ব্রেকিং নিউজঃ
Home / টকশো / চাঁদপুর পৌর ৮নং ওয়ার্ডে প্রচারনায় এগিয়ে ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকের প্রার্থী হেলাল

চাঁদপুর পৌর ৮নং ওয়ার্ডে প্রচারনায় এগিয়ে ব্ল্যাকবোর্ড প্রতীকের প্রার্থী হেলাল

অমরেশ দত্ত জয় : চাঁদপুর পৌর ৮নং ওয়ার্ডে প্রচার-প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি’র আস্থাভাজন ব্ল্যাকবোর্ড মার্কার কাউন্সিলর পদপ্রার্থী অ্যাড. মো. হেলাল হোসাইন। ভোট চাইতে ওয়ার্ডের ভোটারদের দ্বারে দ্বারে তিনি ছুটছেন। গণসংযোগ, পথসভা ও আলাপচারিতায় ভোটারদের থেকে তিনি ভোটের মাধ্যমে সমর্থণ ও সহযোগিতা প্রার্থণা করছেন।
খোঁজ-খবর নিয়ে জানা যায়, হেলাল হোসাইনের পিতা হচ্ছেন মৃত আলহাজ্ব মোহাম্মদ বশরত উল্লাহ মুন্সী এবং মাতা হচ্ছেন মৃত মোসাম্মাৎ আনোয়ারা বেগম। ওই পরিবারে ৭ ছেলে ও ৫ মেয়ের মধ্যে হেলাল হোসাইন ৮ নাম্বার। তার জন্ম ১৯৭৫ সালের পহেলা জানুয়ারি।
ব্ল্যাকবোর্ড মার্কার প্রার্থী হেলাল হোসাইন সম্পর্কে খবর নিয়ে আরো জানা যায়, চাঁদপুর সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক এই হেলাল হোসাইন। পরে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতির দায়িত্বও সামলিয়েছেন। শুধু রাজনৈতিক অঙ্গণেই নয়। হেলাল হোসাইন নিজেকে জড়িত করেছেন বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনেও।
স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানা যায়, হেলাল হোসাইন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য, চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্টের আজীবন সদস্য, কিতাব উদ্দিন জামে মসজিদ উন্নয়ন কমিটির সদস্য, পীর বাদশা জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি, রেলওয়ে হকার্স মার্কেট জামে মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি, নৃতাঙ্গণ সাংস্কৃতিক সংগঠনের সহ-সভাপতি সহ নানান সামাজিক সংগঠনে সম্পৃক্ত থেকে তিনি জনসেবা চালিয়ে যাচ্ছেন।
পৌর ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দাদের সাথে আলাপ করলে তারা জানান, করোনার ক্রান্তিকালে হেলাল হোসাইন তার ওয়ার্ডবাসীর জন্য চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ, ময়দাসহ নানান খাদ্য সামগ্রীর ব্যবস্থা করেছেন। তাই তাকে নির্বাচিত করে এলাকার রাস্তা-ঘাটের উন্নয়ন, পানি নিষ্কাশনের সু-ব্যাবস্থা, পাবলিক টয়লেট নির্মাণসহ নানাবিধ কর্মকান্ড সম্পন্ন করতে চাইছি।
এদিকে বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, হেলাল হোসাইন শুধু রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের দিক দিয়েই প্রতিষ্ঠিত নয়। তিনি শিক্ষাগত যোগ্যতায়ও পিছিয়ে নেই। তিনি একাধারে বি.কম (অনার্স), এম.কম. এবং এল. এল. বি. ডিগ্রী অর্জন করেছেন।
২০শে সেপ্টেম্বর রবিবার এক সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য নিশ্চিত করে অ্যাড. মো. হেলাল হোসাইন জানান, মাদক, ইভটেজিং ও বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের উদ্দেশ্য নিয়ে নির্বাচনে ১ম বারের মতো আমি প্রার্থী হয়েছি। এই ওয়ার্ডটিতে ৯ হাজারের অধিক ভোটার রয়েছেন। ৩টি স্কুলের মোট ৫ কেন্দ্রে ভোটাররা ইভএময়ে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। সেক্ষেত্রে তাদের কাছে আমার কোন আশ্বাস বা ওয়াদা নেই। যদি তারা মনে করেন আমাকে দিয়ে তাদের ও সমাজের অসমাপ্ত উন্নয়নকে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব। তাহলে আমাকে যোগ্য মনে হলে ব্ল্যাক বোর্ড মার্কায় ভোট দিয়ে তাদের সেবক হওয়ার তারা সুযোগ দিবেন বলে প্রত্যাশা করছি।
Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী ফেরদৌসী জনসমর্থণে এগিয়ে

অমরেশ দত্ত জয় : চাঁদপুর পৌরসভার ১,২ ও ৩নং ওয়ার্ডে জনসমর্থণে এগিয়ে রয়েছেন আ’লীগের মনোনীত …

vv