ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুরে পঁচলো কয়েকশ একর জমির আলু, নিঃস্ব কৃষক

চাঁদপুরে পঁচলো কয়েকশ একর জমির আলু, নিঃস্ব কৃষক

এস রহমান:


চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলায় বৃষ্টির পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে কয়েশ একর জমির আলু। এতে নিঃস্ব হয়ে গেছে শতশত কৃষক। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ দেয়ার দাবি জানিয়েছে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও কৃষকদের সাথে দেখা করলেও সান্ত্বনা ছাড়া কোনো প্রতিশ্রুতি দিতে পারছে না। অপরদিকে জেলা কৃষি কর্মকর্তা দ্রুত আলু জমি থেকে তুলে আলোছায়া স্থানে রেখে সংরক্ষণের পরামর্শ দিচ্ছেন।

চাঁদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় চলতি মৌসুমে আলুর আবাদ হয়েছে ১৩ হাজার ১৯০ হেক্টর জমিতে। শুধুমাত্র কচুয়া উপজেলায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ৪৩ হাজার ৭৬০ টন। এ লক্ষ্যমাত্রা অর্জন অসম্ভব হয়ে পড়তে পারে। দেখা দিতে পারে বীজ আলু সংকট। কারণ কচুয়া উপজেলার মাত্র ত্রিশ ভাগ আলু উত্তোলন করা সম্ভব হলেও বাকি আলু বৃষ্টির পানিতে পঁচে গেছে।

কচুয়া উপজেলার বড় হায়াৎপুর, বাসাবাড়িয়া, রাজাপুর, তুলাতলী, সাহেদাপুর, চাঁদপুর, ডুমুরিয়া, কালোচোসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, শতশত একর জমির আলু তোলা সম্ভব হয়নি। খেতে বৃষ্টির পানি জমে যাওয়ায় মাটির নিচে সব আলু পঁচে গেছে। কেউ কেউ তোলার চেষ্টা করলেও শ্রমিক খরচ উঠানো অসম্ভব হয়ে পড়বে।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মধ্যে রাজাপুর গ্রামের সুশান্ত সরকার এবছর ধারকর্য করে ত্রিশ একর আলু চাষ করেছেন। খরচ হয়েছে প্রায় ত্রিশ লাখ টাকা। বাম্পার ফলনে খরচ পুষিয়ে মোটা অংকের মুনাফার আশায় বুক বেঁধে ছিলেন। দুই একদিনের মধ্যে আলু তোলার সকল আয়োজনও করা হয়েছিলো। কিন্তু বিধিবাম গত ৫ মার্চ দিবাগত রাতের বৃষ্টিতে তলিয়ে যায় সব জমি। দুইদিনে জমির পানি কিছুটা শুকালেও গত ৮ তারিখের দ্বিতীয় দফার বৃষ্টিতে আবার পানির নিচে চলে যায় আলু খেত। গত পাঁচ দিনে নষ্ট হয়ে যায় সব আলু।

শুধু সুশান্ত নয়, ওই এলাকার সুনীল সরকার, অনুকূল সরকার, জাহাঙ্গীর হোসেনসহ শতশত কৃষকের বক্তব্যও একই রকম। তাদের দাবি এ ক্ষতি কোনো ভাবেই কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে না। যদি সরকারি সহায়তা দেয়া হয় তবেই সম্ভব। না হলে কোনো ভাবেই এ ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা সম্ভব নয়।

৯ নম্বর কড়ইয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মো. মানিক মিয়া জানান, কৃষকরা আমার কাছে এসে কান্নাকাটি করছে। আমি নিরুপায়। তবুও আমি আমাদের এমপি মহোদয়কে বিষয়টি অবগত করেছি।

এ সময় তিনি সরকারি সহায়তা দিতে কৃষকদের পক্ষে দাবি জানান।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর চাঁদপুর এর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আলী আহম্মদ জানান, কিছু এলাকার আলু এখনো তোলা হয়নি। কিন্তু হঠাৎ বৃষ্টিতে ফসলি জমিতে পানি আটকে গেছে। আমি দ্রুত আলু উত্তোলনের পরামর্শ দিচ্ছি। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের তালিকা করতেও উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আমি বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

Facebook Comments

Check Also

মতলব উত্তরে চেয়ারম্যান পদে ১১ ও সদস্য পদে ৫ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা

মনিরুল ইসলাম মনির : মতলব উত্তরের উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে সুলতানাবাদ ইউনিয়নে ৬ জন এবং জহিরাবাদ …

vv