ব্রেকিং নিউজঃ
Home / ধর্ম / চাঁদপুরে মাদ্রাসায় বলাৎকার ও নির্যাতনের অভিযোগে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ

চাঁদপুরে মাদ্রাসায় বলাৎকার ও নির্যাতনের অভিযোগে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর শহরে মাদ্রাসা ও এতিমখানায় ছাত্রদের উপর অমানুষিক নির্যাতন এবং এক ছাত্রকে বলাৎকারের প্রতিবাদে মাদ্রাসার ছাত্ররা বিক্ষোভ করেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে ২ অক্টোবর বুধবার দুপুরে চৌধুরীঘাট এলাকায় অবস্থিত (তাজমহল বোডিং সংলগ্ন) কোরআনিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসায় । ঘটনার পর তাৎক্ষণিক চাঁদপুুর মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ যাওয়ার পূর্বে অভিযুক্ত শিক্ষক আঃ খালেক মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে যায়। বর্তমানে ঘটনাস্থলে পুলিশি পাহারায় রয়েছে মাদ্রাসার ছাত্ররা।

জানা যায়, চাঁদপুর শহরের চৌধুরী মসজিদের পশ্চিম পাশে তাজমহল বোডিংয়ের সাথে কোরআনিয়া হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিমখানার শিক্ষক আব্দুল খালেক কর্তৃক মাদ্রাসা ছাত্রদের পর্যায়ক্রমে বলাৎকার ও ছাত্রদের বেদমভাবে পিটিয়ে আহত করার প্রতিবাদে মাদ্রাসার ছাত্ররা বিক্ষোভ করেছে। ঘটনার পরেই খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন চাঁদপুর মডেল থানার এএসআই আবু হানিফ ও সঙ্গীয় ফোর্স। এ ঘটনায় চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে আহত ছাত্ররা চিকিৎসা নিয়েছে।

ছাত্রদের সাথে কথা বলে জানা যায়, মাদ্রাসার প্রধান হাফেজ ইকরাম মাদ্রাসায় সবসময় থাকেন না। ছাত্রদেরকে নাজরানা ও হেফ্জ পড়ার অজুহাতে শিক্ষক হাফেজ আব্দুল খালেক বেদম পিটিয়ে তাদেরকে রক্তাক্ত করে ফেলে। মাদ্রাসার তিনটি গেটে তালা লাগিয়ে ২৪ ঘন্টা ছাত্রদেরকে ভেতরে জেলখানার কয়েদীদের মতো রাখা হয়। সবসময় তালা মারা থাকায় তারা অভিভাবকদের জানাতে পারেনি। মাদ্রাসায় বন্দী করে রেখে শিক্ষার নামে প্রতিদিনই নির্যাতন চালানো হয়।

শিক্ষক আব্দুল খালেক তার ইচ্ছামত ছাত্রদের ডেকে নিয়ে বলাৎকার করেন। কেউ প্রতিবাদ করলে তার উপরে নির্যাতনের মাত্রা আরো বেড়ে যায়। গত ক’দিন পূর্বে মাদ্রাসার ছাত্র শেখ মোহাম্মদ (১১)কে ডেকে নিয়ে রাতে তার মশারির ভেতরে ঢুকতে বলে। সে প্রবেশ করার পর প্রথমে তাকে দিয়ে শরীরে ঔষধ মালিশ করায়। এক পর্যায়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে মুখ চেপে ধরে বলাৎকার করে তাকে রক্তাক্ত করে ফেলে। পরে সকালে ছাত্র মোহাম্মদ ঘটনাটি মাদ্রাসার অন্য ছাত্রদের জানায়। ক’দিন যাবৎ এ ঘটনাটি নিয়ে ছাত্রদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা চলছিলো।

মঙ্গলবার একইভাবে মাদ্রাসার ছাত্র যোবায়েরকে বলাৎকারে রাজি না হওয়ায় তাকে শিক্ষক আব্দুল খালেক বেদমভাবে পিটিয়ে আহত করে এবং তার একটি চোখে লাঠি দিয়ে আঘাত করে রক্তাক্ত করে মারাত্মকভাবে আহত করে।

এলাকাবাসী বিষয়টি চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নাছিম উদ্দিনকে অবহিত করেন। তিনি মডেল থানার পক্ষ থেকে এএসআই মোঃ আবু হানিফকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে বিষয়টি নিয়ন্ত্রণে আনেন। মারাত্মক আহত ছাত্র যোবায়েরকে তার অভিভাবক ঘটনার পর খবর পেয়ে এসে তাকে মাদ্রাসা থেকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতাল নিয়ে ভর্তি করে এবং থানায় এ ঘটনার আলোকে মামলা দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, বিভিন্ন সময় নির্যাতনের শিকার এ মাদ্রাসার ছাত্ররা হচ্ছে মেহেরাত (১০), হাবিব (১২), মাহফুজ (১২), তারেক (১১), নাহিদ (১৩), রাকিব হোসেন শাহাদাত (১২) ও ফয়সাল (১৪)।

Facebook Comments

Check Also

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নাবী (সা.) উদযাপনে মতলব উত্তরে উয়েসীয়ান’৯৭ পুনর্মিলনী

মনিরুল ইসলাম মনির : পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নাবী (সা.) উদযাপন উপলক্ষ্যে ইমামুত্ব ত্বরীকত আল্লামা শায়খ সায়্যিদ মুহাম্মদ …

vv