ব্রেকিং নিউজঃ
Home / মতামত / তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ; চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির জন্মকথা

তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ; চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির জন্মকথা

:: রফিকুজ্জামান রণি ::

প্রগতিশীল প্রতিষ্ঠান চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি প্রতিষ্ঠার পেছনে ছোট্ট একটি গল্প আছে।
দুই শহরের জানালা-গল্পগ্রন্থের জন্যে ‘এবং মানুষ তরুণ লেখক পুরস্কার-২০১৯’ পেয়েছি আমি। বৈশাখের কবিতা উৎসবে দেয়া হয় সে পুরস্কার। অনুষ্ঠান হয় ঢাকার কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরীতে। নির্ধারিত তারিখে পুরস্কার গ্রহণ করতে ঢাকা গেলাম এবং বিরাট আয়োজন দেখে মুগ্ধ হলাম। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী, সভাপ্রধান ও বিশেষ অতিথির চেয়ার অলংকৃত করেছেন ভারত-বাংলাদেশের সুপ্রতিষ্ঠিত কয়েকজন গুণী কবি-সাহিত্যিক। ভেতরে ভেতরে বেশ উত্তেজিত আর চনমনে হয়ে উঠলাম-এত বড় অনুষ্ঠান থেকে পুরস্কার নেব! এখনো ঘোষণা করছে না কেন, কেন যে এখনো মঞ্চে ঢাকছে না?

পুরস্কারটা সাধারণত অনুষ্ঠানেই ঘোষণা হয়, দুএকদিন আগে শুধু লেখককে বিশেষভাবে ইঙ্গিত দেয়া হয়-সেকারণেই উত্তেজনটা একটু বেশি, মনের ভেতরে শঙ্কা।

সময় মতো পুরস্কার ঘোষণা হলো। সানন্দে গ্রহণ করলাম। আমার পরপরই পুরস্কার গ্রহণ করলেন কবি মতিন বৈরাগী। সঞ্চালনায় ছিলেন কবি আনোয়ার কামাল আর দুজন নারী। আমি পুরস্কারপ্রাপ্তির অনুভূতি শেষ করবার পর মঞ্চে উঠলেন সত্তরস্পর্শী কবি মতিন বৈরাগী। অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে অনেকটা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলে উঠলেন-‘আপনারা কেউ বিশ্বাস করবেন কিনা জানি না, এটাই আমার জীবনে প্রথম পুরস্কার! এর আগে আমি একটি পুরস্কারও পাইনি!’

তাঁর কথা আমাকে ভীষণভাবে আহত করলো। বুকে ধাক্কা দিলো। দেশের বড় বড় সব কাগজে যার লেখা প্রকাশিত হয় নিয়মিত, সে ব্যক্তি জীবনে একবারও পুরস্কার পাননি, এবারই প্রথম! কথাটা শোনার পর ভেতরটা আর্দ্র হয়ে উঠলো। পৃথিবীর কত কত ঘটনাই যে আমাদের অজানা, অদেখা রয়ে গেলো। সেদিন মনে মনে শপথ নিলাম, জীবনে কখনো সুযোগ এলে লেখকদের জন্যে কিছু একটা করবো, সাধ্যে কুলালে পুরস্কার-সম্মাননার আয়োজন করবো। কেউ যেন অন্তত সত্তরোর্ধ্ব বয়সে এসে মঞ্চে দাঁড়িয়ে এভাবে আক্ষেপ করতে না হয়।

কিন্তু না। আমার আবেগ, আমার শপথ আমার কাছেই গচ্ছিত রইলো। কেউ পাত্তা দিলো না। দুএকটা সংগঠনের ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে আলাপও করলাম। তারা হয়তো ভেবেছে, আমি নিজেই পুরস্কার/পদক পাবার লোভে কৌশলে এমন বুদ্ধি দিই। কেউ কানেও মাখেনি কথাটা। নানাবিধ ছুঁতো দেখিয়ে এড়িয়ে গেছে সুকৌশলে।

তাছাড়া এর অল্পদিন আগে চাঁদপুরের একটি প্রতিষ্ঠানের পুরস্কার নিয়েও তুমুল হৈচৈ, নানান তর্ক-বির্তক সৃষ্টি হয়েছিলো। আত্মসম্মানের কথা চিন্তা করে, সে পুরস্কার আমি নিজেই বর্জন করেছি। অনেক জল ঘোলা হয়েছে তা নিয়ে। ফলে, পুরস্কার বিষয়টিতে কারো আস্থা সৃষ্টি করানো গেলো না, দিতেও আগ্রহী হয়ে উঠেনি কেউ বির্তক সৃষ্টির ভয়ে কিংবা মনোবলের অভাবে, মানসিক দীনতার কারণেও হতে পারে। সুতরাং যার মাথা, তার ব্যথা। আমি নিজেই প্রত্যয় নিলাম কাজটা করে দেখাবো। যেভাবেই হোক সফল আমাকে হতেই হবে। উইলিয়াম ফকনারের কথাটা বারবার আওড়ালাম-‘মানুষ পারে না এমন কোনো কাজ নেই।’

