ব্রেকিং নিউজঃ
Home / বাংলাদেশ / রাজনীতি / প্রবীন আ.লীগ নেতা রহিম গাজী অর্থের অভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেননা, প্রধানমন্ত্রী-শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

প্রবীন আ.লীগ নেতা রহিম গাজী অর্থের অভাবে চিকিৎসা নিতে পারছেননা, প্রধানমন্ত্রী-শিক্ষামন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

চাঁদপুর প্রতিনিধি : চাঁদপুরের প্রবীন ও বিশিষ্ট আওয়ামীলীগের বর্ষিয়ান নেতা আব্দুর রহিম গাজী (৭২) অর্থের অভাবে কঠিন রোগে (হৃদরোগ ও ডায়াবেটিকসহ বিভিন্ন রোগে) আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা করতে পারছেনা।

বর্তমানে সে মারাত্বক অসুস্থ্য হয়ে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে বলে জানা গেছে। আব্দুর রহিম গাজী শহরের পৌর আওয়ামীলীগের ৭নং ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি। তিনি ৫২ বছর যাবত ছাত্র জীবন থেকেই তিনি রাজনীতি করে যাচ্ছেন। তিনি এখন বর্তমান সরকার প্রধান ও দেশরত্ন,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও চাঁদপুর-৩ আসনের সাংসদ মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী ডা:দীপু মনি মহাদয়ের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

গতকাল বুধবার তার খবর নিতে গিয়ে তার বাসভবনে গিয়ে দেখা গেছে, তিনি এখন বিছানায় শর্যাসায়ী অবস্থায় আছেন। বিগত প্রায় ৫২ বছর যাবত আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে জীবনের উর্পাজিত সব অর্থ শেষ করে এখন কঠিন রোগে আক্রান্ত হয়ে বিনা চিকিৎসায় তিনি এখন মরন পথের যাত্রী হয়ে নিজ বাসভবনে ধুকে-ধুকে মরতে যাচ্ছে। তাকে দেখার ও খোজ খবর নেওয়ার জন্য দলীয় কেহ তার বাড়িতে আসছেন বলেও জানা যায়।

আব্দুর রহিম গাজী বিগত বছর হঠাৎ মারাত্বক ডায়াবেটিক ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন। পরে দেশে কয়েক লক্ষ টাকা ব্যয় করে চিকিৎসা করেও কোন প্রতিকার পাননি। তিনি জানান, অবশেষে ব্যবসা পরিচালনার কয়েক লক্ষ টাকা ব্যয় করে ১৯৯৮ সালে ভারতের কলিকাতা বিড়লা (বিএম বিল্লাহ) হাসপাতালে হার্টের চিকিৎসা করান।

তিনি সেখানে ওপেন হার্ট সার্জারী করান চিকিৎসক শেঠির মাধ্যমে। বিগত ১০/১২ বছর যাবত তিনি ভাল থাকার পর বর্তমানে রহিম গাজী পূনরায় আবার মারাত্বক ডায়াবেটিক ও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন।

বর্তমানে তিনি অর্থের দিক থেকে নি:শ্ব হয়ে যাওয়ায় চিকিৎসা করতে পারছেন না। চিকিৎসক তাকে বলেছে,তার হার্টে আবার কয়েকটি ব্লক হয়ে গেছে। এ জন্য উন্নত চিকিৎসা করতে হবে। হার্টে ব্লক সাড়াতে হলে ওপেন হার্ট সার্জারী অথবা ্এনজিও প্লাস্টি (আমাদের দেশে বলে রিং পড়ানো) সার্জারী করতে হবে। এরই মধ্যে তিনি পূনরায় আবার গত ২ সপ্তাহ পূর্বে তার হার্ট এর্টাক হলে তাকে চাঁদপুর সরকারী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিয়ে চিকিৎসক ঢাকায় গিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরামর্শ দেন।

বর্তমানে তার পরিবার থেকে জানা যায়,তিনি অর্থের অভাবে ঢাকা গিয়ে চিকিৎসা করাতে পারছেন না। আব্দুর রহিম গাজী জানান,দীর্ঘ বছর যাবত আমার ব্যবসা বন্ধ রয়েছে। রাজনীতি করতে গিয়ে সব অর্থ ব্যায় করে এখন আমি নি:শ্ব হয়ে পড়েছি। তিনি ২ ছেলে ও ২ মেয়ের জনক। এক মেয়ে বিয়ে হলেও ছোট মেয়েটি বর্তমানে অধ্যায়নরত।

