ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুর তরপুরচন্ডীতে মাহফিলকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা, পুলিশ মোতায়েন

চাঁদপুর তরপুরচন্ডীতে মাহফিলকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা, পুলিশ মোতায়েন

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুরে ইত্তেবায়ে সুন্নাহ মাদ্রাসা ও মসজিদ কমপ্লেক্সে মাহফিলকে কেন্দ্র করে দু’দল মুসল্লির মাঝে হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
১৫ নভেম্বর শুক্রবার শহরের বিটিরোডস্থ মধ্য তরপুরচন্ডীর ১নং ওয়ার্ডস্থ রাবেয়া কলোনীতে জুমার নামাজের পর এ ঘটনা ঘটে বলে পুলিশ জানায়। এদিকে ইত্তেবায়ে সুন্নাহ মাদ্রাসা ও মসজিদ কমপ্লেক্সের সভাপতি আতাউল্লাহ শরীফ, সাধারণ সম্পাদক হোসাইন মোহাম্মদ রাছেল,কোষাধক্ষ্য মাহফুজুর রহমান ভুলু সহ আরো কয়েকজন জানান,দুপুরে আমরা কয়েক’শ ধর্মপ্রাণ মুসল্লি সমাজ ও আলেম সমাজ একত্রে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করে বের হচ্ছিলাম।
এমন সময় আখন্দ বাড়ী জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল উশৃংখল লোক স্থানীয় বিভিন্ন মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে আসা মুসল্লিদের মাঝে ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে উস্কানী ছড়ায়। তখন তারা আমাদের এই মসজিদের দিকে কিছু অতিউৎসাহী উশৃংখল লোকসহ অগ্রসর হয় এবং হামলা চালায়।হামলায় মসজিদ প্রাঙ্গণের সামনে নির্মিত গেইট ভাঙ্গচুর ও মসজিদে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের মাধ্যমে এলাকায় একটা উত্তেজনা অবস্থা সৃষ্টি করে।আমরা এমন অবস্থা দেখে স্থানীয় সচেতনমহল ও সাহসী মুসল্লিদের সহযোগিতায় প্রসাশনকে বিষয়টি অবহিত করলে তারা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
এ ব্যপারে ওই আখন্দ বাড়ী জামে মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান,ওরা কুরআন হাদিস ব্যাতীত হানাফি মাজহাব অনুসরনকারীদের মুশরিক বলে। শুধু তাই নয় এরা সমাজের মুসল্লিদের শান্তি বিনষ্টে ব্যতিক্রম আমল করে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে আরো জানান, ওরা বলে ওদের মতো ছাড়া অন্য যারা নামাজ আদায় করে তাদের নামজ হয়না। তাই একমাত্র ওরা ছাড়া আর কেউ সহি আকিদার লোক হতে পারেনা। সমাজে এই রকম ফেতনা ছড়ানোর অভিযোগে জুমার নামাজের শেষে দিঘিরপাড় এলাকার বাইতুল জান্নাত জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব হাফেজ মাওলানা মুফতী তলিবুল্লা সাহেব সহ এলাকার মুসল্লি সমাজ তাদের বিকালের মাহফিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছে।পরে পুলিশের কথায় আমরা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ শেষে সবাইকে সরিয়ে নিয়ে আসি।
এ ব্যপারে চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (চাঁদপুর সদর সার্কেল) জাহেদ পারভেজ চৌধুরী জানান, বিকালে ওখানে বিতর্কিত বক্তা দিয়ে মাহফিল করার কথা শুনে একরকম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এমন খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার ব্যবস্থা করি। এলাকার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে ওই মসজিদের বিকালের মাহফিল বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেই। সেখানে দু’পক্ষকে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পরামর্শ দিয়েছি। আপাতত সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
এদিকে এ ঘটনার সুষ্ঠু সমাধানের ব্যপারে আশ্বাস দিয়ে তরপুরচন্ডী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ১নং ইউপি সদস্য আরশাদ মোল্লা জানান, ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের মসজিদের হামলা করার ঘটনাটি লোকমুখে শুনেছি। স্থানীয় চেয়ারম্যান মহোদয়ের সাথে আলাপ করে এ ব্যপারে সুষ্ঠু সমাধানের ব্যবস্থা করবো ইনশাআল্লাহ।
Facebook Comments

Check Also

শাহরাস্তিতে হার্ডওয়ার দোকান ভষ্মিভূত

মোঃ মাসুদ রানা, শাহরাস্তি : শাহরাস্তিতে লতিফ হার্ডওয়ার নামে এক দোকান আগুনে ভষ্মিভূত হয়েছে। এতে প্রায় …

vv