ব্রেকিং নিউজঃ
Home / আঞ্চলিক খবর / চান্দ্রায় চাঁদা না দেওয়ায় ব্যবসায়ীর উপর হামলা ও দোকানে তালা

চান্দ্রায় চাঁদা না দেওয়ায় ব্যবসায়ীর উপর হামলা ও দোকানে তালা

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২নং চান্দ্রা ইউনিয়নের বাখরপুর এলাকার মধ্য মদনা গ্রামের মৃত হোসেন মিয়ার পুত্র মোঃ আলাউদ্দিনের কাছ থেকে চাঁদা না পেয়ে একই এলাকার বশির জমাদারের পুত্র খোকন জমাদার ও তার পুত্র জিশান জামদার, বাবু জমাদার সহ বেশ কয়েকজন সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোক আলাউদ্দিনকে মারধর করে তার দোকান থেকে টাকা ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায় এবং দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়।

এ বিষয়ে আলাউদ্দিন চাঁদপুর মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগের সূত্রে জানা যায়, মধ্য মদনা এলাকায় আলাউদ্দিনের একটি মুদি দোকান রয়েছে। একই এলাকার খোকন জমাদার প্রায় সময়েই আলাউদ্দিনের দোকানে এসে টাকা না দিয়ে সদাই নিয়ে যেতো। টাকা চাইতে গেলে খোকন জমাদার আলাউদ্দিনকে গালমন্দ করে। এমনকি উল্টো আরো টাকা চাঁদা দাবী করে। সে বলে এলাকায় দোকানদারী করতে হলে আমাদেরকে চাঁদা দিয়ে করতে হবে। না হলে এখানে শান্তিতে ব্যবসা করতে দিবোনা। এ নিয়ে প্রায় সময়ই উভয়ের মাঝে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হতো।

ঘটনাটি আলাউদ্দিন এলাকার মুরব্বিদেরকে জানালে তারা খোকন জমাদারকে ডেকে সতর্ক করে দেয়। কিন্তু খোকন জমাদার কোন কর্ণপাত না করে উল্টো ক্ষিপ্ত হয়ে আলাউদ্দিনকে মারধর করে।

শুক্রবার সকালে খোকন জমাদার তার ছেলে জিশান জামদার, বাবু জমাদার এবং জুয়েল বেপারী সহ বেশ কিছু সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোকজন নিয়ে আলাউদ্দিনের দোকানে এসে সে কিছু বুঝে উঠার আগেই তাকে মরধর করে তার দোকানের ক্যাশে থাকা বেশি কিছু টাকা ও মালামাল লুট করে আলাউদ্দিনকে দোকান থেকে বের করে দোকানে তালা লাগিয়ে দেয়। যাওয়ার সময় খোকন জমাদার হুমকী দিয়ে বলে বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে প্রাণে মেরে ফেলবে।

এসময় আলাউদ্দিনের ডাক চিৎকারে তার পার্শ্ববর্তী দোকানদার মহসিন, নেছার ও রাছেল সহ তার পরিবারের লোকজন এগিয়ে এসে আলাউদ্দিনকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসাপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

সরোজমিনে গেলে এলাকাবাসী জানায়, খোকন জমাদার ও তার পুত্ররা প্রায় সময়ই তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে গ্রামের লোকদের সাথে বিভিন্ন সংঘর্ষে লিপ্ত থাকে এবং তারা মাদক ও বিভিন্ন নেশার সাথে জড়িত।

ভোক্তভূগী আলাউদ্দিন জানায়, আমি প্রায় ৬-৭ মাস আগে আমার বাড়ির পাশেই একটি মুদি দোকান দেই। তখন থেকেই খোকন জমাদার ও তার পুত্র জিশান ও বাবু বেশ কিছু সন্ত্রাসী প্রাকৃতির লোক নিয়ে এসে আমার কাছে চাঁদা দাবী করতো।

এমনকি দোকান থেকে জোড় পূর্বক মালামাল নিয়ে যেতো টাকা দিতোনা। টাকা চাইলে আমাকে গালমন্দ করতো এবং প্রাণ নাশের হুমকী দিতো। আমি এদের হাত থেকে রক্ষা পেতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

Facebook Comments

Check Also

শাহরাস্তিতে দিনশেষে সিএনজি চালক ইমরানের বাড়ি ফেরা হলোনা

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে দিনভর সিএনজি থ্রি হুইলার চালিয়ে চালক ইমরানের আর বাড়ি …

Shares
vv