এই ফাঁকে একটু অন্য কথা বলা প্রাসঙ্গিক মনে করছি, ইত্যেমধ্যে চাঁদপুরের শিল্প-সাহিত্যের গৌরব তীব্রভাবে সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে, এখানকার কবি-সাহিত্যিকদের সুনাম দেশময় ছড়িয়ে গেছে। বিশেষত তরুণদের অগ্রযাত্রা প্রশংসনীয় হয়ে উঠেছে অন্যান্য জেলাগুলোর তুলনায়। ঢাকার পত্রিকায় আসতে শুরু করেছে আমাদের গল্প-কবিতা-প্রবন্ধ-নিবন্ধ-ছড়া। বাংলা একাডেমির উত্তরাধিকারেও প্রকাশ হচ্ছে আমাদের লেখা। দেশের প্রায় প্রত্যেক জেলার কাগজগুলি চাইতে শুরু করেছে আমাদের কাছ থেকে লেখা। ফেসবুকের কল্যাণে পরিচিত হয়ে উঠলাম দেশবিদেশের অনেক সুপ্রতিষ্ঠিত কবি-সাহিত্যিকের সঙ্গে।

এই বৈপ্লবিক পরিবর্তনের পেছনে, সফল অগ্রযাত্রার আদতে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রেখেছিলাম আমরা গুটিকয় তরুণ : মুহাম্মদ ফরিদ হাসান, সৌম্য সালেক এবং আমি রফিকুজ্জামান রণি। মূলত আমাদের এ কজনের রাতদিনের পরিশ্রমের ফসল, দুর্বার প্রচেষ্টা এবং গণ্ডি-ছাপিয়ে উঠার তীব্র আকাক্সক্ষা এ জেলার সাহিত্যের বেদীতে নতুন এক ঝাঁকুনি দিতে শুরু করেছে। দুএকজন সিনিয়র লেখকও আমাদের সারথি ছিলেন। চাঁদপুরের কয়েক দশকের ঘুমন্ত সাহিত্যাঙ্গনকে অনেকটা ধাক্কা মেরে জাগিয়ে তুলেছে আমাদের যৌথ সম্পাদিত সাহিত্যের ছোট কাগজÑ‘মৃত্তিকা’(মুহাম্মদ ফরিদ হাসান ও রফিকুজ্জামান রণি সম্পাদিত)। এ কাগজ সম্পর্কে পরবর্তীতে জেলার বিশিষ্টজনেরাও পত্রিকায় লিখেছেনÑচাঁদপুরের নবপর্যায়ের সাহিত্য আন্দোলনের ক্ষেত্রে মৃত্তিকাই হচ্ছে প্রথম লিটলম্যাগ। কাগজটি বের করতে গিয়ে কবি পীযূষ কান্তি বড়ুয়া, গীতিকার পীযূষ কান্তি রায় চৌধুরী, নাট্যকার এসএম জয়নাল আবেদীন, সাংস্কৃতিক সংগঠক হারুন আল রশীদ, নাট্যকার জসীম মেহেদী, কবি দন্ত্যন ইসলাম ও লেখক মুখলেছুর রহমান ভূঁইয়ার দ্বারস্থ হয়েছি অনেকবার।

মূলত তাদের আন্তরিকতার কারণেই কাগজটা আলোতে এসেছে সেদিন। এ ‘মৃত্তিকা’ আলোতে আসার পেছনে হাজার রকমের বিড়ম্বনা পোহানোর স্মৃতি জড়িয়ে আছে। অনেক আনন্দের স্মৃতিও আছে।

চাঁদপুরের সাহিত্য অঙ্গন যেহেতেু ইতোমধ্যে শক্তিশালী অবস্থানে দাঁড়িয়েছে সুতরাং এখানকার কেউ-ই কম ব্যক্তিত্বসম্পন্ন লেখক নন। ফলে, নিজেদের মতামত এবং দর্শন সম্পর্কে নিজেরাই আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠেছে। যার ফলে লাভ এবং ক্ষতি দুটোই হয়েছে। নিজেদের মধ্যে অনৈক্য, বিদ্বেষ ও অশ্রদ্ধাভাব খুব সহজে চলে আসে। এ ক্ষেত্রে অগ্রজরা উদাসীন এবং কেউ কেউ সুবিধা আদায়ে মত্ত থাকায় চাঁদপুরের সাহিত্যের স্বর্ণময় ইতিহাস অনেকটা ম্লান হওয়ার পথে ধাবিত হয়। খণ্ডবিখণ্ড হয়ে গেলো সবকিছু। সোনার সংসারে ঢুকে গেলো বিভেদের সাপ। পদপদবির তৃষ্ণা বেড়ে গেলো কারো কারো, ঈর্ষা-হিংসার বালাই যেখানে ছিলো না কখনও, সেখানে নতুন করে ঢুকতে শুরু করলো এ জাতীয় অভিশাপ। আরো অনেক বাজে অভিজ্ঞতার মুখোমুখি দাঁড়াতে হলো। ফলে চর্চাটা হয়ে পড়লো জৌলসহীন কিন্তু একেবারেই থেমে যায়নি। প্রতিযোগিতা বেড়েছে তবে সেটা শিল্পসৃষ্টির প্রতিযোগিতা নয়, নিজেদের নিয়ে মাতমাতি করবার প্রতিযোগিতা!

