ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুর প্রিমিয়ার হাসপাতালের ভূল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু॥ অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা
ফাইল ছবি

চাঁদপুর প্রিমিয়ার হাসপাতালের ভূল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু॥ অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা

চাঁদপুর শহরের হাজী মহসিন রোডস্থ ডাঃ মোবারক হোসেন চৌধুরীর মালিকানাধিন প্রিমিয়ার হাসপাতালে চিকিৎসকের ভুলে রোগির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। পরক্ষনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগী পক্ষের সাথে বিশাল অর্থের বিনিময়ে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়া হয়েছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে ।

জানা গেছে, গত ৫ জুলাই বুধবার বিকেলে চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২ নং চান্দ্রা ইউনিয়নের পাটওয়ারী বাড়ির মৃত শাহাদাতা পাটওয়ারীর মেয়ে ২ সন্তানের জননী সকিনা বেগম (২৫) কে পিত্তথলিতে পাথর অপারেশন করার জন্য শহরের হাজী মহসিন রোডস্থ ডাঃ মোবারক হোসেন চৌধুরীর মালিকানাধিন প্রিমিয়ার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

রাতে ডাঃ মোবারক হোসেন চৌধুরী নিজেই সকিনার পিত্তথলিতে অস্ত্রপাচার করেন। এর কিছু সময়ের পর সকিনা বেগম মারা যায়। সকিনার স্বামী জিয়াউদ্দিন আহমেদ জানান, তার স্ত্রী সুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। চিকিৎসক অস্ত্রপাচার করার সময় পিত্তথলি থেকে পাথর বের করতে গিয়ে পিত্তথলিটি কেটে ফেলে এমন অভিযোগ করেন। পরে তিনি একই কথা উল্লেখ করে চাঁদপুর পুলিশ সুপার শামসুন্নাহারের কাছে বিচার চেয়ে আবেদন করেন। বিষয়টি তদন্তের ভার দেওয়া হয় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন মজুমাদারকে।

আলমগীর হোসেন মজুমদার উপ-পরিদর্শক আহসানুজ্জামান লাবু সহ দুপুরের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শ করেন। রাজশাহীর জিয়াউদ্দিনের সাথে ৮ বছর পূর্বে পারিবারিকভাবে সকিনার বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকে তারা ঢাকায় বসবাস করতো। সকিনার চিকিৎসা করানো ও বাপের বাড়িতে ঈদ উদযাপনের জন্য সকিনা চাঁদপুরে এসেছিল। এই পরিবারের আরো দুই কন্যা হাসপাতালে অস্ত্র পাচারের মাধ্যমে সন্তান জন্ম দিয়েছে। সে সুবাদে সকিনাকে এখানে আনা হয়েছে।

এ ব্যাপারে প্রিমিয়ার হাসপাতালের মালিক ডাঃ মোবারক হোসেন চৌধুরী জানান,এ খানে ওই রোগীর যথানিয়মে চিকিৎসা করা হয়েছে । রোগী পক্ষ প্রথমে ভুল বুঝে অভিযোগ করেছিলো ।পরক্ষণে বিষয়টি বুঝতে পেরে অভিযোগ প্রত্যাহার করে নেন ।

চাঁদপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসেন মজুমাদার জানান, সকিনার স্বামী জিয়াউদ্দিন আহমেদ পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ দিয়েছে ।তার স্ত্রীকে প্রিমিয়াম হাসপাতাল ভুল চিকিৎসায় মেরে ফেলেছে । উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমি সরজমিনে তদন্ত করতে হাসপাতালে যাই । পরক্ষনে জানতে পারি বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে রোগী পক্ষের মিমাংসা হয়ে গেছে।

Facebook Comments

Check Also

কচুয়ায় ৭ বছরের শিশুকে ললিপপের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ, থানায় মামলা

মোঃ রাছেল : কচুয়ায় বাড়ির সম্পর্কীয় দাদা কর্তৃক দ্বিতীয় শ্রেনীতে পড়ুয়া শিক্ষার্থী (মি) (৭) ধর্ষণের …

vv