ব্রেকিং নিউজঃ
Home / অপরাধ / চাঁদপুরে মাদক সম্রাট জামাল আটক হওয়ায় ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা

চাঁদপুরে মাদক সম্রাট জামাল আটক হওয়ায় ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর সদর উপজেলার ১২ নং চান্দ্রা ইউনিয়নের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী মামলার আসামি জামাল গাজীকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর অভিযান চালিয়ে ২১৪ পিছ ইয়াবাসহ আটক করে। মাদক ব্যবসায়ীকে আটকের সহযোগিতা করেছে সন্দেহে ক্ষিপ্ত হয়ে তার স্ত্রী আমেনা বেগম ঘটনার চারদিন পর কাপড় ব্যবসায়ী জহির মিজি সহ চারজনের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

গত ১২ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকেলে চান্দ্রা চৌরাস্তা শেখ ফার্মেসীর সামনে থেকে মোটরসাইকেলের ইয়াবা পাচার কালে হাতেনাতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর সদস্যরা একাধিক মাদক মামলার আসামি জামাল গাজীকে আটক করে।
এ ঘটনায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক বাপন সেন বাদী হয়ে চাঁদপুর মডেল থানায় আটক জামাল গাজীকে আসামী করে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ১১ তারিখ, ১২/৯/২০২০।

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে জামাল গাজীর স্ত্রী আমেনা বেগম ঈর্ষান্বিত হয়ে চৌরাস্তার কাপড় ব্যবসায়ী জহির মিজি সহ ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। মাদক মামলায় আটকের পর জেলা কারাগারে থাকা জামাল গাজীকে প্রধান সাক্ষী দেখিয়ে তার স্ত্রী মিথ্যা মামলাটি দায়ের করেন ।

এছাড়া একই ঘরের ৪জনকে সাক্ষী করলেও মামলার পাঁচ থেকে ৮ নম্বর পর্যন্ত যাদেরকে সাক্ষী করা হয়েছে তারা কেউই এই ঘটনা দেখেনি ও ঘটেনি বলে সাক্ষ্য দিয়েছেন। আদালত মামলাটি তদন্ত সাপেক্ষে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশকে নির্দেশ প্রদান করেন। সেই আলোকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই বিপ্লব সাক্ষীদের সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য নোটিশ করেন।

মামলার বাদী আমেনা বেগম খুব কৌশলে মামলার এজাহারে যাদের সাক্ষী করা হয়েছে তাদেরকে না নিয়ে তাদের নাম ব্যবহার করে অন্যান্য সাক্ষীদের থানায় নিয়ে পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে মিথ্যা সাক্ষ্য প্রদান করেছে। এই মিথ্যা সাক্ষী প্রদান করার খবর জানতে পেরে মামলার প্রকৃত সাক্ষী ইসমাইল খান, কালাম গাজী, বাবলু গাজী ও সংগ্রাম মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ফোন করে ঘটনাটি মিথ্যা বলে অবহিত করেন।

পুলিশ ঘটনাস্থলে না এসে থানায় বসেই মিথ্যা সাক্ষী নিয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করার পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়ে মামলার সাক্ষী ইসমাইল খান, কালাম গাজী, বাবলু গাজী জানান, মাদক সম্রাট জামাল গাজীকে গ্রেপ্তার করার পর তার স্ত্রী ক্ষিপ্ত হয়ে এই মিথ্যা মামলাটি দায়ের করেছেন। গত ১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে চান্দ্রা চৌরাস্তা জহিরের দোকানের সামনে কোন ঘটনা ঘটেনি। আমরা এধরণের কোন হামলার ঘটনা দেখিনি। থানায় স্বাক্ষী দিতে না গেলেও আমাদের নাম ব্যবহার করে মামলার বাদী ভুয়া সাক্ষী দেখিয়ে সাক্ষ্য দিয়েছেন। এই ঘটনাটি মডেল থানার অফিসার্স ইনচার্জ নাছিম উদ্দিনকে অবহিত করা হয়।

এ বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই বিপ্লব জানান, এই ঘটনাটি সঠিকভাবে তদন্ত করা হচ্ছে। যারা সাক্ষী দিয়েছেন তাদেরকে পুনরায় থানায় এনে যাচাই বাছাই করা হবে। প্রকৃত সাক্ষীদের সাক্ষ্য নিয়ে প্রতিবেদন আদালতে প্রেরণ করা হবে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা জানান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর অভিযান চালিয়ে বাখরপুর গ্রামের মাদক সম্রাট জামাল গাজীকে ইয়াবাসহ ১২ ই সেপ্টেম্বর আটক করে। এ ঘটনায় তার স্ত্রী ক্ষিপ্ত হয়ে মাদক বিক্রেতাদের পরামর্শ নিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলার প্রধান সাক্ষী মাদক মামলার গ্রেফতার হওয়া আসামি জামাল গাজী কারাগারে থাকা অবস্থায় কিভাবে ওই ভুয়া মিথ্যা মামলার প্রধান সাক্ষী হয়েছে তা নিয়ে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। এই ঘটনাটি তদন্তকারী কর্মকর্তা সঠিকভাবে তদন্ত করলেই মিথ্যা মামলা হয়েছে তা প্রমাণিত হবে। আমরা এই মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার চাই ও মামলার বাদীর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি জানাই।

উল্লেখ্য, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযানে আটক হওয়া মাদক মামলার আসামি জামাল গাজীকে এর পূর্বে টেকনাফ থেকে আসা তিনজন মাদকের ডিলার সহ চাঁদপুর মডেল থানার এসআই আওলাদ হোসেন তাদেরকে গ্রেপ্তার করেন। এছাড়া কিছুদিন পূর্বে তার বাড়ির সামনে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ২০ কেজি গাঁজা জব্দ করেন। পুলিশ তার বিরুদ্ধে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে একাধিক মামলা দায়ের করেন করেছেন।

Facebook Comments

Check Also

হাইমচরে জমি সংক্রান্ত বিরোধে ফলজ গাছ কর্তন, থানায় অভিযোগ

মোঃ সাজ্জাদ হোসেন রনি, হাইমচর : হাইমচর উপজেলার ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নের জমি সংক্রান্ত বিরোধে রফিক …

vv