ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২’র ভবন উদ্বোধনের পূর্বেই দেওয়ালে ধস

চাঁদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২’র ভবন উদ্বোধনের পূর্বেই দেওয়ালে ধস

নিজস্ব প্রতিনিধি : চাঁদপুর সদর উপজেলার ২নং আশিকাটি ইউনিয়নের পেন্নাই সড়ক কালীভাংতি এলাকায় পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২ ভবন নির্মাণের কাজ শেষ হওয়ার পর উদ্বোধনের পূর্বেই বাউন্ডারি দেওয়ালে ফাটল ও হেলে পরেছে।

ভবন নির্মাণের শুরুতেই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক দুর্নীতি করেছে বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।
সিডিউল অনুযায়ী গত ২০২০ সালে ডিসেম্বর মাসে ভবন নির্মাণের কাজ শেষ করে বুঝিয়ে দেওয়ার কথা থাকলেও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সে সময়ে কাজ না করে সময় অতিবাহিত করে ২০২১ সালে শুরুতে তড়িঘড়ি করে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পাঁচটি ভবন ও বাউন্ডারি দেওয়াল নির্মাণ কাজ করেছে।

বর্ষার সময় কাদা পানির মধ্য দিয়ে ভবনে চারপাশের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ করেছে। এসময় ফাউন্ডেশন এর গভীরতা কম দিয়ে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে কাজটি করায় অতি দ্রুত উদ্বোধনের পূর্বেই দেওয়ালে ফাটল সৃষ্টি হয়েছে।

চট্টগ্রামের ইবিএল (জেবি)ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের মালিক শাহজাহান ১৮ কোটি টাকা ব্যয় পল্লী বিদ্যুতের ভবনের কাজটি করেন।
ঠিকাদার প্রতিনিধি স্থানীয় এলাকার কিছু দালাল চক্রদের সাথে সম্পর্ক করে ও পল্লী বিদ্যুতের অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে নিম্নমানের ইট পাথর ও নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে ভবন নির্মাণের কাজ তড়িঘড়ি করে শেষ করে।

পল্লী বিদ্যুতের এই অনিয়ম ও দূর্নীতির মধ্য দিয়ে ভবন নির্মাণের কাজ করার সময় স্থানীয় এলাকাবাসী বেশ কয়েকবার বাধা দিলে তাদের সাথে বাক-বিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। এসময় বেশ কয়েকবার কাজ বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী নেতৃবৃন্দুর হস্তক্ষেপে সন্ত্রাসীদের পাহারায় রেখে ভবন নির্মাণের কাজ করে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, পল্লী বিদ্যুতের কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে করে এই অনিয়ম ও দূর্নীতির মধ্য দিয়ে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ২ এর ভবন নির্মাণে ১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কাজটি করেন এই অসাধু ঠিকাদার।
ভবনটি তড়িঘড়ি করে করার কারণে ও সীমানাপ্রাচীরের দেওয়ালের ফাউন্ডেশন কম দেওয়ার কারণে উদ্বোধনের পূর্বে পল্লী বিদ্যুতের চারপাশের সীমানাপ্রাচীরের দেওয়াল ফেটে হেলে গেছে।

পল্লী বিদ্যুতের দেওয়াল হেলে যাওয়ায় ‌সিমানা প্রাচীর এর পাশে বালু উঠিয়ে রাখা হয়। বর্ষার পানিতে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই পল্লী বিদ্যুতের সীমানা প্রাচীর ভেঙে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পল্লী বিদ্যুতের নির্বাহী প্রকৌশলী ও আসাদু কিছু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে ঠিকাদার ভবন ও দেওয়ালের নিম্নমানের কাজটি করেছে।

অতি দ্রুত অসাধু ঠিকাদার ও এর সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবী জানান সচেতন মহল।

পল্লী বিদ্যুতের নির্বাহী প্রকৌশলী ইদ্রিস আলী জানান, পল্লী বিদ্যুতের ১৮ কোটি টাকা ব্যয় ১৫৩ শতাংশ সম্পত্তির উপর পাঁচটি ভবন নির্মাণ করার কাজটি করেন চট্টগ্রামের ঠিকাদার শাহজাহান। দেওয়াল হেলে যাওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে তাদেরকে বলা হয়েছে তারা করে দিবে বলে আশ্বস্ত করেছেন।

কাজ করার সময় পল্লী বিদ্যুতের লোক উপস্থিত থেকে কাজটি তদারকি করেছেন।
পল্লী বিদ্যুতের ভবনটি এখন আর উদ্বোধন করা হয়নি অল্প সময়ে তা উদ্বোধন করা হবে।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে শুক্রবার নতুন করে ১০ জনের করোনা পজেটিভ

মাসুদ হোসেন : চাঁদপুরে নতুন করে ১০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। সনাক্তের হার ৮.৭০%। শুক্রবার …

Shares
vv