ব্রেকিং নিউজঃ
Home / জনপ্রতিনিধি / নিজের সম্মানী ভাতার টাকাও রাজরাজেশ্বরবাসীর জন্য ব্যয় করেছি : হযরত আলী বেপারী

নিজের সম্মানী ভাতার টাকাও রাজরাজেশ্বরবাসীর জন্য ব্যয় করেছি : হযরত আলী বেপারী

সজীব খান : চাঁদপুর শহরের মেঘনা নদীর পশ্চিমে পদ্মা নদীবেষ্টিত এলাকা রাজরাজেশ্বর ইউনিয়ন। পদ্মা-মেঘনার ভাঙন ইউনিয়নের লোকজনের নিত্যসঙ্গী। জেলা সদর থেকে এই ইউনিয়নে আসা-যাওয়ার বাহন হচ্ছে ট্রলার ও নৌকা। ২০ হাজার জনগোষ্ঠীর মাঝে এ ইউনিয়নে ভোটার রয়েছেন প্রায় ১৩ হাজার। ৩৮ বর্গ কিলোমিটারের ইউনিয়নটি নদীভাঙনে অনেক ছোট হয়ে গেছে। সাতটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি হাই স্কুল ও একটি দাখিল মাদ্রাসা রয়েছে বিশাল জনগোষ্ঠীর ইউনিয়নটিতে। ভোটের রাজনীতিতে এখানকার জনগণের ভোট প্রতিটি নির্বাচনে একটা ফ্যাক্টর হয়ে থাকে বলে প্রচলিত রয়েছে। আর সেই ইউনিয়নে দীর্ঘ চারবার ইউপি সদস্য নির্বাচিত হন হাজী আবদুল কুদ্দুছ ব্যাপারী।

তারই সুযোগ্য ছেলে আলহাজ্ব হযরত আলী ব্যাপারী বাবার পদাঙ্ক অনুসরণ করে দুবার ইউপি সদস্য ছিলেন। বর্তমানে হযরত আলী ব্যাপারী ওই ইউনিয়নের বিপুল ভোটে নির্বাচিত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি রাজরাজেশ্বর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিও তিনি। ইতোমধ্যে দলকে সংগঠিত করে চরাঞ্চলে শক্তিশালী দলীয় অবস্থান সৃষ্টি করেছেন বলে জানান এলাকার আওয়ামী লীগ কর্মী ও ব্যবসায়ী হারুন ছৈয়াল। দলীয় কার্যক্রমের পাশাপাশি এলাকায় আগামী দিনে আরও উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী হযরত আলী। ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মেম্বার আলী আহাম্মদ বকাউল বলেন, এ যাবতকালের চরাঞ্চলবাসীর অত্যন্ত জনপ্রিয় চেয়ারম্যান হযরত আলী ব্যাপারী।

তিনি বলেন, চেয়ারম্যান হযরত আলী এলাকার জনগণকে দেওয়া প্রতিশ্রুতির বিষয়টি মাথায় রেখে চাঁদপুরে ব্যাপক উন্নয়নের রূপকার স্থানীয় এমপি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির দিকনির্দেশনায় ইউনিয়নে উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছেন। চেয়ারম্যান হযরত আলী বলেন, গত পাঁচ বছর এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছি। দলকে করেছি সংগঠিত। শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির নেতৃত্বে উন্নয়নের ধারায় ও চরাঞ্চলবাসীর দুঃখ লাঘবে ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছি।

নদীভাঙ্গন থেকে ইউনিয়নবাসীকে রক্ষা, যেসব সড়ক নষ্ট হয়ে গেছে তা সচল করা, শিক্ষা ব্যবস্থার উন্নয়নের লক্ষ্যে আবারও চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে চান হযরত আলী। তিনি বলেন, নিজের সম্মানী ভাতার টাকা না নিয়ে গরিব মেধাবী শিক্ষার্থী ও প্রতিবন্ধী অসহায় মানুষের চিকিৎসার জন্য ব্যয় করেছি। ইতোমধ্যে ইউনিয়নের চর এলাকার অনেক জায়গা বিদ্যুতায়নের আওতায় এনেছি। তিনি বলেন, গত পাঁচ বছর ইউনিয়নে যেসব উন্নয়নমূলক কাজ করেছি তাতে আমি আশা করি আমার ওপর জনগণের শতভাগ আস্থা রয়েছে। আগামী দিনেও চরাঞ্চলবাসী এর মূল্য দেবেন বলে বিশ্বাস করি। প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন ও শিক্ষামন্ত্রীর উন্নয়ন ভাবনাকে এগিয়ে নিয়ে চরাঞ্চলবাসীর স্বপ্নের সুন্দর বাসযোগ্য পরিবেশ গড়তে চাই আমি।

Facebook Comments

Check Also

অনিদ্রার কারণ ও প্রতিকার

: হাকীম মিজানুর রহমান : অনিদ্রা একটি রোগ, এটি হয়তো সবাই জানেন না। অনিদ্রা থেকে …

Shares
vv