ব্রেকিং নিউজঃ
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / চাঁদপুরে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক ছাড়াই চলাচল করছে মানুষ

চাঁদপুরে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক ছাড়াই চলাচল করছে মানুষ

মাসুদ হোসেন : চাঁদপুর জেলা জুড়ে সব খুলে দেয়ায় আগের মতোই চলা ফেরা শুরু করেছে সবাই, সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে না অনেকেই। সেইসাথে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি নিয়েই ঘরের বাইরে মাস্ক ছাড়াই ঘোরা ফেরাসহ চলাফেরা করছেন অনেকে।

চাঁদপুর জেলা শহরসহ বিভিন্ন উপজেলার গ্রামাঞ্চলের আঞ্চলিক সড়কে এসব চিত্র দেখা গেছে।

জানা যায়, গত ৩০মে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পক্ষ থেকে এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সংক্রমন প্রতিরোধ আইন ২০১৮ অনুযায়ী, ঘরের বাইরে চলাচলের ক্ষেত্রে সবসময় মাস্ক পরিধানসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। তা না হলে সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮ এর ধারা ২৪ (১), (২) ও ধারা ২৫ (১) ও (২) অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর এই আইন বাস্তবায়ন করবে জেলা-উপজেলা প্রশাসন ও যথাযথ কর্তৃপক্ষ।

আইনের এই ধারা অনুযায়ী কেউ মাস্ক না পড়ে বের হলে ৬ মাস জেল অথবা এক লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। এছাড়া কেউ যদি এই নির্দেশনা বাস্তবায়নে বাধা প্রদান বা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেন তাহলে তিন মাসের জেল এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন। মাস্ক না পরার কারণ জানতে চাইলে ওইসব ব্যক্তি শোনাচ্ছেন নানা অজুহাত।

শুক্রবার চাঁদপুর পৌর শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায় বিপুল সংখ্যক মানুষ মাস্ক না পরেই চলাচল করছেন। বাজার করে ফেরা মুখে মাস্ক না পরা একজনের সঙ্গে কথা বললে তিনি বলেন, বাড়ী থেকে তাড়াহুড়া করে বাজার করতে এসেছি, তাই বাসায় মাস্ক ফেলে এসেছি।

চাঁদপুর সদর উপজেলার মহামায়া বাসস্টান্ড এলাকায় মাস্ক না পরে চলাচলকারী এক ব্যক্তি বলেন, ফাঁকা জায়গায় চলাচল করলে মাস্ক পড়ি না এবং লোকসমাগমে গেলে পড়ি। এ এলাকায় আরেকজন পথচারী বলেন, আমার কাছে পকেটে মাস্ক আছে। মাস্ক পরলে দম পালাতে সমস্যা হচ্ছে।

চাঁদপুরের বিভিন্ন উপজেলার কয়েকটি এলাকা ঘুরে একই চিত্র দেখে যায়। বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলের অনেক অশিক্ষিত কিংবা বৃদ্ধরাই এ কাজটি করে থাকে। অনেক যুবক মাস্ক পড়লেও মুখের নিচেই নামিয়ে রেখে দেন।

এদিকে শুক্রবার (২৬ জুন) পর্যন্ত চাঁদপুর জেলা জুড়ে সাড়ে ৭ শতাধিক করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। মৃতের সংখ্যা ৫০ জনে। চাঁদপুর জেলায় বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত ৭৫১ জনের উপজেলা ভিত্তিক পরিসংখ্যান হলো : চাঁদপুর সদরে ৩০১, ফরিদগঞ্জে ৭২, মতলব উত্তরে ৪৬, হাজীগঞ্জে ৭৭ জন, মতলব দক্ষিণে ৭৯ জন, কচুয়ায় ৩১ জন, হাইমচরে ৫২ ও শাহরাস্তিতে ৯৩ জন।

এত মানুষের আক্রান্তে অন্যদের মাঝেও ছড়িয়ে পড়ার আশংখ্যা নিয়ে সচেতনরা দাবী করছে প্রশাসনের কঠোর নজরদারি। অথবা এলাকা ভিত্তিক একটি স্বেচ্ছাসেবী কমিটি গঠন করে এর ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

Facebook Comments

Check Also

শাহরাস্তিতে করোনায় ৪ চেয়ারম্যান আক্রান্ত

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে ৪ জন ইউপি চেয়ারম্যান আক্রান্ত …

vv