ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / দেড় বছর পর চাঁদপুরে শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
এম এম নুরুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীদের তাপমাত্রা নির্ণয় করে বিদ্যালয়ের প্রবেশ করানো হচ্ছে। ইনসেটে এভাবেই শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের যেতে দেখা গেছে। ছবি- সজিব খান

দেড় বছর পর চাঁদপুরে শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

সজীব খান : দীর্ঘ দেড় বছর পর প্রানের টানে ছাত্র ছাত্রীরা ছুটছে বিদ্যালয়ে। ঘন্টা বাজবে, ক্লাসে ক্লাসে প্রবেশ করবে, দেড় বছর পর ক্লাসে প্রবেশের এমন চিত্র ঈদের আমেজে মত সবাই মেতে উঠেছে। অনেক দিন পর ঘন্টার আওয়াজে ছাত্র ছাত্রীদের প্রানের বিদ্যাপীঠ মুখোরিত হয়ে উঠেছে। নতুন বইয়ের ঘ্রান আর শিক্ষকদের কড়া শাসনে মানুষ গড়ার কারিগরসহ সবাই একত্রিত হয়েছে।

মানসম্মত পরিবেশ নিশ্চিত করার উপর নজরধারী রাখার নির্দেশনা রয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়ের। দীর্ঘ সতেরো মাস বন্ধ থাকার পর রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর খুলেছে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষার্থীদের পদচারণায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আবার ও মুখরিত হচ্ছে।

রবিবার স্কুল খোলার প্রথম দিন চাঁদপুরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে উৎসব মুখর পরিবেশে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করেছে। কাঁধে স্কুল ব্যাগ, মাথায় ছাতা, আর স্কুল ড্রেস পড়ে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ের যাওয়ার চিত্র অনেক দিন পড়ে চোখে পড়েছে। স্কুলে যেতে ছাত্র ছাত্রীরা এতদিন মরিয়া হয়ে ছিল। মেধাবী ছাত্র ছাত্রীরা অনেক দিন ঝিমিয়ে ছিল। এখন বিদ্যালয় গুলো খোলার কারনে খাতা কলম হাতে নিয়ে লেখা পড়া মনোনিবেশ থাকবে।

সরজমিনে ১২ সেপ্টেম্বর চাঁদপুরের বিভিন্ন বিদ্যালয় ঘরে দেখা যায়, বিদ্যালয়ে ছাত্র ছাত্রীদের প্রবেশের গ্রেইটে স্বাস্থ্য সুরাক্ষা সামগ্রী রাখা হয়েছে। হ্যান্ড সেনিটাইজার, সামাজিক দূরত্ব বজিয়ে রাখার লাল গোল চিহৃ, মুখে মাস্ক স্বাস্থ্য বিধি মেনে ক্লাস করেছে। করোনার সংক্রমণ এড়াতে বিদ্যালয়গুলো ও সার্বিক ব্যবস্থা রেখেছে।

শাহতলী জিলানী চিশতী কলেজে ছাত্র ছাত্রীদের ফুল দিয়ে বরণ করে নিয়েছে। বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীদের বরণের মহাউৎসবে যেন সবাই মেতে উঠেছে। বিদ্যালয়ে প্রবেশের সময় ছাত্র ছাত্রীদের সাথে কথা হলে তারা জানায়, অনেক দিন পর বিদ্যালয়ের যাচ্ছি, খুব ভাল লাগছে, ক্লাসের বাহিরে অনেকদিন ছিলাম, এখন নিয়মিত ক্লাসে যেতে পারবো, নিজেদের জ্ঞান বিকাশে বিদ্যালয়ে যাওয়ার কোন বিকল্প নেই।

করোনার প্রাদুর্ভাব যেন শিক্ষাকে আর ঘ্রাস করতে না পরে, সে প্রত্যাশা আমাদের রয়েছে। তারা জানান, শিক্ষকদের সাথে আমাদের দীর্ঘ সময়ে দূরত্ব হয়েছে। এখন নিয়মিত বিদ্যালয়ে যেতে পারলে বিগত দিনের লেখা পড়ার রিকভারি দিতে পারবো বলে আমরা আশাবাদী। করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। করোনা সংক্রমণ নিম্নমুখী হওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার শুরু করেছে সরকার। শিক্ষা কার্যক্রম চালুর প্রস্তুতি নিতে স্কুল কলেজগুলোকে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদ্বুদ্ধ করা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচ্ছন্ন করারসহ মোট ১৯ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রকাশ করা হয়েছে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার গাইড লাইন। এ গাইড লাইন অনুসরণ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রস্তুত করতে বলা হয়েছে।

এম এম নুরুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের সামাজিক দূরত্ব বজিয়ে ছাত্র ছত্রীরা ক্লাস করতে দেখা গেছে।