সাহিত্যের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান-সংগঠনগুলির কর্মকাণ্ড সম্পর্কেও লেখকদের মনে দেখা দিলো চরম অসন্তোষ। কারো কারো অতিমাত্রায় বাড়াবাড়িতে ফুঁসে উঠলো লেখকসমাজ; এমনকি হামলা-হাঙ্গামার মতো নোংরা পরিবেশের মুখোমুখি দাঁড়াবার মুহূর্তও সৃষ্টি হলো। কেউ কারো পথ ছেড়ে দিতে চায় না অথচ মাস কয়েক আগেও ছিলো ভিন্ন প্রতিচ্ছবি; পরস্পরকে তুলে ধরবার প্রতি আন্তরিক ছিলো একসময়। কিন্তু আচানক কোনো ঝড়ের কবলে পড়ে সবকিছু কেমন এক লহমায় লণ্ডভণ্ড হয়ে গেলো, চিড় ধরে উঠলো সম্প্রীতির বেদীমূলে।

এখানে কারো দোষ দেবার মতো কিছু নেই, প্রকৃতিরই খেলা এসব, পৃথিবীর কোনো সাম্রাজ্যই একটানা দুইশ বছরের অধিক টিকে থাকতে পারে না, সে তুলনায় এসব বিষয় তো একেবারেই ছেলেখেলা। আমি বিশ্বাস করি, যে নদীর স্রোত যত বেশি, সে নদীর শাখা-প্রশাখাও তত বেশি হয়। হয়তো-বা চাঁদপুরের সাহিত্যের স্রোতধারাও প্রবল হওয়ায় শাখা-প্রশাখা বিস্তারের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে একদিন, তাই এই অনাকাক্সিক্ষত পরিবেশে উদিত হয়েছে।

যাক সে সব কথা। আসল কথায় ফেরা যাক। আমার ভেতরে লালিত স্বপ্ন, মানুষের হাতে পুরস্কার তুলে দেবার মনোবাসনা সম্পন্ন করবার মতো সঙ্গী খুঁজে পেলাম না। তাই নিজেই খুঁজতে শুরু করলাম নিজের পথ। কেননা, পথ খুঁজে না পেলে, নতুন কোনো পথ তৈরি করাই প্রকৃত মানুষের ধর্ম।

একদিন চিন্তা করলাম ব্যতিক্রম কিছু করতে গেলে হাজারও ঝুট-ঝামেলা অতিক্রম করার চিন্তা মাথায় রাখতে হবে। আঁটঘাট বেঁধে মাঠে নামার স্বপ্ন দেখলাম। বিষয়টা নিয়ে বিশ^স্ত কজনের সঙ্গে আলাপ করলাম। কবি নূরুন্নাহার মুন্নীকেও জানাই। তিনি এগিয়ে যাবার উৎসাহ দিলেন এবং অচিরেই দেখাও করলেন। তারপর, অন্যান্যদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা, বৈঠকের পর বৈঠক, কাছে-দূরের অনেকের সঙ্গে শুরু হলো যোগাযোগ। অযাচক আশ্রম এবং প্রেসক্লাব ঘাট হয়ে উঠলো আমাদের আড্ডার কেন্দ্রবিন্দু (এই দুই জায়গার মাটিতে বসেই একদিন মৃত্তিকা বের করার জন্যে উঠে পড়ে লেগেছিলাম আমরা একঝাঁক সাহিত্যপাগল মানুষ। এই জাগায়গুলোতে বসেই মূলত আমাদের সাহিত্যের আন্দোলন শক্তিশালী হয়েছিল। অযাচক আশ্রমের সামনের স্থানটির নামও দিয়েছিলাম আমি-কাব্যতলা। তখন সেখানে একটা গাছ ছিলো-ছায়াময়। বেলাশেষে ওখানেই আমরা বসতাম। একসময় গাছটির কথা আশ্রমের মহারাজ মহোদয়ও বেমালুম ভুলে গিয়েছিলেন। এ সম্পর্কে তাঁর সঙ্গে একদিন কথা বলার সময় তিনি গাছটির কথা স্মরণে আনতে পারেনি। আশ্রমের মহারাজ মহোদয় এখন প্রয়াত, তাঁর শান্তি কামনা করি।)

প্রায় সবাই আমাকে এগিয়ে যেতে সাহস দিলেন এবং এ জন্যে নিজেদের একটা প্রতিষ্ঠান দরকার হবে সেটাও উপলব্ধি করলাম। ভেবে দেখলাম, সাধারণ সামাজিক সংগঠনের নাম ব্যবহার করে পুরস্কার-পদক প্রদান করার চেয়ে ওজনধারী প্রতিষ্ঠানসদৃশ কোনো নাম ব্যবহার করলে লেখকরা বেশি সম্মানিত বোধ করবেন। পুরস্কারের গুরুত্বও বাড়বে। শুরু হলো নাম নির্ধারণের পালা। আমাকেই করতে হলো সব। প্রথমে তিনচারটা নাম পকেটে নিয়ে ঘোরাঘুরি করার পর তৃপ্তি পেলাম না, কাউকে দেখাইওনি। যা হচ্ছে সব কিছু অত্যন্ত গোপনে, টেরও পায়নি বাইরের মানুষ।

অবশেষে প্রায় পনের দিন খাটাখাটনি করে ভাবলাম-‘চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি’ রাখলে কেমন হয়? কথাটা ভাবতেই মনের ভেতরে দারুণ একটা আনন্দভাব জেগে উঠলো। বাংলাসাহিত্যের প্রথম নিদর্শন তো চর্যাপদ, সেটার ওপর ভিত্তি করেই রাখা হোক আসন্ন সাহিত্য প্রতিষ্ঠানের নাম। মন থেকে দারুণ এক সায় পেয়ে গেলাম, এটাই হোক তবে নাম। চূড়ান্ত করে ফেললাম নামটি। দেখাবার পর সবাই এক মুহূর্তে নামটি পছন্দ করে নিলো। তক্ষুনি ঠিক করলাম এ প্রতিষ্ঠানে সংক্ষিপ্ত নাম হবে ‘চর্যাপদ একাডেমি’। সেটা কেবল বিশেষ প্রয়োজনীতা দেখা দিলে ব্যবহার করবো। যার ফলে বিচিত্র কাজের সঙ্গে যুক্ত হওয়া আমাদের জন্যে সুবিধে হবে। তবে মূল নাম ‘চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি’ শব্দটাই থাকবে।

