ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / ফরিদগঞ্জে অনাহারে না খেয়ে জীবন কাটছে বৃদ্ধা গুলবাহারের

ফরিদগঞ্জে অনাহারে না খেয়ে জীবন কাটছে বৃদ্ধা গুলবাহারের

এস. এম ইকবাল : পান খাওয়ার চুনের জন্য মাটির দিকে তাকিয়ে তাকিয়ে বাড়ির এক পাশ থেকে অন্যপাশের এক ঘরে যাচ্ছিলেন ফরিদঞ্জের ধানুয়া গ্রামের তালুকদার বাড়ির বয়সের ভারে নূয়ে যাওয়া অসহায় গুলবাহার বেগম।

ঠিক মতো কথা ও বলতে পারছেন না গুলবাহার বেগম। অনাহারে না খেয়ে মানবেতর জীবন যাপনের কথা জানিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

এ সময় তিনি কষ্টের জীবনের কথা বলতে বলতে কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, তিনি ৭৩ বছরে এ পা দিয়েছেন। স্বামী আবুল বাসারের বয়স ৯১ বছর। নেই কোন ছেলে, ৬ মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন অনেক আগেই। স্বামী আবুল বাসার খুলনায় একটি প্রাইভেট কোম্পানীতে সামান্য বেতনে চাকুরী করতেন। সততা আর আদর্শের কারনে সামান্য বেতনেই স্বাচ্ছন্দে জীবন যাপন করেছিলেন তারা। বয়সের কারনে চাকুরী থেকে ইস্তফা দিয়েছেন ১৬ বছর আগে।

তিনি আরো বলেন, দীর্ঘ ১৬ বছরে আয়ের কোন পথ না থাকায় ভিটে বাড়ি ছাড়া সকল সম্পদ বিক্রি করে দিয়েছি, ২ জনের অসুস্থ্যতার আর সংসার খরচের জন্য। এখন সম্বল বলতে আর কিছুই নেই। সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম হওয়ায় কারো কাছ হাত পাততে পারিনি, লজ্জা স্বরমের ভয়ে।

দীর্ঘশ্বাস নিয়ে গুলবাহার বেগম আরো বলেন, টাকা পয়সার অভাবে মেয়েদের খুব স্বচ্ছল পরিবারেও বিয়ে দিতে পারি নাই। স্বামী আবুল বাসার মেয়ে বাড়িতেই থাকে অভাবের তাড়নায়।

এখন কিভাবে সংসার চলে জানতে চাইলে গুলবাহার বলেন, মেয়েরা চাল ডাল কিছু পাঠালে আমাদের রান্নার চুলায় আগুন জ্বলে, আর কিছু না থাকলে রান্না করাও হয় না। অসুস্থ থাকলে রান্না করার কেও না থাকায় রাতে না খেয়ে গুমিয়ে পড়তে হয়।

বয়সের কারনে এখন চোখেও খুব একটা দেখিন না, ঘরে কারেন্টও নেই। টাকার অভাবে কারেন্টের সংযোগ দেয়নি কেউ। টাকার অভাবে ঠিকমত কেরোসিন তেল আনা হয় না। চেরাগ জ্বালিয়ে কোরআন তেলাওয়াত করতে গেলে আলোর অভাবে ঠিক মতন পড়তে পারি না।

গুলবাহার বেগমের ছোট মেয়ে হালিমা বেগম জানায়, আমাদের আর্থিক যে অবস্থা তা দিয়ে আমাদের পরিবার চলতেই খুব কষ্ট হয়, তার উপর বাবা মা কে ওষুধপাতি ভরন পোষন দেওয়ার সাধ্য হয়ে ওঠে না আমাদের।

সরকারি কোন সাহায্য সহযোগিতার বিষয়ে হালিমা বেগম আরো জানায়, আমরা এতো অসহায় অবস্থায় থাকার পরও কোন প্রতিনিধি সাহায্য সহযোগীতা দূরের কথা, আমাদের খোঁজ খবর রাখেনি।

গোবিন্দপুর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য দুলাল খানের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, বৃদ্ধা আবুল বাসার নামের ওই ব্যক্তি দীর্ঘদিন অসুস্থ শুনেছি। বয়স্ক ভাতার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সম্ভ্রান্ত পরিবার হওয়ায় কখনো বয়স্ক ভাতার ব্যাপারে আসেনি তারা।

Facebook Comments

Check Also

হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদে ঈদের ৩টি জামায়াত অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার : সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক বড় মসজিদে ঈদুল ফিতরের প্রথম জামায়াত …

vv