ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুরে টিসিবি’র পন্য নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়, ন্যায্যমূল্য পেয়ে ক্রেতারা খুশি

চাঁদপুরে টিসিবি’র পন্য নিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়, ন্যায্যমূল্য পেয়ে ক্রেতারা খুশি

নিজস্ব প্রতিনিধি : চাঁদপুর শহর ও শহরতলীর বিভিন্ন হাটে বাজারে দ্রব্যমূল্যের দাম বেশী হওয়ায় টিসিবি’র বিভিন্ন পন্য খাদ্য দ্রব্য ন্যায্যমূল্যে ক্রয় করতে চাঁদপুরের বিভিন্ন স্থানে ন্যায্যমূল্যে খাদ্য দ্রব্য বিক্রিকালে সাধারন মানুষের মধ্যে উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে। নারী,পুরুষ ও শিশুরা বিশাল লাইনে দাড়িয়ে প্রতি ২লিটার সোয়াবিন তেল ১৮০ টাকায়,প্রতি কেজি চিনি ৫০টাকায় ও প্রতি কেজি মশুর ডাল ৫৫টাকা দরে ক্রয় করছে। এ তিন রকম খাদ্য পেকেজ হিসেবে ২৮৫ টাকায় বিক্রি করছে টিসিবি প্রতি একজন ক্রেতার কাছে। ক্রেতারা এ ভাবে সরকারের সেবা পেয়ে আনন্দি হচ্ছে।

খবর নিয়ে জানা যায়, দেশের জন সাধারনকে তাদের কস্ট থেকে লাগব পেতে সরকার বিগত বছরের ন্যায় সরকার এ উদ্যোগ গ্রহন করেছে। এ ছাড়া বর্তমান বাজার মূল্য স্থিতিশীল রাখতে সরকার এ বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহন করেছে বলে সরকারের সংশ্লিস্ট কর্তৃপক্ষ থেকে জানা গেছে।

দেশের বানিজ্য মন্ত্রলয়ের আওতায় ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) এর ভ্রাম্যমান ট্রাকসেল কার্যক্রম হিসেবে চাঁদপুর শহর,শহরতলী ও জেলার সব কয়টি উপজেলায়ও ডাল,তেল,চিনি,ছোলা ও পিযাজ এ সংস্থা কমদামে অথাৎ ন্যার্য্যমূল্যে বিক্রি করে যাচ্ছে। শহরের হাট,বাজার,বিভিন্ন বিপনী বিতান ও বিভিন্ন স্থানের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বর্তমান বাজার মূল্যের চাইতে টিসিবি কিছুটা কমদামে খাদ্যদ্রব্য বিক্রি করা লক্ষ করা যাচ্ছে।

দেশে করোনা মহামারির কারনে এ দেশের মানুষজন দীর্ঘ সময় তাদের জমাকৃত পুজি ভেঙ্গে জীবন নির্বাহ করে। যার ফলে তাদের কাছে বর্তমান সময় অর্থ না থাকায় মানূষজন প্রচন্ড রোদ ও রাস্তার ধূলাবালি উপেক্ষা করে খাদ্যপন্য ক্রয় করার জন্য বিশাল লাইনে দাড়িয়ে ডাল, সোয়াবিন তেল ও চিনি ক্রয় করছে। এতে তারা বাজারের দোকান যেদামে বিক্রি হয়,তা চাইতে ১০ থেকে ২০ টাকা কেজি বা লিটারে কমদামে ক্রয় করতে পারছে বলে ক্রেতারা জানান।

সরোজনিনে ঘরে দেখা যায়, কচুয়া উপজেলার বাসিন্দা চাঁদপুর জেলার দায়িত্বরত মেসার্স আজম এন্টার প্রাইজের মালিক টিসিবির ঠিকাদার মো: গোলাম মোস্তফা চাঁদপুর শহরের পালবাজার মোড়,কালীবাড়ি,নতুনবাজার,কোর্টস্টেশন শপথ চত্বর,চিত্রলেখা মোড়,ইলিশ চত্বর,জেলা প্রশাসক কার্যায়ের সামনে,বাসস্ট্র্যোন্ড এলাকা,চাঁদপুর স্টেডিয়াম এলাকা,বিপনীবাগ,ওয়ারলেছ বাজার,পুরানবাজার,পুরানবাজার বাকালি পট্রি মাছ বাজার,লোহার পুল,বাবুরহাট বাজারসহ শহরতলীর বিভিন্ন স্থানে ক্রেতা সাধারনের সুবিধার দিক বিবেচনা করে সকাল থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এ সব খাদ্যদ্রব্য ন্যার্যমূলে বিক্রি করতে দেখা যায়।

মেসার্স আজম এন্টার প্রাইজের মালিক টিসিবির ঠিকাদার মো: গোলাম মোস্তফা জানান,বর্তমান সময় শেখ হাসিনার সরকারের সময় বিগত সরকারের চাইতে বেশী পরিমান খাদ্যদ্রব্য ন্যার্যমূল্যে বিক্রি করায় সাধারন মানুষ অনেক উপকৃত হচ্ছে এবং আমরা যারা ঠিকাদার তারা মানুষের সেবাদিতে পেরে অনেক আনন্দ পাচ্ছি। আমাদের এ ধরনের সেবা সরকারী নির্দেশনা মত অব্যাহত থাকবে বলে মনে করি।

Facebook Comments

Check Also

হাজীগঞ্জে ঘর দেয়ার নামে কয়েক কোটি টাকা নিয়ে উধাও চার ভাই

বিশেষ প্রতিনিধি : হাজীগঞ্জ উপজেলাসহ আশপাশের কয়েকটি উপজেলায় কুয়েত রিলিফ জয়েন্ট কমিটি অব বাংলাদেশের গৃহনির্মাণ প্রকল্পের …

Shares
vv