এরপর কমিটি গঠনের জন্যে চূড়ান্তভাবে আলোচনাপর্ব শুরু হয়। দুই বছরের জন্যে গঠন করা হয় ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি। বাংলাসাহিত্যের আদি নিদর্শন চর্যাপদে একজন মাত্র নারী কবি ছিলেন, নাম কুক্করিপা। তাঁর প্রতি সম্মান দেখিয়ে চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির প্রথম সভাপতি নিবার্চন করা হলো একজন নারী। অর্থাৎ কবি নূরুন্নাহার মুন্নীকে সভাপতি, রফিকুজ্জামান রণিকে মহাপরিচালক, দুখাই মুহাম্মাদ ও নন্দিতা দাসকে পরিচালক করে জেলার শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি ও গণমাধ্যমকর্মীদের সমন্বয়ে গঠিত হলো এবং ঘোষিত হলো সেই কমিটি। কমিটিতে কোনো উপদেষ্টা পদ রাখা হয়নি। তারুণ্যের নেতৃত্ব পৃথিবীকে বদলে দিতে পারে, সে বিশ্বাস থেকে একঝাঁক তরুণের কাঁধে দায়িত্বের জোয়াল তুলে দিয়ে যাত্রা শুরু করলো চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি। ওয়ান মিনিটে মিষ্টিমুখ করার মধ্য দিয়ে শুরু হলো আমাদের কার্যক্রম। ১১ জুন ২০১৯ দিনটিকে ইতিহাসে জায়গা করে দিতে আত্মপ্রকাশ করলো চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি।

কমিটি ঘোষণার পর থেকে জেলাশহরে শুরু হয় নানান-রকম গুঞ্জন। কেউ পক্ষে, কেউ বিপক্ষে। কেউ বলে আমরা অমুক প্রতিষ্ঠানের বিরোধী, তমুক ব্যক্তির বিরোধী, ছয়মাসও কাজ করার মুরদ নাই; পদপদবির লোভে নাকি কমিটি হয়েছে, দুদিন পর আতশ কাচ লাগিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না; কমিটির অন্যান্য সদস্যদের ভুল বোঝানোর চেষ্টা করা হয়, প্রশাসনের কথা বলে ভয়ভীতি দেখানো হয়- আমার কাছে অভিযোগ আসতে থাকে। বললাম- কারো কথায় কান না দিয়ে, কারো বিরোধিতা না করে, কারো সঙ্গে অযথা ঝগড়া-বিবাদে না জড়িয়ে নিজেদের মতো কাজ করার চেষ্টা করুন। কাজে প্রমাণ দেবো আমরা কী।

সেটাই করলো সবাই। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমিকে এগিয়ে নিতে সক্রিয় হয়ে উঠলো। ঘাম, শ্রম, মেধা এবং অর্থও ব্যয় করতে লাগলো। সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থায় মাতিয়ে তুললো। আমাদের টার্গেট অনুযায়ী বাস্তবায়ন শুরু হলো কাজ। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি প্রতিষ্ঠিত হবার পর প্রথম কর্মসূচি ছিলো-‘চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার’ ঘোষণা। দেশের চারজন লেখকের হাতে তুলে দিয়েছি সে পুরস্কার। আমাদের প্রথম আয়োজনটা হয়তো খুব বেশি বড় আকারের ছিলো না কিন্তু ইচ্ছেশক্তিটা অনেক বড় ছিলো। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জীবন। অনুষ্ঠানটি সম্পন্ন হয় ফোকাস মোহনা কার্যালয়ে। মুহাম্মদ মাসুদ আলম ভাইয়ের কাছে সে অনুষ্ঠানের জন্যে সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা ও মানসিক সাপোর্ট পেয়েছি। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি প্রবর্তিত প্রথম পুরস্কার পেয়েছিলেন : কবিতায় স্বপন রক্ষিত (মরণোত্তর), কথাসাহিত্যে শামস সাঈদ, গবেষণা সাহিত্যে নূরুল ইসলাম ফরহাদ এবং লিটলম্যাগ সম্পাদনায় ম. নূরে আলম পাটওয়ারী।

পুরস্কার অনুষ্ঠানের নিউজ দৈনিক জনকণ্ঠ, দৈনিক খোলা কাগজ, দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ সহ বিভিন্ন জাতীয় এবং প্রায় প্রত্যেকটি স্থানীয় পত্রিকায় অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশিত হয়, দৈনিক পূর্বদেশ, দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশসহ চট্টগ্রামের প্রথম সারির পত্রিকাগুলিতেও আসে চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির নিউজ। আমরা দারণভাবে উৎসাহিত হই। পথ হাঁটতে সাহসী হয়ে উঠি। আস্তে আস্তে অনেকের সুপরামর্শ পেতে থাকলাম। ত্রুটি-বিচ্যুতি কেউ কেউ ধরিয়ে দিতে লাগলেন। অনেকেই আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন, অনেকে নতুনভাবে যুক্ত হলেন। কেউ আড়াল থেকে ষড়যন্ত্র করেন, কেউ বা আড়াল থেকে সহযোগিতা করেন; সততাকে সঙ্গী করে কৌশলে পথ চলায় এক মুহূর্তের জন্যে মুখ থুবড়ে পড়েনি চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি।

