ব্রেকিং নিউজঃ
Home / প্রিয় অনুসন্ধান / ডাক্তার নাকি হাকিম?
ছবিগুলো ডাঃ বিমল চন্দ্রদাশের টাইম লাইন থেকে নেয়া। প্রথমটি বারডেম হাসপাতালে ইন্টার্নী করাকালীন এবং দ্বিতীয়টি চিকিৎসক হিসেবে তার সরকারি নিবন্ধন সনদ।

ডাক্তার নাকি হাকিম?

অসহায়!!!

ছবির এই ছেলেটির নাম ডাঃ বিমল চন্দ্র দাশ। সম্প্রতি ভোলার মনপুরা উপজেলার ইউএনও তাকে ভূয়া চিকিৎসক হিসেবে ১ বছরের সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়েছেন।

গত কিছুদিন ধরে বিষয়টা ফেসবুকে ট্রল হচ্ছে দেখে বিষয়টি নিয়ে আমার আগ্রহ সৃষ্টি হয়।

#ডাক্তার_নাকি_হাকিম?

ভোলার মনপুরা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল আজিজ মহোদয়কে আমি ব্যক্তিগত ভাবে ফোন করি। তিনি জানান ” ইউনানী চিকিৎসাবিদ্যা অর্জনের পর হাকিম লেখা যায়। ডাক্তার নয়।” ৩০ বিসিএস এর এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমি তাকে ১ বছরের সাজা দিয়েছি। এবং তাকে সহযোগীতা করার অপরাধে আরো ৩ জনকে একই সাজা দিয়েছি। ‘

কিন্তু হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারে ইউনানীতে DUMS এবং BUMS কোর্স করলে তিনি ডাক্তার লিখতে পারেন। এবং বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে BUMS ডিগ্রীদধারীদের ডাক্তার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়।

#আইনি_ভিত্তি_কি?

বাংলাদেশ বোর্ড অব ইউনানী এন্ড আয়ুর্বেদিক সিষ্টেম অব মেডিসিন ইউনানী চিকিৎসকদের নিবন্ধন দেয়। এই বোর্ডের বর্তমান চেয়ারম্যান রেলমন্ত্রী মুজিবল হক। সরকারের সচিব পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা এই বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও রেজিস্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সারাদেশে এ সংক্রান্ত পরীক্ষা গুলো অন্যান্য বোর্ডের মতই তারা গ্রহণ করেন। এটা পরিপূর্ণ সরকারি ব্যবস্থাপনা। সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধিনে তারা পরিচালিত হয়।

সিলেটে একটি ডিপ্লোমা এবং ঢাকার মিরপুরে একটি সরকারি স্নাতক ইউনানি মেডিকেল কলেজ রয়েছে। এছাড়া হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় ও স্নাতক কোর্স পরিচালনা করে থাকে। সারাদেশে প্রায় ২৬টি বেসরকারি ইউনানী মেডিকেল কলেজ রয়েছে।

#সরকারি_পদক্ষেপ_কি?

সারাদেশের অনেকগুলি সরকারি সদর হাসপাতালে স্নাতক সম্পর্ণকারী ইউনানী চিকিৎসকদের ডাক্তার হিসেবে সরকারি চাকুরিতে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এবং তারা সুনামের সাথে সেখানে চিকিৎসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

২০১২ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইউনানী চিকিৎসকদের জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিলো।

#সমস্যাটা_কোন_জায়গায়?

প্রায়ই জনগণকে সাবধান করার জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল ( বিএমডিসি) বিভিন্ন সার্কুলার জারি করেন। সেখানে তারা উল্লেখ করেন বিএমডিসি সনদ ছাড়া কেউ চিকিৎসক হিসেবে পরিচয় দিতে পারবেন না।

কিন্তু ইউনানী, আয়ুর্বেদিক, হোমিও চিকিৎসা যে সরকার স্বীকৃত সেটা তারা উল্লেখ করেন না। ফলে এ ধরনের চিকিৎসকরা য়ে সরকার স্বীকৃত সেটা সাধারণ মানুষ জানে না। তাছাড়া কবিরাজিকে অনেকে ভন্ডামী বলে অভিহিত করেন। অথচ ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা কোর্স রয়েছে কবিরাজির উপর। এবং সরকারি ভাবে এদের পরীক্ষা নেয়া ও সনদ দেয়া হয়। অথচ অনেকেই তা জানেন না।

#ডাঃ_বিমল_মনপুরায়_কি_করছিলেন?

ডাঃ বিমল মনপুরায় একটি ইউনানী কোম্পানীর স্পনশরশীপের মাধ্যমে বিনামূল্যে মানুষের চিকিৎসা করছিলেন। এতে অল্পদিনের মধ্যেই তার সুনাম ও সুখ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। এতে তিনি পেশাগত ‘জেলাস’ এর স্বীকার হয়েছেন বলে তার স্বজনদের দাবি। তিনি স্নাতক সম্পর্ণ করা একজন চিকিৎসক। এবং তিনি ঢাকার বারডেম হাসপাতালে ইন্টার্নী শেষ করেছেন।

#সর্বশেষ_পরিস্থিতি_কি?

ইতোমধ্যে তার স্বজনরা এবং তার সংগঠনের নেতৃবৃন্দ হাইকোর্টে রিট করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

-লেখক : শাহরিয়ার পলাশ, সাংবাদিক ও কলামিষ্ট                  
Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে মা ইলিশ নিধনে বেপরোয়া জেলেরা

সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী : ইলিশের বংশবিস্তারে প্রজনন মৌসুম ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত …

vv