ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / ফরিদগঞ্জ পৌর মেয়র মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা

ফরিদগঞ্জ পৌর মেয়র মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে স্ত্রীর মামলা

প্রিয় চাঁদপুর রিপোর্ট : ফরিদগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে পরকীয়া, নারী নির্যাতন ও যৌতুকের অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন তার স্ত্রী। গত ১৭ নভেম্বর চাঁদপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করেন মেয়র মাহফুজুল হকের প্রথম স্ত্রী সোনিয়া।

মামলার আর্জিতে মেয়রের স্ত্রী সোনিয়া উল্লেখ করেন, ইসলামী শরীয়া মোতাবেক ২০১০ সালে মো. মাহফুজুল হকের সাথের তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর মেয়ের সুখ-শান্তির কথা চিন্তা করে সোনিয়ার বাবা তাকে স্বর্ণালংকার ও ঘরের সকল আসবাবপত্র দেয়। পরবর্তীতে ব্যবসার কথা বলে মাহফুজুল হক শ্বশুরের কাছে ৫ লাখ এবং তার ভায়রার কাছ থেকে সাড়ে সাত লাখ টাকা ধার নেয়।

তবে বিপত্তি ঘটে বিয়ের পরই। তার স্ত্রী সোনিয়া দেখেন তার স্বামী মাহফুজুল হক একজন মাদকসেবী ও পরকীয়ায় আসক্ত। সে নারীদের সাথে অবাধ পরকীয়ায় লিপ্ত। প্রায়ই মাদকসেবন করে তার স্ত্রীকে মারধর করেন। দাম্পত্য জীবনে তাদের ৭, ৪ এবং ৩ বছরের সন্তান রয়েছে।

আদালতে মামলার বিষয়ে মেয়র মাহফুজুল হকের প্রথম স্ত্রী সোনিয়া আরো জানান, শুধুমাত্র সন্তানদের মায়ায় এত নির্যানত সহ্য করেও সংসার করে আসছি। কিন্তু আরো ৫ লাখ টাকা এনে দেয়ার জন্য নানাভাবে তাকে শারীরীক নির্যাতন করে মাহফুজ। মুখবন্ধ করে সব কিছু সহ্য করে আসলেও আলো নামে এক নারীর সাথে মাহফুজুল হক পরকীয়া ও অবাধ মেলামেশা করে প্রতিবাদ করলে স্ত্রী সোনিয়ার উপর নেমে আসে নির্যাতন।

মেয়র মাহফুজুল হকের বাবা এ নির্যাতন দেখেও না দেখার ভান করে এবং মো. মাহফুজুল হকের পরকীয়াকে সমর্থন করে গেছে নীরবে। বর্তমানে স্ত্রী সোনিয়া প্রায় আড়াই মাসের গর্ভবতী। এমন অবস্থায়ও মেয়র মাহফুজের নির্যাতন থেমে থাকেনি। তাকে ৫ লাখ টাকা না দিলে স্ত্রীকে ঘরে থাকতে দিবে না বলে সাফ জানিয়ে দেয়।

তিনি আরো জানান, এ ঘটনায় সামাজিকভাবে সালিস করে ঘটনার মীমাংসা করতে চাইলেও মেয়র তা মানতে রাজি না হয়ে স্ত্রীর উপর নির্যাতন অব্যাহত রাখে। আলো নামে নারীর সাথে পরকীয়ায় আসক্ত মেয়র মাহফুজের চরম নির্যাতনে হাসপাতালে ভর্তি হয় স্ত্রী সোনিয়া এবং তাকে অব্যাহত হুমকি দিতে থাকেন মেয়র মাহফুজুল হক। উপায় না দেখে স্ত্রী সোনিয়া ফরিদগঞ্জ থানায় অভিযোগ দিতে গেলে তাকে চাঁদপুরে আদালতে মামলা দেয়ার জন্য বলা হয় এবং তিনি গত ১৭ নভেম্বর সর্বশেষ চাঁদপুর আদালতে মামলা দেন এবং সুবিচার চান।

এদিকে মোবাইল ফোনে এ প্রতিনিধির কাছে সোনিয়া দাবি করেন, মেয়র মাহফুজুল হকের হুমকির ভয়ে তিনি এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহম্মদ শফিকুর রহমানসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

তবে স্ত্রীর অভিযোগের বিষয়ে মেয়র মাহফুজুল হকের বক্তব্য নেওয়ার জন্য একাধিকবার চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

Facebook Comments

Check Also

উদযাপিত হলো ইচ্ছা মানব উন্নয়ন সংস্থার ৬ষ্ঠ বর্ষপূর্তি ও স্বেচ্ছাসেবী মিলনমেলা

ইচ্ছা মানব উন্নয়ন সংস্থার ৬ষ্ঠ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও স্বেচ্ছাসেবী মিলনমেলা মোঃ আরিফুল ইসলাম হৃদয়ের সভাপতিত্বে ও …

Shares
vv