ব্রেকিং নিউজঃ
Home / অর্থনীতি / নিজ অর্থায়নে হাজীগঞ্জ বাজারকে সিসি ক্যামেরা ভুক্ত করবো : হায়দার পারভেজ সুজন
হাজীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মো. হায়দার পারভেজ সুজন সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন।

নিজ অর্থায়নে হাজীগঞ্জ বাজারকে সিসি ক্যামেরা ভুক্ত করবো : হায়দার পারভেজ সুজন

সাইফুল ইসলাম সিফাত : হাজীগঞ্জ পৌর যুবলীগের দু’বারের সফল আহবায়ক ও বাজার ব্যবসায়ী সমিতির বর্তমান সফল সাধারন সম্পাদক মো. হায়দার পারভেজ সুজন সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। তিনি গতকাল ১৬ এপ্রিল সোমবার বিকেলে হাজীগঞ্জ বাজারের ফুলেল সুপার মার্কেটের ৩য় তলা এই সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করেন।

তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন, আমি ওই প্রার্থীর মতো নই, যিনি সমিতির নির্বাচন আসলেই মাথা টুপি পড়ে ব্যবসায়ী ও সদস্যদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে গুরে বেড়ান। আর নির্বাচন শেষ হয়ে গেলে ওই প্রার্থীর সাথে ব্যবসায়ী বা সদস্যদের সাথে কোন ধরনের সম্পর্ক থাকেনা। এমনকি একজন সদস্য বা ব্যবসায়ীর মৃত্যুবরণ এবং কাহারো দোকানে চুরি, ডাকাতিসহ নানান সমস্যা তারা পড়লেও থাকে দেখা যায়নি। সে সাথে বাজারের কোন দোকানে আগুন লাগলেও এই প্রার্থীকে কোন ব্যবসায়ী দেখেছে কিংবা ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীকে শান্তনা দিয়েছেন এমন নজির নেই। তিনি কেবল নির্বাচন আসলে প্রার্থী হন। আবার নির্বাচন চলে গেলে লাপাত্তা হয়ে যান। আমার প্রশ্ন তিনি কি নির্বাচনমূখি লোক? না ব্যবসায়ী বান্ধন লোক। আমি যখন সমিতির দায়িত্বে ছিলামনা তখনো ব্যবসায়ীদের সুখ এবং দুঃখ’র সঙ্গি ছিলাম। নির্বাচিত হয়েও তাদের সাথে ছিলাম। ভবিষ্যতেও তাদের সাথে থাকার প্রতিজ্ঞা করছি। তাই ব্যবসায়ী এবং সদস্যদের প্রতি আহবান জানিয়ে অনুরোধ রাখছি আপনার এমন প্রার্থীকে সবাই চিনে রাখবেন।

তিনি আরো বলেন, আমি ২০১৫ সালে সমিতির দায়িত্বে গ্রহনের পর নগদ অর্থ (সমিতির ফান্ডে) পেয়েছি সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা। আর দায়িত্বেকালী সময়ে সমিতির ক্যাশ করেছি ১৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ সাড়ে ৯ লাখ আমার দায়িত্ব থাকাকালীন উন্নতি করেছি। যা অতীতের কোন সাধারণ সম্পাদক করতে ব্যর্থ হয়েছে। আগামী ২৫ এপ্রিল নির্বাচনে যদি পুনরায় সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হতে পারি তাহলে ব্যবসায়ী সমিতির একটি অত্যাধুনিক বহুতল ভবন বাস্তবায়ন করবো, ইনশাল্লাহ এবং আমি নির্বাচিত হওয়ার পরপরই আমার প্রথম কাজ হবে বাজারের প্রতিটি অলিগলিতে সিসি ক্যামেরার আওতায় নিয়ে আসা। আর এই সিসি ক্যামেরা লাগানো হবে আমার নিজ অর্থায়নে।

পশ্চিম বাজারস্থ ফুলেল সুপার মার্কেটের ৩য় তলায় আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে প্রেসক্লাবের সভাপতি মুন্সী মোহাম্মদ মনিরের সভাপতিত্বে সমিতির সাধারন সম্পাদক প্রার্থী হায়দার পারভেজ সুজন আরো বলেন, ২০১৫ সালের ২৮ মে নির্বাচিত হওয়ার পর লিখিত ভাবে ১৬৫ টি দেন-দরবারের সমাধান করেছি। আর অলিখিত শালিসের কোন হিসাব নেই। এতে করে আগের মত দিনের পর দিন মালিক-ভাড়াটিয়ার দ্বন্ধে দোকান ঘরে তালা পড়ে থাকতে হয়নি। যে কারনে যে কোন সময় আমাকে ব্যবসায়ীরা কাছে পাওয়ার জন্য ব্যবসায়ী সমিতির পাশে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছি। আমি সব সময় রাতের বেলায় বাজারের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে ব্যবসায়ীদের খোঁজ খবর নিয়ে আসছি। বিশেষ করে রমজান মাসে রাত ১২ টা পর্যন্ত যে সকল মুদি ও কাপড়ের দোকানগুলো খোলা থাকে তাদের খোঁজ খবর নিয়ে নিরাপত্তা জোরদারের ব্যবস্থা গ্রহন করেছি। কেউ কোন দিন বলতে পারবে না যে আমি কাজের বিনিময় বা ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতা হিসেবে আধিপত্য বিস্তার করে কাহারো কাছ থেকে দুই টাকা নিয়েছি বা গ্রহন করেছি। আমি সব সময় ব্যবসায়ীদের পাশে থেকে সেবা করার প্রত্যয় কাজ করে আসছি এবং এটি করে থাকবো।
বিশেষ মুহুর্তে যেমন বাজারে চুরি, ডাকাতি, দূর্ঘটনায় কেউ বলতে পারবে না তিনি ব্যবসায়ীদের পাশে ছিল। থাকবে বা কি করে যে কিনা অবৈধ ব্যবসার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে মাসের পর মাস গাঁ ডাকা দিয়ে থাকেন সে কি করে ব্যবসায়ীদের স্বার্থ নিয়ে প্রশাসনের সামনে গিয়ে কথা বলবেন। আমি জানি ব্যবসায়ীরা তাদের ভোট সঠিক স্থানে প্রয়োগ করবে বলে আমি বিশ্বাস করি। সর্বশেষ আমি হাজীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচনে সাধারন সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে ছাতা মার্কায় ভোট চাই এবং দলমত নির্বিশেষে ব্যবসায়ীদের পক্ষে কাজ করার জন্য পুনরায় সুযোগ চাই।

ওই সময় পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মিলনসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

Facebook Comments

Check Also

ফরিদগঞ্জে মোবাইল কোর্ট দিয়েও নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছেনা বাজার : ক্রেতাদের ক্ষোভ

এস.এম ইকবাল : দেশে পেঁয়াজের পর আলু নিয়ে তেলেসমাতি কারবার চলছে খুচরা বাজারে। গত বেশ কয়েকদিন …

vv