ব্রেকিং নিউজঃ
Home / টকশো / চাঁদপুর পৌর ১২নং ওয়ার্ডবাসী পুনরায় হাবিবুর রহমানকে কাউন্সিলর দেখতে চায়

চাঁদপুর পৌর ১২নং ওয়ার্ডবাসী পুনরায় হাবিবুর রহমানকে কাউন্সিলর দেখতে চায়

অমরেশ দত্ত জয় : চাঁদপুরের জনগুরুত্বপূর্ণ পৌর ১২ নং ওয়ার্ডে মোঃ হাবিবুর রহমানকেই পুনরায় কাউন্সিলর হিসেবে পেতে চায় স্থানীয় ওয়ার্ডবাসী।

২০ জানুয়ারি সোমবার ওই ওয়ার্ডে গেলে স্থানীয়রা তার ব্যপারে এসব কথা জানান।

স্থানীয়রা জানান,২০১৫ সালের ২১ শে মার্চ পৌর নির্বাচনে বিপুল ভোটে হাবিব ভাইকে বিজয়ী করে কাউন্সিলর নির্বাচন করা হয়।আর এরপরই তিনি ওয়ার্ডবাসীকে সাথে নিয়ে একের পর এক উন্নয়ন কর্মকান্ড চালিয়ে যেতে থাকেন।

স্থানীয়রা আরো জানায়, তিনি নির্বাচিত হয়ে গাজী বাড়ি সড়ক,নাজির পাড়ার আর্শাদ কমিশনার বাড়ি হতে রুহুল আমিনের রাস্তার সংস্কার,বিপুনীবাগ বাজারের রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ,নাজিরপাড়া শৈয়াল বাড়ী রাস্তা পুনঃনির্মাণ,মিজান মিজির বাড়ীর পাশের বঙ্গবন্ধু সড়ক রাস্তার ড্রেন পুনঃনির্মাণ,মিজিবাড়ী হতে পাটওয়ারী বাড়ী সড়ক নির্মাণ,জিটি রোডের ড্রেণ পুনঃনির্মাণ,তহশিলদার বাড়ীর রাস্তা পুনঃনির্মাণ সহ বহু রাস্তার সংস্কার কাজ করিয়েছেন।

জানা যায়,ঐতিহ্যবাহী চাঁদপুর পৌরসভার ১২নং ওয়ার্ডে প্রায় সাড়ে ১০ হাজার ভোটারের এলাকায় মোট ৩ কেন্দ্রে ভোট হয়।এতে আওয়ামীলীগের হয়ে নির্বাচনে অংশ নিয়ে তীব্র প্রতিদ্বন্দীতাপূর্ণ ভোটে মোঃ হাবিবুর রহমান দর্জি কাউন্সিলর হিসেবে জয়ী হন। এরপর ২০ শে এপ্রিল শপথ গ্রহনের মাধ্যমে দায়িত্ব পেয়ে জনসেবা শুরু করেন।

পৌর ১২ নং ওয়ার্ডের প্রবীণ বেশ কয়েকজন আওয়ামীলীগ নেতা জানান,মোঃ হাবিবুর রহমান দর্জির মাধ্যমে এখন পর্যন্ত প্রায় ৬০ জন নারী দুদ্ধজাত ভাতা পেয়েছেন। এছাড়াও প্রায় অর্ধশত  নারী পেয়েছেন বিধবা ও বয়ষ্ক ভাতা। অনেক অসচ্ছল পুরুষও বিভিন্নভাবে প্রতিনিয়ত সাহায্য সহযোগিতা নিয়ে উপকৃত হচ্ছেন। তার মাধ্যমে এই ওয়ার্ডের অলিতে গলিয়ে স্ট্রিট লাইট স্থাপিত হয়েছে।

ওই ওয়ার্ডের কয়েকজন সমাজিক সংগঠকের নেতৃবৃন্দের সাথে আলাপ করে জানা যায়,এই ওয়ার্ডের প্রায় বেশিরভাগ মানুষই মোঃ হাবিবুর রহমান দর্জির জনসেবা পেয়ে অত্যান্ত আনন্দিত। তিনি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তার নিজস্ব অফিসে সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত অফিস করেন। তার কাছে আসা মানুষের জনদূর্ভোগ ও সমস্যা শুনেন এবং তা বিভিন্নভাবে সমাধানের চেষ্টা করেন।তার ওয়ার্ডের হিন্দু-মুসলমান সহ সবার কাছেই তিনি অসাম্প্রদায়িক মনমানসিকতার জন্যও বেশ পরিচিত ও ক্লিন ইমেজের সজ্জন ব্যক্তিত্ব।সকলকে নিয়েই তিনি এই ওয়ার্ডে মাদক,জঙ্গীবাদ,বাল্যবিবাহ ও সন্ত্রাস দমনে কঠোর ভূমিকা পালন করছেন।

স্থানীয় গণ্যমান্য কয়েকজন ব্যাক্তি জানান,আলহাজ্ব আব্দুল গণি দর্জি ও মোসাম্মৎ ফিরোজা বেগমের ৪ ছেলে ও ১ মেয়ে সহ মোট ৫ সন্তানের মধ্যে হাবিব বড়।১৯৬৭ সালের পহেলা জানুয়ারি হাবিবের জন্ম। ওরা এই এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা।তাদের পরিবারের সবাই আওয়ামীলীগের রাজনীতির জড়িত। হাবিব নিজেও ছাত্র বয়স থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলো। বর্তমানে হাবিবের ট্রান্সপোর্ট ব্যবসাসহ স্ত্রীসহ ১ ছেলে ও ১ কন্যা সন্তান রয়েছে।

এদিকে মোঃ হাবিবুর রহমান দর্জির সাথে আলাপ হলে তিনি জানান, সকলের ইচ্ছায় ও আল্লাহর ভরসায় আমি এই ওয়ার্ডের উন্নয়নের কাজকে আরো এগিয়ে নিতে এবারো পৌর নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে প্রার্থীতা করবো। তাই আমি যাতে এই ওয়ার্ডের মানুষকে আল্লাহর দয়ায় সেবা দিতে পারি।সে ব্যপারে সকলের দোয়া,সমর্থণ ও সহযোগিতা কামনা করছি।

এদিকে ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ হাবিবুর রহমান দর্জি সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিনি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি পদের দায়িত্ব পালন ছাড়াও ৬২ নং গুনরাজদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য,১২ নং ওয়ার্ড কমিউনিটি কমিউনিটি পুলিশিংয়ের অঞ্চল ১২ এর প্রধান উপদেষ্টা,বাইতুল নূর জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি সহ একজন সফল ব্যবসায়ী ও ক্রিড়ানোরাগী এবং সামাজিক বিভিন্ন সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে সুনামের সহিত মানুষের সেবা করে চলেছেন।

তাই মোঃ হাবিবুর রহমান দর্জির মতো এমন একজন সামাজিক মানুষকেই আগামী পৌর নির্বাচনে ভোট দিয়ে এই ১২নং ওয়ার্ডের মানুষ পুনরায় কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত করবেন বলে গুঞ্জন শুনা যাচ্ছে।

Facebook Comments

Check Also

রাছেলকে সাপ্তাহিক শপথ’র টিশার্ট ও ক্যালেন্ডার উপহার

চাঁদপুরের সাপ্তাহিক শপথ পত্রিকার লোগো সম্বলিত টিশার্ট ও ক্যালেন্ডার উপহার পেলো পত্রিকার স্টাফ রির্পোটার কচুয়া …

vv