ব্রেকিং নিউজঃ
Home / ইলিশের বাড়ি চাঁদপুর / চাঁদপুর শহরে চুরির ঘটনায় চোর সনাক্ত ও মালামাল উদ্ধারে পুলিশের অবহেলার অভিযোগ

চাঁদপুর শহরে চুরির ঘটনায় চোর সনাক্ত ও মালামাল উদ্ধারে পুলিশের অবহেলার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর শহরের প্রেসক্লাব সড়কে দুর্ধর্ষ চুরির ঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবার চোর সনাক্ত এবং চুরি হওয়া মালামাল উদ্বারে চাঁদপুর মডেল থানায় দায়েরকৃত অভিযোগের তদন্তের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার অবহেলায় চোর সনাক্ত ও মালামাল উদ্ধার কাজ অগ্রগতি না হওয়ায় ভুক্তভোগী পরিবারের মাঝে দেখা দিয়েছে হতাশা।

চাঁদপুর মডেল থানায় দায়েরকৃত এক অভিযোগ সূত্রে জানা যায় , গত ১৭ অক্টোবর সকাল ৮ টার দিকে শহরের প্রেসক্লাব সড়কস্থ পৌরসভার ৮৯নং হোল্ডিং বাসায় ২ জন মহিলা ২ টি শিশু বাচ্চা সহ গিয়ে ভিক্ষা খুঁজতে যায় । কিন্তু বাসার বাসিন্দারা কেউ ঘুমে, কেউ ভিতরে থাকায় আসতে দেরী হয়। পরে বাসার বাসিন্দা তাদেরকে ভিক্ষা দিতে এসে দেখেন ভিক্ষুকরা নাই। এরপর দেখেন বাসার লোকজন ব্যবহৃত গ্যালাক্সি এন্ড্রয়েড কালার ৪ টি মোবাইল সেট ও ১ টি অত্যাধুনিক দামী ল্যাপটপ নেই। হারানো এ মালামালের মূল্য প্রায় ২ লাখ টাকা।

এ ঘটনা টের পেয়ে দ্রুত বাসার লোকজন অনেক খোঁজাখুজি করেও তাদের আর খোঁজে পায়নি।
একপর্যায়ে রাস্তায় থাকা সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে উক্ত বাসার বাসিন্দা হাবিবুর রহমান চাঁদপুর থানায় ভিডিও ফুটেজ চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ নাসিম উদ্দিন কে অবহিত করেন। এরপর তিনি ভুক্তভোগী পরিবার কে এ বিষয়ে মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করার জন্য বললে উক্ত ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে মোঃ হাবিবুর রহমান নিজে বাদী হয়ে মডেল থানায় একটি অভিযোগ করেন।

এ অভিযোগ পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ নাসিম উদ্দিন মডেল থানার এস আই আযম কে ঘটনাস্থলে গিয়ে উক্ত ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয়।

নিদের্শনা পেয়ে এস আই আযম ঘটনাস্থলে গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়ে এবং ভিডিও ফুটেজ দেখে চোর সনাক্ত করতে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যদের নিয়ে শহরের ৫ নং বেদে পল্লীতে যান। ঐ বেদে পল্লীর বাসিন্দাদের কে সংগৃহীত ভিডিও ফুটেজ দেখিয়ে এ চুরির কাজে জড়িত ঐ ২ মহিলা কে সনাক্ত করতে সহযোগিতা চান। পরে তাদের সহযোগিতা নিয়ে এবং এলাকার অন্যান্যদের সহযোগিতায় ভিডিও ফুটেজ মতে ৫ নং রেলওয়ে ঘাটের আবুল মিজির বাড়ির ভাড়াটিয়া বলে সনাক্ত করা হয়।

এরপর এস আই আযম উক্ত বাড়ির মালিক আবুল হোসেন মিজি সহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ঐ ২ মহিলা কে সন্দ্ব্যায় চাঁদপুর মডেল থানায় হাজির হতে নির্দেশ দেয়া হয়।

সেই অনুযায়ী ভুক্তভোগী পরিবার বা অভিযোগ দায়ের করা বাদী ও ভিডিও ফুটেজ মতে সন্দেহ ভাজন অভিযুক্তরা গণ্যমান্য ব্যক্তিগতসহ ঐদিন সন্দ্ব্যা থেকে রাত ১০ টা পযর্ন্ত মডেল থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তার জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। এক পযার্য়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা রাত ১০টায় পর উভয় কে পরদিন সকাল ১০ টায় আসতে বলেন।

পরদিন পুনরায় উভয় পক্ষই নিধারিত সময়ে থানায় হাজির হয়। কিন্তু সেই কর্মকর্তার আবারো অনুপস্থিতিতে বিষয়টি পুরো এলোমেলো হয়ে যায়। এ অবস্থায় ভুক্তভোগী পরিবার পুনরায় মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার শরণাপন্ন হলে তিনি ঐ কর্মকর্তাকে দ্রুত এ বিষয়টি ফয়সালার নির্দেশনা দেয়া হলেও ঐ দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তার অবহেলায় এ বিষয়ে হতাশ হয়ে পড়ছেন ভুক্তভোগী পরিবার।

তাই এ বিষয়ে ভুক্তভোগী পরিবার এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

Facebook Comments

Check Also

শাহরাস্তিতে দিনশেষে সিএনজি চালক ইমরানের বাড়ি ফেরা হলোনা

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে দিনভর সিএনজি থ্রি হুইলার চালিয়ে চালক ইমরানের আর বাড়ি …

Shares
vv