ব্রেকিং নিউজঃ
Home / অপরাধ / চাঁদপুরে সালিশির নামে জেলেকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন

চাঁদপুরে সালিশির নামে জেলেকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯ নং বালিয়া ইউনিয়নে মাছ চুরির অপবাদ দিয়ে নুরু পাটোয়ারী নামে এক জেলেকে চাঁদার দাবিতে আটকে রেখে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে।

বালিয়া ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড ব্রাহ্মণ সাকুয়া গ্রামের আই পি এম সমবায় সমিতির সামনে গাছের সাথে বেঁধে রেখে অসহায় জেলেকে নির্যাতন করা হয়েছে। এই ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড আলতাফ মুন্সীর ছেলে লম্পট টেলু মুন্সি ও তার সহযোগী কবির এলাকার অসহায় হতদরিদ্র মানুষের কাছ থেকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন সময় চাঁদা আদায় করার অভিযোগ উঠেছে।

এই এলাকায় কোন সমস্যা হলেই সেখানে তারা দলবল নিয়ে গিয়ে অবস্থান করে সমস্যা সমাধান করার নামে রমরমা সালিশি বাণিজ্য করে আসছে।

গত সোমবার বিকালে চাপিলা গ্রামের মোস্তফা পাটোয়ারীর ছেলে জেলে নুরু পাটোয়ারীকে এলাকার ধান্দাবাজ টেলু মুন্সী ও তার সহযোগী কবির মোটরসাইকেল নিয়ে এসে তুলে নিয়ে যায়। বিকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত ২৪ হাজার টাকা চাঁদার দাবিতে জেলে নুরুকে ব্রাহ্মণ সাকুয়া আইপিএম সমবায় সমিতির সামনে গাছের সাথে বেঁধে রেখে নির্যাতন করে।

এ সময় নুনুর মা হাসিনা বেগম ছেলেকে ছাড়াতে গেলে লম্পট টেলু মুন্সি তাকে অশ্লীল ভাষায় গালমন্দ করে ও মায়ের সামনে ছেলের উপর শারীরিক নির্যাতন চালায়। পরে তাদের দাবিকৃত ২৪০০০ টাকা দেওয়ার কথা বলে সেখান থেকে নুরু ছাড়া পায়।

এই ঘটনায় জেলে নুরু জানায়, সাবদি গ্রামের উজির আলী বেপারী বাড়ির খাজা আহমেদ বেপারীর মেয়ে নাছিমা বেগম ওরফে সিরোতাজ দীর্ঘ বছর যাবত চাপিলা গ্রামে ২ একর সম্পত্তির উপর মাছের জিল ইজারা নিয়ে মৎস্য চাষ করে আসছে। কিছুদিন পূর্বে তার ঝিল থেকে কিছু দুর্বৃত্তরা মাছ চুরি করে নিয়ে যায়। এতে করে নারী মৎস্য চাষী সিরোতাজ বেগম প্রায় ৩০/৪০ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে।

এলাকার সালিশি নুরু মুন্সি ও তার সহযোগীরা সেই মাছ চুরির অপবাদ দিয়ে মৎস্য চাষী সিরোতাজ বেগমের কাছে নিয়ে যায়। কিন্তু তিনি ঘটনা জেনে আমাকে মাফ করে দিলেও ওই দুই সালিশী টেলু মুন্সি ও কবির সমস্যা সমাধান করে দিয়েছে বলে আমার কাছ থেকে ২৪ হাজার টাকা দাবি করে।

এর পূর্বে তাদেরকে ১৩ হাজার টাকা দেওয়া হলেও এই টাকার কথা মানুষদের বলার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে তারা ঘটনার দিন মোটরসাইকেল নিয়ে এসে আমাকে তুলে নিয়ে শারিরিক লাঞ্চিত করে ও ২৪ হাজার টাকা দাবি করে। অবশেষে সেই টাকা পরিশোধ করে দেওয়ার কথা বলার পর তারা রাতে ছেড়ে দেয়।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানায়, বালিয়া ইউনিয়ন এর লম্পট টেলু মুন্সী ও কবির অসহায় মানুষদের চাপ প্রয়োগ করে বিভিন্ন সময় চাঁদা দাবি করে আসছে। চাপিলা গ্রামের হারুন পাটোয়ারীর ছেলের রেজ্জাক পাটোয়ারী স্ত্রীর সাথে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করার ঘটনায় টেলু মুন্সি তাদের কাছ থেকে তিন লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়।

এছাড়া এলাকার যে কোনো ঘটনা ঘটলে তারা সেখানে গিয়ে চাঁদাবাজি করে আসছে। এলাকার এই ধান্দাবাজ ও চাঁদাবাজ টেলু, কবিরের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানায় সচেতন মহল।

Facebook Comments

Check Also

ফরিদগঞ্জে মাদক ব্যবসায়ী বাবা-ছেলে আটক

এস.এম ইকবাল : ফরিদগঞ্জ পুলিশের পৃথক পৃথক অভিযান পরিচালনা করে বাবা-ছেলেসহ তিন মাদক ব্যবসায়ীকে ২১শ’৪৫ পিস …

vv