ব্রেকিং নিউজঃ
Home / টকশো / জামাল হোসেন প্রধান মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবে

জামাল হোসেন প্রধান মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবে

মোঃ রাছেল, কচুয়া : ‘মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য’ এ শ্লোগানকে বুকে ধারন করে কচুয়া পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের সর্বস্তরের মানুষের পাশে থেকে সেবা করে যাচ্ছেন পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড যুবলীগের সহ-সভাপতি মোঃ জামাল হোসেন প্রধান ।

মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে দুঃখী মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে গ্রাম হবে শহর এই শ্লোগানকে বাস্তবায়ন করতে দুর্ণীতি, সন্ত্রাস, মাদকমুক্ত সমাজ গঠনের অঙ্গীকারবদ্ধ জামাল হোসেন। বর্তমানে আতংকিত মহামারী করোনা ভাইরাসের প্রভাবে সারাদেশ যখন স্তব্ধ, সবাই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যার যার মত নিরাপদ অবস্থান করছেন। নেই মানুষের কর্মস্থান ফলে গ্রাম অঞ্চলের মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে সেই সময়ে নিজের কথা চিন্তা না করে করোনাকে ভয় না পেয়ে গরিব, অসহায়, দিনমজুর, কর্মহীন মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখে যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন।

এছাড়াও যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন দেশে করোনা ভাইরাস শুরু হওয়ার পর থেকেই মানুষের পাশে থেকে কাজ করেন। সমাজের মানুষদের জনসচেতনার পাশাপাশি করোনা থেকে নিরাপদ থাকার জন্য হ্যান্ড সানেটাইজার,হ্যান্ড গ্লাভস বিতরণ করেন। এবং কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী, ত্রাণ সামগ্রী নিজের হাতে পৌছিঁয়ে দেন। যেসব কাজের মাধ্যমে সমাজের প্রতিটি মানুষের মনের মধ্যে স্থান করে নিয়েছেন মোঃ জামাল হোসেন প্রধান। তিনি দেশে করোনা ভাইরাস আসার আগে থেকেই এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান ও গরিব অসহায় ছাত্র-ছাত্রীদের কাগজ কলমসহ শিক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেন। তাঁর এই মহৎ উদ্যোগের জন্য এলাকার সাধারণ মানুষের মাঝে অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেন।

এলাকায় এসব কর্মকান্ড নিয়ে জানতে চাইলে জামাল হোসেন প্রধান বলেন, সাধারণ মানুষের সেবা করাই আমার মূল লক্ষ্য। সহজাত মানবিক গুণাবলির মধ্যে মানুষের কল্যাণ, সেবা ও পরস্পরের প্রতি সহানুভূতি উল্লেখযোগ্য। এ মানবতাবোধ ও মহৎ প্রবণতাগুলো যাদের মধ্যে বিদ্যমান, তারা সমাজ তথা রাষ্ট্রীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রে উজ্জ্বল ও প্রশংসনীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারেন। চলমান জীবনে আমরা বিভিন্নভাবে সমাজের উপকার করতে পারি। এ উপকার সহানুভূতি, সেবা দান, কায়িক শ্রম, আর্থিক সাহায্য, সৎ পরামর্শ কিংবা বাস্তব কর্ম দিয়েও করতে পারি।

তিনি আরো বলেন, আমার বাবা মোঃ শফিউল্লাহ্ এলাকার বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত। তিনি কচুয়া গুলবাহার হিমালয়ে বেসরকারি চাকুরি করেন। আমার বড় ভাই মোঃ কামাল হোসেন এলাকার মানুষের পাশে থেকে প্রতিনিয়ত অসহায় মানুষদের পাশে থেকে তাদের আর্থিক অনুদান সহ বিভিন্ন কাজে সহযোগিতা করেন। তারই ধারাবাহিকতায় আমি এলাকার মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সেবা করে যাচ্ছি। এলাকার মানুষ আমাকে সমর্থন দিলে আমি আগামীতে ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিল পদপ্রার্থী।

ইতোমধ্যে জামাল হোসেন প্রধান সমাজের সকল মানুষের পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন। সমাজের সকল মানুষকে সহযোগিতা করার আশ্বাস দিয়েছেন। সমাজ, সভ্যতা, শিক্ষা ও সাহিত্য সংস্কৃতির উন্নয়নসহ অবহেলিত মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবে বলে এলাকাবাসীর প্রত্যাশা।

Facebook Comments

Check Also

আব্দুল্লাহ্ আল হাসিব ডাক্তার হতে চায়

স্টাফ রিপোটার : এবারের সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় কুমিল্লা বোর্ডের অধীনস্থ চাঁদপুর হাসান আলী …

vv