ব্রেকিং নিউজঃ
Home / অর্থনীতি / দেশে করোনার ক্লান্তিকালে হাইমচর ব্র্যাকের কার্যক্রম প্রশংসনীয় 

দেশে করোনার ক্লান্তিকালে হাইমচর ব্র্যাকের কার্যক্রম প্রশংসনীয় 

মো. সাজ্জাদ হোসেন রনি, হাইমচর : বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের ফলে অর্থনীতির চাকা যখন থেমে গেছে এমন সময় বিশ্বের সর্ববৃহৎ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক  হাইমচর এলাকার উদ্যোগে সরকারের পাশাপাশি দেশ ও জনগণের কল্যাণে সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সদস্যদের প্রদানকৃত ঋণের কিস্তি আদায় বন্ধ রেখেছে ৷ পাশাপাশি আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠার জন্য নগদ / বিকাশের মাধ্যমে সঞ্চয় ফেরত ও সদস্যদের চাহিদার ভিত্তিতে কৃষি শস্য উৎপাদন ও প্রায়  বন্ধ হয়ে যাওয়া ব্যবসার চাকা সচল রাখার নিমিত্তে ঋণ বিতরণ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে ৷
বাংলাদেশের করনা সংক্রমণের প্রথম থেকেই সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য লিফলেট বিতরণ, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য বিভিন্ন দোকানের সামনে বৃত্ত অঙ্কন ,মাইকিং জীবাণু সংক্রমণের আশঙ্কা জনক স্থানে জীবাণুনাশক স্প্রে করার পাশাপাশি জনসমাগম এলাকায় পানির ড্রাম ও সাবান সরবরাহ করে জনগণকে হাত ধোয়ার জন্য উদ্বুদ্ধ করে হাইমচর এলাকার কর্মীরা ৷
দুর্যোগের এই কঠিন সময়ে যখন সারা দেশ স্থবির হয়ে পড়েছে সে সময় ব্র্যাক কর্মীরা সদস্যদের ফোন করে সদস্য ও তার পরিবারের খোঁজ খবর নিয়েছে এবং করোনা থেকে মুক্ত থাকার জন্য বিভিন্ন রকমের পরামর্শ  প্রদান করেছে ৷
আর্থিক সংকটে পড়া রহিমা বলেন পরিবারের আয়ের ব্যবস্থা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমি খুবই হিমশিম খাচ্ছিলাম ৷ এমতাবস্থায় ব্র্যাক অফিস থেকে ফোন করে আমার খোঁজ খবর নেন এবং আমার সমস্যা বিবেচনা করে আমাকে বিকাশের মাধ্যমে সঞ্চয় ফেরত দেয় যার ফলে আমি আমার পরিবারের আর্থিক সংকট কাটিয়ে উঠতে পারি৷সঞ্চয় গ্রহণের জন্য আমাকে অফিসেও যেতে হয়নি৷ ব্র্যাকের এ ধরনের কর্মকাণ্ডে আমি খুব খুশি এবং ব্র্যাকের  নিকট কৃতজ্ঞ ৷
আর এক সদস্য মাজেদা বলেন, করনা চলাকালীন আমার স্বামীর ব্যবসা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল এমন সময়ে ব্র্যাক অফিস থেকে আমার খোঁজ খবর নেয় এবং আমার সমস্যা বিবেচনা করে আমাকে ঋণ প্রদান করে, ঋণ পেয়ে আমার স্বামী পুনরায় ব্যবসা শুরু করে এবং আমরা ভালো আছি ৷ ক্রান্তিকালে ঋণ দিয়ে মানুষের পাশে থাকার জন্য ব্র্যাককে ধন্যবাদ জানান তিনি ৷
ব্র্যাক হাইমচর উপজেলা শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ আলামিন বলেন, বর্তমানে ব্র্যাক হাইমচর এলাকায় সদস্যদের সমস্যা বিবেচনা করে কিস্তি প্রদান করার জন্য কোনও প্রকার চাপ প্রদান করা হচ্ছে না ৷ যে সকল সদস্য স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে কিস্তি ও সঞ্চয় প্রদান করতে ইচ্ছুক  তাঁদের  সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা নিশ্চিত করার জন্য ব্র্যাক কর্মীরা বিকাশে লেনদেনের পদ্ধতি শিখিয়ে বিকাশের মাধ্যমে কিস্তি ও সঞ্চয় প্রদানের জন্য উৎসাহিত করেছেন ৷ পাশাপাশি সদস্যদের চাহিদার ভিত্তিতে প্রয়োজনে ঋণ দিয়ে আর্থিক আয়ের পথকে গতিশীল রেখে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সর্বাত্মক সহায়তা করা হচ্ছে ৷দেশের এ ক্রান্তিলগ্নে ব্র্যাক মানুষের পাশে দাড়াতে পেরেছে বিধায় আমরা ব্র্যাক কর্মীরা গর্বিত। ব্র্যাক শুরুতেই সাধারণ মানুুষের জন্য কাজ করে আসছে।দেশের ক্রান্তিলগ্নে ব্র্যাকের কার্যক্রমের প্রশংসা করেছে ব্র্যাকের গ্রাহকবৃন্দসহ উপজেলার সুধিজনেরা।
Facebook Comments

Check Also

মতলবে ম্যাক্স গ্লোবাল কর্পোরেশনের জোনাল অফিস উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিনিধি : ‘আমার মোবাইল আমার দোকান’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ই-কমার্সের মাধ্যমে মতলব দক্ষিণ উপজেলার …

vv