হাজারও ঝড়-ঝাপটার মাঝে, অপবাদ-অপদস্থপর্ব কাটিয়ে, ঈর্ষাকাতরদের ইয়ার্কি তামাশার ভেতরেও কার্যক্রম থেমে থাকেনি। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পরিবারের সকল সদস্য এবং শুভার্থীর সহযোগিতা না পেলে আমাদের এতটুকু হাঁটা সম্ভব হয়ে উঠতো না। বিশেষত চাঁদপুরের স্থানীয় পত্রিকাগুলোর কাছে আমাদের ঋণ অনেক বেশি, অনলাইন প্রোর্টালগুলিও আমাদের দারুণভাবে সাপোর্ট দিয়েছে। সম্পাদক মহোদয়গণের স্নেহ-ভালোবাসা থাকার কারণেই চর্যাপদ সাহিত্যে একাডেমি খুব দ্রুত মানুষের কাছে পৌঁছুতে পেরেছে বলে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। দেশের ঐতিহাসিক পত্রিকা দৈনিক সংবাদ, যুগান্তর, প্রতিদিনের সংবাদ, বাংলা টিভি, রেডিওটুডে, চিন্তাসূত্র, জাগো নিউজ, বাংলা নিউজ, রাইজিং বিডি ও ফোকাস মোহনার ভিডিও ভার্সন সহ অসংখ্য প্রিন্ট মিডিয়া এবং ইলেকট্রিক মিডিয়া চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির নিউজ কভারেজ করে আমাদের কার্যক্রম এগিয়ে নিতে অপরিসীম ভূমিকা পালন করেছে। তাঁদের আন্তরিকতার ঋণ পরিশোধ্য নহে।

চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার-২০১৯ প্রদানকালে আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম বছরে অন্তত দুইবার পুরস্কার দেয়ার চেষ্টা করবো:
০১) চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার,
০২) দোনাগাজী পদক (মধ্যযুগের কিংবদন্তি পুঁথিসাহিত্যিক, চাঁদপুরের কৃতিসন্তান কবি দোনাগাজীর সম্মানে)।
সেটাও আমরা ছয়মাসের মধ্যে বাস্তবায়ন করেছি। ডিসেম্বর মাসের শেষভাগে আমরা প্রদান করেছি ‘চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি দোনাগাজী পদক-২০১৯’। অনুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয় রসুইঘর চাইনিজ রেস্টুরেন্টে। দেশের সাতজন গুরুত্বপূর্ণ লেখক এ পদক পান। কথাসাহিত্যে মনি হায়দার, গবেষণা সাহিত্য এএসএম ইউনুছ, কবিতায় অনু ইসলাম, সার্বিক সাহিত্যে মোস্তফা হায়দার, লিটলম্যাগ সম্পাদনায় সুমন কুমার দত্ত, সংগীতে মোহাম্মদ ইউসূফ এবং বাচিকশিল্পে জেরিন সিঁথি এ পদক গ্রহণ করেন। সেইসঙ্গে শিক্ষাখাতে বিশেষ অবদান রাখায় পথশিশুর শিক্ষালয় আলোর দিশারী স্কুলকে দেয়া হয় বিশেষ সম্মাননা, সম্মাননা গ্রহণ করেন আলোর দিশারীর শিক্ষক পূজা ও ফারিয়া। অনুষ্ঠানটি উৎসর্গ করা হয় চাঁদপুরের মাটি ও মানুষের সংস্পর্শে বেড়ে উঠা দৃষ্টিপাতের লেখক, বাংলা সাহিত্যের কিংবদন্তি কথাকার বিনয় মুখোপাধ্যায় ওরুফে যাযাবরকে। অনুুষ্ঠান সূচনা হয় প্রখ্যাত গিটারিস্ট দিলীপ ঘোষের অসাধারণ গিটার পরিবেশনার মধ্য দিয়ে। ‘ও আমার দেশের মাটি তোমার পরে ঠেকাই মাথা’ এবং ‘ধন ধান্যে পুষ্পে ভরা, আমাদের এই বসুন্ধরা’ রবিঠাকুর ও ডিএল রায়ের চমৎকার দুটি দেশের গান গিটারে তুলে পুরো অনুষ্ঠান তিনি ভিন্ন রকম নান্দনিকতায় পরিপূর্ণ করে তুলেছিলেন। পারিশ্রমিক ভিন্ন এমন অসাধারণ সুরেলা বিকেল উপহার দিয়ে তিনি চর্যাপদ একাডেমি পরিবারকে কৃতজ্ঞতার বন্ধনে আবদ্ধ করেছে।

