ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুরে হেলে পড়া সেই ভবনটি সোয়া ১ কোটি টাকায় বিক্রির সিদ্বান্ত!

চাঁদপুরে হেলে পড়া সেই ভবনটি সোয়া ১ কোটি টাকায় বিক্রির সিদ্বান্ত!

বিশেষ প্রতিনিধি : চাঁদপুরে বহুতল ভবন( ১০তালা) নির্মানাধীন কাজের অনিয়মের ফলে ৫তলা বিশিস্ট একটি ভবন হেলে যায় ও বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেওয়ার ফলে নির্মানাধীন ভবন মালিককে জরিমানা না আর গুনতে হলো না! সেই হেলে যাওয়া ও ফাটল দেখা দেওয়া ভবনটি সোয়া ১ কোটিতে বিক্রির সিদ্বান্তে উপনীত হয়েছে বলে পৌর কর্তৃপক্ষ থেকে এ বিষয়ে অবগত হওয়া গেছে।

চাঁদপুরে যথাযথ কর্তৃপক্ষের তদারকি ছাড়া ও তাদের অনুপস্থিতে ঠিকাদার দিয়ে নিজেদের ইচ্ছা মত ভেকু দিয়ে বহুতল ভবনের মাটি খনন করায় শহরের বিষ্ণুদী মাদ্রাসা রোডের বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশিদ খানের মালিকানাধিন নাহার ভবনের (৫তলা) ফাটল দেখা দেয়। ভবনটি হেলে পড়ার আতংকে বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়ারা আশপাশের ভবনের বাসিন্দারা অন্যত্র মালামাল নিয়ে সরে যায়।

ঘটনাটি ঘটেছে,গত ২১ ও ২২ মার্চ রাতে ও দুপুরে চাঁদপুর শহরের বিষ্ণুদী মাদ্রাসা রোড এলাকার জনবহুল আবাসিক এলাকার মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশিদ খানের মালিকানাধিন নাহার ভবনে।

এ খবর পেয়ে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র মো. জিল্লুর রহমান জুয়েল, পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী এএইচ শামসুদ্দৌহা, জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মেহেদী হাসান মানিক, চাঁদপুর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ আবদুর রশিদ, চাঁদপুর গনপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী তন্ময় ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এ ঘটনায় তাৎক্ষনিক মাটি খনন করার ভেকুটি জব্দ করে, চাঁদপুর পৌর সভা ও জেলা প্রশাসন। চাঁদপুর পৌসভার মেয়রের নিদের্শে পৌর কর্তৃপক্ষ মাটি খনন কাজ বন্ধ করে দেয় । হেলে যাওয়ায় ও ফাটল দেওয়া ভবনটি পরিত্যাক্ত ঘোষনা করা হয়। এ ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে উত্তেজনা ও চাপা ক্ষোভ বিরাজ করায় চাঁদপুর পৌরসভায় মেয়র এডভোকেট মোঃ জিল্লুর রহমান জুয়েলের হস্তক্ষেপে এ ভয়াবহ সমস্যাটি সমাধান হয়। ব্যাপক আলোচনার ফলে বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশিদ খানের মালিকানাধীন নাহার ভবনটি অবশেষে সোয়া ১ কোটি টাকায় বিক্রির সিদ্বান্তে উপনীত হয়েছে।

জানাযায়, মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশিদ খানের মালিকানাধিন ২ শতক জমির উপর ৫ তলা বিশিষ্ট নাহার ভবনটি নূর মোহাম্মদ দর্জি ১ কোটি ৫ লক্ষ টাকা দাম হাকান। আর বাড়িটির মালিক মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশিদ খানের ছেলে জসিম উদ্দিন ১ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা বলেন। এ নিয়ে কয়েকদিন দু’পক্ষের মধ্যে দরকষাকষি চলছিল।

গত রোববার (২১ মার্চ) রাত ১১টার দিকে নূর মোহাম্মদ দর্জির ১০ শতাংশ জায়গার উপর ভেকু দিয়ে ১০ ফিট মাটি খনন করার কাজ চলছিল। হঠাৎ পাশের ৫তলা বিশিষ্ট নাহার ভবনটি কাত হয়ে ও বিভিন্ন অংশে ফাটল দেখা দেয়। এতে করে দরকষাকষিতে ১কোটি ৫ লক্ষ টাকায় থেমে যায়। আজ মঙ্গলবার পৌর মেয়রের কার্যালয়ে উভয়পক্ষের উপস্থিতিতে ১ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা নির্ধারণ করে উপনীত হয় এবং আগামী (২৯ মার্চ) সোমবারের মধ্যে জমিটি রেজিষ্ট্রি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। নতুন ভবনের নকশা পুনরায় করার জন্য পৌরসভার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, চাঁদপুর শহরের বিষ্ণুদী মাদ্রাসা রোডে ভেকু দিয়ে মাটি খনন করায় মুক্তিযোদ্ধা হাজী আব্দুর রশিদ খানের মালিকানাধিন নাহার ভবনের (হোল্ডিং-০০৬৭) কাত হয়ে ও ফাটল দেখা দেয়ায় আতংকের সৃষ্টি হয়। এই খবর শুনে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। সোমবার দুপুর ১২টায় সড়ক থেকে ভবন দেবে যাচ্ছে বলে চিৎকার করলে ভবনে থাকা লোকজন দ্রুত বেরিয়ে আসেন এবং মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যায় এলাকার বাসী।

Facebook Comments

Check Also

মেজর অব. রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম এমপি’র ঈদ শুভেচ্ছা

সাইফুল ইসলাম সিফাত : পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) নির্বাচনী এলাকাসহ চাঁদপুরবাসিকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন …

Shares
vv