সরকারের নির্দেশিত ১৯ দফা নির্দেশনা হলো, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশ মুখসহ অন্যান্য স্থানে কোডিড-১৯ অতিমারি সম্পর্কিত স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে করণীয় বিষয়গুলো ব্যানার বা অন্য কোনো উপায়ে প্রদর্শনের ব্যবস্থা করতে হবে; *শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রবেশ পথে সব শিক্ষক-কর্মচারী শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের তাপমাত্রা পরিমাপক যন্ত্রের মাধ্যমে নিয়মিত তাপমাত্রা মাপা ও তা পর্যবেক্ষণ করার ব্যবস্থা করতে হবে; *শিক্ষার্থীদের ভিড় এড়ানোর জন্য প্রতিষ্ঠানের সবগুলো প্রবেশমুখ ব্যবহার করার ব্যবস্থা করা। যদি কেবল একটি প্রবেশমুখ থাকে সেক্ষেত্রে একাধিক প্রবেশমুখের ব্যবস্থা করার চেষ্টা করতে হবে; *প্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিনে শিক্ষার্থীদের আনন্দঘন পরিবেশে শ্রেণি কার্যক্রমে স্বাগত জানানোর ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিন শিক্ষার্থীরা কিভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিষ্ঠানে অবস্থান করবে এবং বাসা থেকে যাওয়া-আসা করবে সে বিষয়ে শিক্ষণীয় ও উদ্বুদ্ধকারী ব্রিফিং দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

আরও পড়ুন… ‘লঞ্চ ভাড়ার টাকা না থাকায়’২ শিশুকে ছুড়ে ফেলল নদীতে

এছাড়া মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের দেওয়া ভিডিও প্রদর্শনের ব্যবস্থা করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের একটি কক্ষ প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থাসহ আইসোলেশন কক্ষ হিসেবে প্রস্তুত রাখতে হবে: *প্রতিষ্ঠানের সব ভবনের কক্ষ, বারান্দা, সিঁড়ি, ছাদ এবং আঙ্গিনা যথাযথভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার ব্যবস্থা করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের সব ওয়াশরুম নিয়মিত সঠিকভাবে পরিষ্কার রাখা এবং পর্যাপ্ত পানির ব্যবস্থা করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মচারী এবং অভিভাবক প্রবেশের সময় সরকার দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে প্রতিপালনের ব্যবস্থা করতে হবে। *প্রতিষ্ঠানের সব শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও কর্মচারীর সঠিকভাবে মাস্ক (সম্ভব হলে কাপড়ের মাস্ক) পরিধান করার বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন স্থানে সাবান বা হ্যান্ডওয়াশ দ্বারা হাত ধোয়ার এমন ব্যবস্থা করা যাতে শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ঢোকার আগে সবাই সাবান দিয়ে হাত ধুঁতে পারে; *শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের বসার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে।

এক্ষেত্রে পারস্পারিক ৩ (তিন) ফুট শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখার ব্যবস্থা করতে হবে; *শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের খেলার মাঠ, ড্রেন ও বাগান যথাযথভাবে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করা এবং কোথাও পানি জমে না থাকে তা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানসমূহে শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের উপস্থিতির সংখ্যা নিরুপণ করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করতে হবে; *স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে প্রতিপালন করা হচ্ছে কিনা তা পর্যবেক্ষণ ও বাস্তবায়নের জন্য প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকবৃন্দের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করতে হবে।

প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে আনন্দঘন শিখন কার্যক্রমের মাধ্যমে শ্রেণি কার্যক্রম পরিচালিত করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত মেরামত, বৈদ্যুতিক মেরামত এবং পানি সংযোগজনিত মেরামত সম্পন্ন করতে হবে; *প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি ও অভিভাবকদের সাথে সভা করে এতদসংক্রান্ত বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। করোনার কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ছুটি চলছে। সরকারের সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছুটি ছিলো।

প্রাথমিক থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ১২ সেপ্টেম্বর থেকে খুলে দেওয়া হয়েছে। এম এম নুরুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শাখাওয়াত হোসেন বলেন, আমরা স্কুল খোলার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা নিয়েছি, বিদ্যালয়ে সামাজিক দূরত্ব মানার জন্য আমরা দাগ টেনে দিয়েছি। ক্লাসরুমগুলোতে কয়জন কীভাবে বসবে তার জন্যও আমরা সকল ছাত্র ছাত্রীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিদ্যালয়ের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। তিনি বলেন, আমাদের শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মচারী সবাই আমাদের টিকা গ্রহণ করেছে। আমাদের প্রস্তুতি শতভাগ রয়েছে।

৩৭নং পশ্চিম ভাটেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, খুব ভাল লাগছে, বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীদের লেখা পড়া নিয়ে আবার ব্যাস্ত থাকতে পারবো। তবে ১২ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয় খুললে অনেক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ সহকারী শিক্ষকগন যথা সময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে শুক্রবার নতুন করে ১০ জনের করোনা পজেটিভ

মাসুদ হোসেন : চাঁদপুরে নতুন করে ১০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। সনাক্তের হার ৮.৭০%। শুক্রবার …

Shares
vv