শুধু তাই নয়, তারও মাস কয়েক আগে অস্কারে মনোনয়নপ্রাপ্ত ভারতের প্রখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক অমিতাভ ভট্টাচার্য্যকে চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি গুণিজন সম্মাননা প্রদান করে। অনুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয় রিভার কুইজিন চাইনিজ রেস্টুরেন্টে। এর বাইরেও চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির পারিবারিক অনুষ্ঠান ‘ফ্যামিলি ডে’ আয়োজন করা হয় এলিট চাইনিজ রেস্টুরেন্টে। সেখানে পরিবারের সদস্যদের স্বরচিত কবিতায় (উন্মোক্ত বিভাগে) ৪জন এবং স্বরচিত কবিতায় (বঙ্গবন্ধু বিষয়ক) ৩জন, সর্বমোট সাতজন কবির হাতে পুরস্কার-ক্রেস্ট, বই ও অন্যান্য উপহার সামগ্রী তুলে দেয়া হয়।

ফ্যামিলি ডে-অনুষ্ঠান শেষ হবার এক সপ্তাহের মধ্যে পথশিশুদের মাঝে খাবার বিতরণ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। খাবার হিসেবে দেয়া হয় চিকেন বার্গার এবং কুইজ ও ছড়াপাঠের প্রতিযোগিতার আয়োজন করে প্রদান করা হয় পুরস্কার। পুরস্কার হিসেবে দেয়া হয় শিক্ষাসামগ্রী। পথশিশুরাও যে বিজয়ী হতে পারে, তারাও যে দেশ ও জাতি সম্পর্কে ধারণা রাখতে পারে সেটাই জানান দেবার চেষ্টা করেছে চর্যাপদ একাডেমি।

চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির সবচেয়ে শক্তিশালী ও প্রশংসনীয় উদ্যোগ হলো- ‘বই উপহার কর্মসূচি’। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া পৃথিবীর অন্য কোথাও এমন আনুষ্ঠানিকভাবে নিয়মিত বই উপহার প্রদান করা হয় কিনা আমার জানা নেই। থাকলে ভালো হতো। তবে আমাদের কাজ দেখে অনেকেই এমন উদ্যোগ নেয়ার চেষ্টা করছে বটে কিন্তু সফল হয়নি। (কেউ কেউ পরামর্শ নিয়েছে এমন আয়োজন করার জন্যে। জানি না, শেষতক করতে পেরেছে কিনা। তবে কোথাও তাদের সফলতার নিউজ চোখে পড়েনি)।

জেলার প্রতিটি উপজেলার স্কুলগুলোতে ঢুকে, প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের কাছে ছুটে গিয়ে আমরা উপহার হিসেবে দিয়ে আসি বই। মাসে কমপক্ষে ১০০ শিক্ষার্থীকে গল্প-কবিতা-প্রবন্ধ-উপন্যাস-ছড়া ও ভ্রমণকাহিনির গ্রন্থ তুলে দিই। বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে অন্তত ৫/৬জন শিক্ষার্থীকে পুরস্কার প্রদান করি।

শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভিত্তিকই এ কার্যক্রম সীমাবদ্ধ নয়, চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির প্রতিটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে বই উপহার প্রদান করা হয়। পাশিপাশি দেশেবরেণ্য ব্যক্তিবর্গ, সুধিজন, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনের অনুষ্ঠানে আমরা বই উপহার প্রদান করি, জেলার পত্রিকা অফিসগুলোতেও চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি বই উপহার কর্মসূচি পালন করেছে। ড. আনিসুজ্জামান, অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্পিচ রাইটার নজরুল ইসলাম, ডেইলি স্টার সম্পাদক মাফুজ আনাম, জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী এসডি রুবেল, কবি রেজাউদ্দিন স্টালিন, কবি আসলাম সানী, কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, জনপ্রিয় অভিনেতা মোশারফ করিম, ড. তপন বাগচী এবং ড. কাজল রশীদ শাহীনসহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও গুণিজনের হাতে উপহার হিসেবে বই তুলে দিতে সক্ষম হয়েছি আমরা। এ যাবৎকালে প্রায় ৩,০০০ (তিন হাজার) বই উপহার হিসেবে প্রদান করেছে চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি।

আশা করি, বই উপহার কর্মসূচি নিয়মিত চলবে। শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে, মানুষকে বইমুখী করতে, ফেসবুক আসক্তি হ্রাস করতে এবং মাদক ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হলে জাতিকে বই পড়ায় উৎসাহিত করতে হবে। বইয়ের প্রতি ভালোবাসা সৃষ্টি হলে খারাপ কাজ থেকে সরে আসবে নতুন প্রজন্ম। সে প্রচেষ্টা নিয়েই আমরা অগ্রসর হবার চেষ্টা করেছি। কাঁধে বই নিয়ে ‘ছড়িয়ে দিতে বই, পথের মানুষ হই’-শ্লোগান দিতে দিতে আমরা ছুটে যাই জনবিরল কোনো জনপদের স্কুলে, যেখানে সৃজনশীল ও মননশীল তথা শিল্পসাহিত্যের বই এবং পত্রিকা-ম্যাগাজিন পৌঁছুতে পারে না সহজে। শিক্ষার্থীদের বই দিয়ে আসি অনুষ্ঠান করে, কখনও কখনও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা থাকে, বই সম্পর্কে এবং বইয়ের গুরুত্ব সম্পর্কে দুচারটা কথা বলে তাদের পাঠ্যপুস্তকের বাইরের জগত সম্পর্কে ধারণা দেবার চেষ্টা করি আমরা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বার্ষিকক্রীড়া প্রতিযোগিতায় যেন থালা-বাসনের পরিবর্তে বই পুরস্কার দেয়া হয় সে বিষয়ে শিক্ষকমণ্ডলিকে অনুরোধ করি। এক্ষেত্রে বিষয়োপযোগী একটি শ্লোগান ব্যবহার করা হয়- ‘ফেসবুক ও পাঠ্যসূচির গণ্ডিতে আর নই, চর্যাপদের সঙ্গে থেকে পড়বো সকল বই।’

