ব্রেকিং নিউজঃ
Home / প্রিয় অনুসন্ধান / চাঁদপুরে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাথে মাদকাসক্ত রিপনের অবৈধ মেলামেশা

চাঁদপুরে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাথে মাদকাসক্ত রিপনের অবৈধ মেলামেশা

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুরে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী ভয়ঙ্কর গ্যাং সদস্য প্রতারক সিমা আক্তারের সাথে অবৈধ মেলামেশা করছে মাদকাসক্ত রিপন ভূঁইয়া। প্রথম স্ত্রীর অনুমতি না নিয়ে দ্বিতীয় বিয়ে করে স্ত্রীর সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলার ঘটনা জানাজানি হলে দেড় বছর পূর্বে সামাজিকভাবে সালিশ বৈঠকের মাধ্যমে উভয়ের মধ্যে তালাক হয়। দেড় বছর পূর্বে তালাক দেওয়া সত্ত্বেও এ পর্যন্ত তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাথে মাদকাসক্ত রিপন অবৈধ মেলামেশা খবর পাওয়া গেছে।
খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, চাঁদপুর শহরের বিষ্ণুদী, শহীদ মফিজ রোডের মোঃ বাচ্চু মিয়ার মেয়ে সিমা আক্তারের সাথে মোবাইল ফোনে সম্পর্ক হয় চাঁদপুর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের মাদ্রাসা রোড এলাকার ভূইয়া বাড়ির মহুরুম হাসান ভূঁইয়ার সন্তান ঢাকা মৌচাক মার্কেটের বোরকা ব্যবসায়ী মাদকাসক্ত মোঃ রিপন ভূঁইয়ার সাথে।
রিপন ভুইয়া চাঁদপুর পৌরসভার ক্লাব রোড এলাকায় প্রায় বিশ বছর আগে বিয়ে করে তার ছেলে সন্তান রয়েছে। প্রথম স্ত্রীর অনুমতি না নিয়ে গোপনে বিয়ে করলে এই ঘটনা জানাজানি হলে পারিবারিক ও সামাজিক ভাবে তাকে চাপ প্রয়োগ করা হয়।
সালিশী বৈঠক হয়ে প্রথম স্ত্রী ও ছেলে সন্তানের কথা চিন্তা করে দ্বিতীয় স্ত্রী সিমা আক্তারকে তালাক দেয়। এরপর থেকেই সীমা আক্তার প্রতারক চক্র গ্যাং এর সদস্যদের সাথে জড়িয়ে পড়ে প্রতারণা শুরু করে।
তারপর দ্বীন মোহাম্মদ নামে এক অসহায় যুবককে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ভাবে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর রেখে ভুয়া কাবিন দেখিয়ে তার কাছ থেকে টাকা দাবি করে। পর্যায়ক্রমে একের পর এক ঘটনা জন্ম দেয় ভয়ঙ্কর গ্যাং এর সদস্য রিপন ভূঁইয়ার তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রী সিমা আক্তার।
স্ত্রীকে তালাক দিলেও এখনো রিপন ভূঁইয়া প্রথম স্ত্রী ও সন্তানের অজান্তে ঢাকা থেকে চাঁদপুর এসে সীমা আক্তারের বাড়িতে অবস্থান করে তার সাথে অবৈধ মেলামেশা করছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। রিপন ভূঁইয়া ও সীমা আক্তারের মোবাইলের কল লিস্ট পর্যালোচনা করে দেখা যায় প্রতিদিন তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ রয়েছে তার। এর তথ্যপ্রমাণ ও বিভিন্ন ছবি ভিডিও সাংবাদিকদের কাছে রক্ষিত রয়েছে।
এই বিষয়ে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সিমা আক্তার জানায়, রিপনের সাথে প্রথমে বিয়ে হলেও সামাজিকভাবে শালিশী বৈঠকের মাধ্যমে তার সাথে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। রিপন প্রায় সময় যোগাযোগ করে খোঁজ খবর নেয়। তারপরে দ্বীন মোহাম্মদকে বিয়ে করলেও এখন সংসার ভেঙে যাওয়া অপেক্ষায় রয়েছে। কাবিনের টাকা পেলে তার বিরুদ্ধে করা সব অভিযোগ তুলে নেব।
এদিকে অভিযুক্ত রিপন ভূঁইয়া জানান, সিমা আক্তার খুব ভালো মেয়ে ছিল। সামাজিকভাবে বসে তার সাথে দেড় বছর পূর্বে ছাড়াছাড়ি হলেও কাবিনের কোন টাকা আমার কাছ থেকে নেয়নি। সে সমস্যা পরলে আমার সাথে যোগাযোগ করে। আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করা হচ্ছে এজন্য তার প্রথম স্বামী দীন মোহাম্মদকে দেখে নিব সে কিভাবে চাঁদপুরে থাকে তার ব্যবস্থা নেব।
এদিকে তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সাথে অবৈধ মেলামেশার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও সিমা আক্তার মোবাইলে ধারন করে।
এছাড়া রিপন ভূইয়ার মদ্যপান করা অবস্থায় ছবি ও ভিডিও ফেসবুক সহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। রিপন ভূঁইয়া ও তার তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীর সীমা আক্তারের প্রতারণার ঘটনা ধামাচাপা দিতে একটি দালাল চক্র উঠেপড়ে লেগেছে। এই ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর অসহায় দীন মোহাম্মদকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীর পরিবার।
Facebook Comments

Check Also

শাহরাস্তিতে দিনশেষে সিএনজি চালক ইমরানের বাড়ি ফেরা হলোনা

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তিতে দিনভর সিএনজি থ্রি হুইলার চালিয়ে চালক ইমরানের আর বাড়ি …

Shares
vv