ব্রেকিং নিউজঃ
Home / টকশো / প্রাপ্য সেবা প্রদানে পৌর পরিষদের সাথে আপোস করবো না : অ্যাড. হেলাল

প্রাপ্য সেবা প্রদানে পৌর পরিষদের সাথে আপোস করবো না : অ্যাড. হেলাল

গোলাম মোস্তফা : চাঁদপুর পৌরসভার নির্বাচনে ৮ নং ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের মনোনীত ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকের কাউন্সিলর প্রার্থী অ্যাডঃ হেলাল হোসাইন বলেছেন, নাগরিকদের মর্যাদা ও প্রাপ্য সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে, সেবক হতে চাই।আমার আস্হা ও বিশ্বাস ৮ নং ওয়ার্ডবাসী কাঙ্খিত সেবকের ব্ল্যাক বোর্ড প্রতীককে বিজয়ের মালা পড়াবেন।

আগামী ১০ অক্টোবর চাঁদপুর পৌরসভার নির্বাচনে ৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকের প্রাথী হিসেবে ওয়ার্ডবাসীকে প্রতি তাঁর দেয়া বক্তব্য নিম্নে তুলে ধরা হলো –

অ্যাডঃ হেলাল হোসাইন ৮ নং ওয়ার্ড বাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, প্রিয় ওয়ার্ডবাসী সমাজ গঠনে যেমনি নৈতিক ও সামাজিক শিক্ষার প্রয়োজন। তেমনি প্রয়োজন বিনোদন এবং ক্রীড়ার।

তিনি বলেন, প্রথম শ্রেণীর চাঁদপুর পৌরসভা হলেও বিনোদনের জন্য নেই কোনো ব্যবস্থা।ক্রীড়া চচার ও নেই তেমন কোনো সুযোগ সুবিধা । ফলে নতুন প্রজন্ম নৈতিক ও সামাজিক অবক্ষয়ের পাশাপাশি জড়িয়ে পড়ছে নানা মুখী অপরাধে। তন্মধ্যে মাদক, ইভটিজিং,কিশোর গ্যাং নামক গ্রুপে। এ থেকে উওরনে এবং আধুনিক মডেল বাসযোগ্য নান্দনিক শৈল্পিক ওয়াড হতে পারে এ পৌরসভার ঐতিহ্যবাহী পুরনো ৮ নং ওয়াডটি।

এ পৌরসভার একমাত্র অপার সম্ভাবনাময় ও পর্যটন নির্ভর ৮নং ওয়ার্ডটির উত্তর পূর্বের শেষ প্রান্তে প্রাকৃতিক ছায়াঘেরা “মেঘনা নদীর পাড় বা কিনারা কে কাজে লাগিয়ে পরিকল্পিত পরিকল্পনা করে পযটন এলাকা এবং ক্রীড়া ক্ষেত্রের উপযোগী করে গড়ে তোলা সম্ভব। এদিকে দৃষ্টি নন্দন পর্যটন ক্রীড়া সম্ভাবনা মুখী এলাকা অপরদিকে বেকার যুবকদের কমসংস্হানের ব্যবস্থা। ফলে ৮ নং ওয়ার্ডটি হবে রোল মডেল ও দৃষ্টান্ত এবংঅনুকরণীয়।

তিনি ওয়ার্ড বাসীর প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার নাগরিক হিসেবে আপনারা পৌরসভা কে তাঁর প্রাপ্য পৌর করসহ সকল কিছু প্রদান করলেও বিগত দিনে ওয়ার্ড জনপ্রতিনিধিগন প্রথম শ্রেণীর পৌরসভার নাগরিক মর্যাদা এবং সেবা প্রদানে সীমাহীন ব্যথতার পরিচয় দিয়েছেন। আমি আপনাদের কথা দিচ্ছি, আগামী ১০ অক্টোবর আমার প্রতীক ” ব্ল্যাকবোর্ড” মার্কা কে বিজয়ী করলে ইনশাআল্লাহ নাগরিক মর্যাদা ও প্রাপ্য সেবা প্রদানে আপনাদের প্রতিনিধি হয়ে পৌর পরিষদের সাথে কোনো আপস করবো না।

তিনি প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে বলেন, আমি ৮ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হওয়ায় ইচ্ছে পোষণ করে, দলমত, ধর্ম- বর্ণ,শ্রেণী পেশা নির্বিশেষে সকলের নিকট বা এক কথায় মুরব্বীদের থেকে শুরু করে তরুণ প্রজন্মের সকলকে নিয়ে মতবিনিময় সভা করে আপনাদের মতামতের ভিত্তিতে কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছি। আপনারা ওয়ার্ডবাসী ঐক্যবদ্ধভাবে আমাকে সমথর্ন দিয়েছেন বলে প্রার্থী হয়েছি।

