ব্রেকিং নিউজঃ
Home / প্রিয় অনুসন্ধান / চাঁদপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে একাধিক যুবকের সাথে প্রতারণা, অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল

চাঁদপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে একাধিক যুবকের সাথে প্রতারণা, অন্তরঙ্গ ছবি ভাইরাল

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুরে ভয়ঙ্কর গ্যাং এর সদস্য প্রতারক সিমা আক্তার। বয়স তার (২৫)। চাঁদপুর শহরের বিষ্ণুদী, শহীদ মফিজ রোডের মোঃ বাচ্চু মিয়ার মেয়ে সিমা। বয়স বাড়ার সাথে সাথে এই প্রতারক চক্রের সাথে জড়িত হয়ে পড়ে।

একাধিক যুবকের সাথে মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে দেখা করার নাম করে তার গ্যাং এর সদস্যদের সহায়তায় নির্জন জায়গায় নিয়ে আটকে রেখে সর্বস্ব লুটে নেয়। এছাড়া বিভিন্ন যুবকদের সাথে দেখা করে অন্তরঙ্গ ছবি নিজের মোবাইলে তুলে ফেসবুক ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার করার ভয় দেখিয়ে যুবকদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এমনই ভুরিভুরি অভিযোগ রয়েছে প্রতারক সীমা আক্তারের বিরুদ্ধে।

যুবকদের সাথে অন্তরঙ্গ ও অশ্লীল ছবি ফেসবুকে ইতিমধ্যে ভাইরাল হওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে।
তেমনি প্রতারণার ফাঁদে ফেলে মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক করে দক্ষিণ তারাবুনিয়া ইউনিয়নের মোল্লার বাজার এলাকায় নদী ভাংতি লোক বর্তমানে কোড়ালিয়া পীর বাদশা মিয়া রোডের সামসুদ্দিন মালের ছেলে দ্বীন মোহাম্মদ এর কাছ থেকে সর্বস্ব লুটে নেয় এই প্রতারক চক্ররা।

অসহায় দীন মোহাম্মদ ঢাকা মৌচাক মার্কেটে একটি দোকানে টেইলারী কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। ঢাকায় থাকা অবস্থায় প্রতারক চক্রের সদস্য সীমা আক্তারের বাবা বাচ্চু মিয়া ওই মৌচাক মার্কেটে কাজ করতো। সেই সুবাদে একে অপরের সাথে পরিচয় হলে বাচ্চু মিয়া দ্বীন মোহাম্মদের মোবাইল ফোন নিয়ে তার বাড়িতে ফোন করে কথা বলেন। এরপরেই দ্বীন মোহাম্মদের মোবাইলে বাচ্চু মিয়ার মেয়ে প্রতারক সীমা ফোন করে প্রেম নিবেদন শুরু করে।

একপর্যায়ে তিনি দ্বীন মোহাম্মদকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে দেখা করার নাম করে চাঁদপুর শহরে ডায়াবেটিস হাসপাতালে সামনে আসতে বলে। সরল বিশ্বাসে দ্বীন ইসলাম দেখা করতে গেলে চাঁদপুর বেলভিউ হাসপাতালের পিছনে নিয়ে নবনির্মিত ভবনের দোতলায় দিলে সিমার সহযোগী প্রতারক চক্রের সদস্য কোড়ালিয়ার সন্ত্রাস দুদুমিয়া, বাহের খলিশাডুলীর মোঃ শাহজাহান মুন্সীর ছেলে হাবিব মুন্সি, বিষ্ণুদীর মোঃ সুজন গাজী সহ আরো অনেকে অস্ত্র ঠেকিয়ে জোরপূর্বক খালি নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে তার সাথে থাকা নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

পরবর্তীতে ২২ শে জুন ২০১৯ সালে অলিখিত স্ট্যাম্পটি সিমা আক্তার ও তার সহযোগীরা লিখে ৩ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দেনমোহর উল্লেখ করে নোটারি করে নেয়। আবার একই বছরের ২২ ইং সেপ্টেম্বর ৩ লক্ষ বিশ হাজার টাকা দেনমোহর দেখিয়ে ভুয়া রেজিস্ট্রি কাবিন করে নেয়। এই বিষয়ে দীন মোহাম্মদ কিছুই জানতো না। একদিনে সংসার না করে সিমা দীন মোহাম্মদের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট যৌতুক মামলা দায়ের করে। যার মামলা নং সি আর, ৯৩০/২০১৯।

মামলার ভয় দেখিয়ে ওই প্রতারক চক্রের সদস্য বহুরূপী সিমা আক্তার এবং তার সহযোগী কোড়ালিয়ার সন্ত্রাস দুদুমিয়া অসহায় দ্বীন মোহাম্মদকে পুলিশের ভয় দেখিয়ে কাবিনের তিন লক্ষ টাকা দাবি করছে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার।
এদিকে এই বহুরূপী প্রতারক চক্রের সদস্য সিমা আক্তার একইভাবে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এই ঘটনার পূর্বে চাঁদপুর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের মাদ্রাসা রোড এলাকার ভূইয়া বাড়ির মহুরুম হাসান ভূঁইয়ার সন্তান ঢাকা মৌচাকের বোরকা ব্যবসায়ী মাদকাসক্ত মোঃ রিপন ভূঁইয়ার সাথে দীর্ঘদিন অবৈধ সম্পর্ক স্থাপন করে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও তার মোবাইলে ধারন করে।তার সাথে একই ভাবে প্রতারণা করে বিয়ে করে সর্বস্ব লুটে নেয়। রিপন ভুইয়া চাঁদপুর পৌরসভার ক্লাব রোড এলাকায় প্রায় বিশ বছর আগে বিয়ে করে তার ছেলে সন্তান রয়েছে। এইভাবে একের পর এক একাধিক যুবকদের সাথে প্রতারণা করে প্রতারক চক্রের সহযোগিতায় এই বহুরূপী সিমা আক্তার মানুষের সর্বস্ব লুটে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে বিষ্ণুদী শহীদ মফিজ রোড এলাকায় সিমা আক্তারের বাড়ির আশেপাশে খোঁজখবর নিয়ে প্রতিবেশীদের কাছ থেকে জানা যায়, প্রতারক সিমা আক্তার বিভিন্ন মানুষের সাথে প্রতারণা করে অর্থ উপার্জন করে। এই ধরনের অনেক ঘটনা এলাকাবাসী অবগত রয়েছেন।

এই সীমা আক্তারের সহযোগী কোড়ালিয়া রোডের পাটোয়ারী স্কুল সংলগ্ন অটো রিকশার গ্যারেজ মালিক দুধু মিয়া এরপূর্বে বেশ কয়েকটি ঘটনা সংঘটিত করেছে। শ্যামপুর ইউনিয়নের কাজী সাইফুল ইসলামের ও লম্পট হাবিব মুন্সির মাধ্যমে ভুয়া কাবিন করে অনেক যুবকের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

এই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে অনুমোদনহীন অবৈধ শিপইয়ার্ডে পরিবেশ দূষণ, কর্তৃপক্ষ উদাসীন

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুরে অনুমোদনহীন ভাবে ডাকাতিয়া নদীর পাড়ে গড়ে উঠেছে অবৈধ শিপইয়ার্ড ও ডকইয়ার্ড। এতে …

vv