদপুরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বাবুল আখতার জানান, ইব্রাহিমপুরের ভাঙনরোধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে পানিসম্পদ উপমন্ত্রী তাকে নির্দেশ দিয়েছেন। তবে আপাতত ভাঙনের শিকার একহাজার মিটার এলাকায় বালিভর্তি জিওটেক্স ফেলা হবে। পরে ভাঙনের কারণ চিহিৃত করে স্থায়ী সমাধানের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। -সূত্র: কালের কন্ঠ

Facebook Comments

Check Also

মতলব উত্তরে ১০৯ ভিক্ষুককে পুনর্বাসন

মনিরুল ইসলাম মনির : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত ভিক্ষুক পূনর্বাসন ও বিকল্প কর্মসংস্থান লক্ষ্যে চাঁদপুরের …

vv