এখানে একটি কথা উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদশের কর্মী হিসেবে ছাত্র জীবন থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতি করে, জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছি। বর্তমানে আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় কমী। ফলে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের মতো ৮ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী হিসেবে দল আমাকে মনোনীত করেছে ।
প্রিয় ওয়ার্ডবাসী,আগামী ১০ অক্টোবর ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকে আমাকে বিজয়ী করলে, আমি আপনাদের কথা দিচ্ছি, কোনো দলের নয়,আমি ৮ নং ওয়ার্ডবাসীর প্রতিনিধি হিসেবে সকলের সমান সুযোগ থাকবে।

তিনি আরো বলেন, বৈশ্বিক মহামারী করোনা কালীন সময়ে মিডিয়ার কল্যাণে দেখেছেন, করোনায় মা – বাবা আক্রান্ত বা মৃত্যু হলে সন্তান এবং সন্তান আক্রান্ত হলে মা- বাবা পযন্ত পাশে পাওয়া যায়নি। আর আত্মীয় স্বজন তো দুরের কথা।
এ দূর্যোগে কেউ ঘর থেকে বের হয়নি। মানুষ গুলো প্রতি মূহুর্তে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে, সে সময়ে বেঁচে থাকবো, না মরে যাবো তা ভাবিনি। এমনকি সন্তান, মা – বাবা, স্ত্রী পরিবার পরিজনের কথা ভুলে গিয়ে আপনাদেরকে এ দূর্যোগ থেকে রক্ষায় সচেতন করেছি। ঘরে ঘরে গিয়ে খোঁজ খবর নিয়েছি। অত্যান্ত গোপনীয়তার সহিত সাধ্য অনুয়ায়ী প্রায় ৫ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছি। বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন, কিন্তু ডাক্তারের কাছে যেতে পারেননি, বা গিয়ে ডাক্তার পাননি, এমনকি প্রসূতি মায়েদের প্রস্রব ও স্বাস্থ্য সেবার বিষয়ে সহযোগিতা ছিলো প্রতিনিয়ত। ঔষধ পত্র সহ করোনাকালীন ৬ টি মাস এমন কোনো সমস্যা নেই, আমি আপনাদের পাশে ছিলাম না। দুঃসময়ে সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর ও পাশে থাকার ব্যক্তি আমি। তাই তো আবদারটুকু ও আপনাদের প্রতি আমার ।

আপনাদের পুনরায় কথা দিচ্ছি, মহান আল্লাহ যতদিন বাঁচিয়ে রাখে আপনাদের সুখ দুঃখে বিগত দিনের ন্যায় আগামীতে পাশে আছি। অতএব আগামী ১০ অক্টোবর ৮ নং ওয়াডের স্ব স্ব ভোট কেন্দ্রে আপনি ও আপনার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ভোট কেন্দ্রে যাবেন। আমার প্রতীক ব্ল্যাকবোর্ড মাকায় ভোট দিয়ে আমাকে বিজয়ী করবেন। আমি ওয়াদা করছি। আমৃত্যু আপনাদের পাশে আছি।

পরিশেষে বলতে চাই, উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় এগিয়ে চলছে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ, এ অগ্রযাত্রায় আপনাদের নিয়ে, আমিও হতে চাই, গবিত অংশীদার।

উল্লেখ্য অ্যাডঃ হেলাল হোসাইন চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য, আবাহনী ক্রীড়া চক্র লিমিটেডের কার্যনির্বাহী পরিষদের পরিচালক , রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি চাঁদপুর ইউনিটের আজীবন সদস্য, চাঁদপুরের অন্যতম সংস্কৃতি নৃত্য সংগঠন নৃত্যাঙ্গনের সহ- সভাপতি, কোড়ালিয়া রোড কিতাব উদ্দিন জামে মসজিদ উন্নয়ন কমিটির সদস্য, পীর বাদশা মিয়া জামে মসজিদের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুর পৌর ১১নং ওয়ার্ডে আশার আলো পাঞ্জাবী প্রতীকের ইকবাল

অমরেশ দত্ত জয় : চাঁদপুর পৌর ১১ নং ওয়ার্ডবাসীর কাছে কাউন্সিলর পদপ্রার্থী মো. ইকবাল হোসেন …

vv