সারাদেশে বই উপহার কর্মসূচি পালন করার ইচ্ছে আমাদের এখনও আছে। সবার আন্তরিক সহযোগিতা থাকলে আমরা সেটাও বাস্তবায়ন করতে পারবো আশা রাখি। বাংলাদেশের মানুষ চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির বই উপহার কর্মসূচি দেখে যেভাবে অভিভূত হয়েছে, আশা করি সারা পৃথিবীর মানুষও একদিন অভিভূত হবে। আমরা আমাদের নিজেদের প্রচার চাই না, চাই বই হোক পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতর উপহার, বইকে যেন কেউ ছোট করে না দেখে। বইই সেরা উপহার-এমন ধ্যানধারণা তৈরি হোক সবার মাঝে এটাই আমাদের প্রধান লক্ষ্য। একদিন প্রতিটি মানুষ যেন সগৌরবে বলে ওঠে- ‘বই কখনও হয় না পর, বইয়ের সঙ্গে বাঁধবো ঘর; বইয়ের দিকে বাড়াও হাত, ঘুচে যাবে অন্ধরাত’।

একটা কথা স্পষ্টভাবে বলে রাখতে চাই, চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি কারো বিরোধী কোনো প্রতিষ্ঠান নয়, চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের ধ্যানধারণাও অনুসরণ করে চলে না। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি চলে তার নিজস্ব গতি, আদর্শ ও ধ্যানধারণার উপর ভিত্তি করে। আমরা প্রতিটি ভালো কাজের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, প্রত্যেকের অর্জনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। ‘কারো সঙ্গে শত্রুতা নয়, সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব’-বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতির এই চমৎকার উক্তি আমরা মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি। তাই ‘আদি এবং অন্তে সত্য ও সুন্দরে আছি’, থাকার চেষ্টাও করি। কেউ আমাদের বিরোধী প্রতিষ্ঠান মনে করলে সেটা তাদের ব্যক্তিগত দায়, এখানে আমাদের কোনো দায়দায়িত্ব থাকার কথা নয়। আমি মনে করি চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি জেলার অন্যান্য সংগঠন-প্রতিষ্ঠানের প্রতি সম্মান রেখেই এগিয়ে যাচ্ছে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সৃজনশীল কাজের বিরোধিতা আমরা করি না, করবোও না। ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব-বিমবিষা সংগঠন কিংবা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। কোনো প্রতিষ্ঠান কারো একার নয়, প্রতিটি সদস্যই প্রতিষ্ঠানের সমান অংশিদার। সুতরাং কোনো ব্যক্তি বিশেষের ভালো-মন্দের দায় প্রতিষ্ঠান বহন করবে না। সকল সাহিত্য প্রতিষ্ঠানেরই লক্ষ একটাই, শিল্প-সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করা। সবার উদ্দেশ্য একটাই, সুন্দরের বীজ সবর্ত্র ছড়িয়ে দেয়া। তাহলে বিরোধ থাকার তো প্রশ্নই আসে না। সবাই তো একই পথের পথিক, হয়তোবা চলার ধরনটা একটু আলাদা, হাঁটার গতিটা একটু ভিন্ন কিন্তু উদ্দেশ্য যে অভিন্ন।

গেলো ২০২০ সালটা ছিলো কালো কাপড়ে মোড়ানো একটি বছর। অসংখ্য প্রিয়জন হারানোর বছর ছিলো এটি। সারা পৃথিবী স্থবির হয়ে গিয়েছিলো। তারপরও আমাদের কাজ থেমে থাকেনি। অন্তত চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার ২০২০ প্রদান সফলভাবে প্রদান করতে পেরেছি আমরা। ২০২০ সালে চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার কবিতায় কবি বীরেন মুখার্জী, কথাসাহিত্যে হামিদ কায়সার, সার্বিক সাহিত্যে জামসেদ ওয়াজেদ, গবেষণা সাহিত্যে জাহাঙ্গীর হোসেন, শিশুসাহিত্যে মকবুল হামিদ, সংগীতে আশিক কবির, বাচিকশিল্পে তানজিনা তাবাচ্ছুম, শিক্ষায় আজমল হোসেন চৌধুরীকে প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কবি রেজাউদ্দিন স্টালিন, প্রধান আলোচক ছিলেন কবি আসলাম সানি এবং উদ্বোধক ছিলেন চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান। এ অনুষ্ঠানটি আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে। আমরা চেষ্টা করবো নতুন করে আরো একটি পদক চালু করতে। ‘চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি হরপ্রসাদ শাস্ত্রী পদক’ চালু করার কথা ভাবছি আমরা। কারণ, হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর কারণেই চর্যাপদের মতো মহামূল্যবান সম্পদের সন্ধান পেয়েছিলাম আমরা। সুতরাং তাঁকে স্মরণ করা আমাদের কর্তব্যে পরিণত হয়েছে।