২ ছেলে ও আওয়মীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। এক ছেলে যুবলীগের সদস্য ও অপর ছেলে ছাত্রলীগের সদস্য বলে জানা গেছে। রহিম গাজীর ৫ সদস্যের পরিবারের সংসার এখন চলতে হচ্ছে অনেক কষ্ট শিকার করে। তার মধ্যে এ প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতার চিকিৎসা করানোর মত অর্থ ব্যয় করার অবস্থা এখন এ পরিবারের নেই। তার শারীরিক অবস্থা দিনদিন অবনতির দিকে যাচ্ছে। জীবনের ৫২টি বছর যে দলের রাজনীতি করলো রহিম গাজী সে দলের কেহ তাকে তার এ বিপদের দিনে তাকে দেখতে আসছেনা এবং তার খোজঁ ও কেহ নিচ্ছে না বলে তার পরিবারের সদস্যরা অভিমান ও অভিযোগ করে এ কথা বলেন।

তিনি স্বাধীনতার পূর্ব থেকে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত হয়ে বিরোধীদলের বহু নির্যাতনের শিকার হয়ে ও বহু মামলার আসামী হয়ে জেল ও হুলিয়া মাথায় নিয়ে জীবনের ৫২টি বছর যাবত নিজ অর্থ ব্যয় করে রাজনীতি করে গেছেন। তিনি মুক্তিযুদ্বে অংশ গ্রহন না করলেও এ দেশের মুক্তি যোদ্বাদের সকল প্রকার সহযোগিতা করেছেন তিনি।

আব্দুর রহিম গাজী চাঁদপুর শহরের উত্তর শ্রীরামদী জামতলা এলাকার মৃত-আহাম্মদ আলী গাজীর ছেলে। তিনি যুবক বয়সে শহরের ৫নং ঘাট এলাকায় ডিজেল,পেট্রোল ও কেরেনাসিন তেলের এক বড় মাপের ব্যবসায়ী ছিলেন। তিনি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে লালন করে, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের রাজনীতিকে মনে প্রানে ভাল বেসে গেছেন।

জীবনের শুরু থেকেই রাজনীতি করতে গিয়ে বহু চড়াই-উৎরাই সহৃকরে মামলা মোকদ্দামার আসামী হয়ে নির্যাতীত হয়ে,সে সব মামলা থেকে নিজেকে রক্ষা করার চেস্টা ও দলীয় অন্য সদস্যকে সহযোগিতা করে দল করে গেছেন। সেই সময় বিএনপি নির্যাতনের শিকার হয়েও দল ত্যাগ করেনি। বিগত ৫২ বছর রাজনীতি করে বিভিন্ন পদ মর্যাদা পেলেও দলটিকে বাদদিয়ে অন্যদলে যাননি। তিনি দলের জন্য নি:স্বার্থ ভাবে কাজ করে গেছেন।

তিনি গত ১০টি বছর যাবত শহরের পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করে দলীয় নেতাকর্মীদের সুখেদুখে পাশে থেকে দলকে ঘুচিয়ে রেখেছেন। তিনি শহরের পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন ২০১৯ সাল পর্যন্ত। বর্তমান সময়ে আওয়ামীলীগ দেশের দায়িত্ব পালন কালে কোন সহযোগিতা তিনি দল থেকে পাননি। তিনি তার এ কঠিন রোগের চিকিৎসার জন্য বর্তমান সরকার প্রধান ও দেশরত্ন,বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও চাঁদপুর-৩ আসনের সাংসদ মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী ডা:দীপু মনির একান্ত সহযোগিতা কামনা করছেন।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে একদিনে করোনামুক্ত ২১ জন : নতুন শনাক্ত এগারো

মাসুদ হোসেন : চাঁদপুরে করোনা ভাইরাসে নতুন করে আরো ১১ জন আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্ত ব্যক্তিরা …

Shares
vv