করোনার কারণে ২০২০ সালে আমরা দোনাগাজী পদক দিতে পারিনি। ২০২১ সালে এসে দুই বছরের পদক এক সঙ্গে ১২জনকে প্রদান করে সে কষ্ট লাঘব করতে সক্ষম হয়েছি। বিগত ২৮ মে ২০২১ শুক্রবার কবিতায় মোহাম্মদ নূরুল হক, কথাসাহিত্যে নিলুফা আক্তার, প্রবন্ধে ফারুক সুমন, অনুবাদে মামুন রশীদ, ফিচার ও ভ্রমণসাহিত্যে আবু আফজাল সালেহ, লিটলম্যাগ সম্পাদনায় প্রত্যয় হামিদকে প্রদান করা হয় দোনাগাজী পদক ২০২১ এবং কবিতায় আজিজ কাজল, প্রবন্ধে জোবায়ের মিলন, নাটকে প্রণব কুমার রায়, ফিচার ও ভ্রমণসাহিত্যে রিফাত কান্তি সেন, সংগঠনে নীহার রঞ্জন হালদার এবং বাচিকশিল্পে দীপান্বিতা দাসকে প্রদান করা হয় দোনাগাজী পদক ২০২০। অনুষ্ঠানে, করোনাকালে সাহসী ভূমিকা পালন করায় হাইমচর লেখক ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা ইমরান শাকিরকে দেয়া হয় বিশেষ সম্মাননা।

বিনোদন আমাদের মন প্রসারিত করে। সে কথা চিন্তা থেকে চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি ২৩ জানুয়ারি ২০২১ শনিবার, চাঁদপুর রোটারী ভবনে গিটারসন্ধ্যার আয়োজন করে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে। চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি সাধারণত সকল গণ্ডি ছাপিয়ে নিজস্ব একটি জগত নির্মাণ করতেই এ আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে স্বপন সেনগুপ্ত, সানি জামান, দিলীপ কুমার ঘোষ, মোস্তফা কামাল ও অর্পণ বড়ুয়াকে শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করা হয়।

এই পর্যায়ে এসে কিছুটা আত্মপ্রসাদে ভুগছি এই ভেবে যে, আমার হাতে প্রতিষ্ঠিত ‘চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি’ এখন সবার কাছে আদরনীয় হয়ে উঠেছে। এ সফলতার ভাগ চর্যাপদ পরিবারের সকলের। এখানে আমার চেয়ে তাদের ভূমিকা কোনো অংশে কম নয়। তাদের রক্ত-ঘাম, মেধা-পরিশ্রম ও অর্থ-বির্সজন এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি রন্ধ্রে রন্ধ্রে মিশে আছে। তাদের আন্তরিকতা এবং স্নেহ-ভালোবাসা না পেলে এতোদূর আসতে পারতো না এ প্রতিষ্ঠান। শক্তিমান গিটারশিল্পী দিলীপ ঘোষ এক বক্তৃতায় বলেছিলেন-‘চর্যাপদ একাডেমির প্রতিটা সদস্য এক একটা বুলেট। তাদের কর্মদক্ষতা দেখে আমি অবাক হই।’ জানি না, দাদার কথা কতটুকু সত্য কিন্তু আমি মনে করি তিনি মিথ্যে বলেননি।

রাষ্ট্র যেমন নিজের প্রয়োজনেই একদিন তৈরি হয়-সময়, ঘটনা এবং পারিপাশির্^কতার ওপর ভিত্তি করেই এক একটি রাষ্ট্রের জন্ম হয়। ঠিক তেমনিভাবে প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠান কিংবা সংগঠন তার নিজের প্রয়োজনে তৈরি হয়। সময়ের প্রেক্ষাপটে কারো না কারো হাত ধরে তৈরি হয় প্রতিটি প্রতিষ্ঠান- চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমিও তেমনই একটি সময়ের ফসল। আমাদের হাতে শুধু বীণাটুকু আছে কিন্তু সেটা বাজিয়ে যাচ্ছে সময় তথা কাল, হয়তো বা মহাকালও হতে পারে।

দ্রষ্টব্য :
০১) চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমিকে প্রথমবারের মতো স্বীকৃতি ক্রেস্ট দিয়ে বরণ করেছিলেন ওয়ালীদ হোসেন।
০২) চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি নিয়ে প্রথম কবিতা লিখেছিলেনÑ কবি কাকলী চক্রবর্তী।
০৩) চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির লোগো এবং প্যাড তৈরি করে দিয়েছিলেনÑ মোহাম্মদ ফারুক গাজী।
০৪) চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির প্রথম অনুষ্ঠানে স্পন্সর করেছেÑ নজরুল ইসলাম স্মৃতি সংসদ। মিডিয়া পার্টানার ছিলো ফোকাস মোহনা। প্রথম অনুষ্ঠান হয় ফোকাস মোহনা কার্যালয়ে।
০৫) চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমির প্রথম বই উপহার কর্মসূচি শুরু হয় মতলব(দ) উপজেলা থেকে।

লেখক পরিচিতি:  রফিকুজ্জামান রণি, প্রতিষ্ঠাতা, চর্যাপদ সাহিত্য একাডেমি, চাঁদপুর।
০১৮২৮৫৫৯০৯৩
০১৯২৪৬৮৫২৯৩
০১৭১২৭৪৯০৪৯

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে শুক্রবার নতুন করে আরো ২১ জনের করোনা শনাক্ত

মাসুদ হোসেন : চাঁদপুরে একদিনে নতুন করে আরো ২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ৬৫ জনের …

Shares
vv