ব্রেকিং নিউজঃ
Home / প্রিয় অনুসন্ধান / চাঁদপুরে অস্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় থানায় অভিযোগ, দালালদের দৌড়ঝাঁপ

চাঁদপুরে অস্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় থানায় অভিযোগ, দালালদের দৌড়ঝাঁপ

স্টাফ রিপোর্টার : চাঁদপুর সদর উপজেলার ১৪ নং রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড লক্ষ্মীর চরে স্বামীর গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে গৃহবধূকে পালাক্রমে গণধর্ষণ করার ঘটনায় মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে ধর্ষিতা ও তার স্বামী লক্ষীরচর থেকে ট্রলারযোগে মেঘনা নদী পার হয়ে চাঁদপুরে পালিয়ে মডেল থানায় আসেন। পুলিশ ধর্ষিতা গৃহবধূর কাছ থেকে গণধর্ষণের ঘটনা বিস্তারিত জেনে অভিযোগ লিপিবদ্ধ করে তাকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠায়।

ধর্ষিতা গৃহবধূর স্বামী আব্বাস বকাউল থানায় মামলা করতে আসলে আসামিপক্ষের লোকজন দলবল নিয়ে থানা প্রাঙ্গণে এসে অবস্থান নেয়। আসামিদের বাঁচাতে কিছু দালালচক্র ধর্ষিতা ও তার স্বামীকে চাপ প্রয়োগ করার চেষ্টা করে।

ঘটনার পরে খবর পেয়ে রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হযরত আলী থানায় এসে ধর্ষিতা ও তার স্বামীকে সান্ত্বনা দেন কোন ধরনের ক্ষতি যাতে না হয় ও সব কিছু দেখে বলে আশ্বস্ত করেন।

গত শনিবার গভীর রাতে লক্ষ্মীর চরে কৃষক আব্বাস বকাউলের ঘরের দরজা ভেঙে ৭/৮ জন দুর্বৃত্ত ঘরের ভিতরে প্রবেশ করে স্বামী আব্বাস বকাউলের গলায় দেশীয় অস্ত্র রাম দা ঠেকিয়ে পাশের রুমে তার স্ত্রীকে নিয়ে জোরপূর্বক গণধর্ষণ করে।

এই ঘটনার পর গৃহবধূকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যেতে দেয়নি ও থানায় অভিযোগ করতে যেতে চাইলে ধর্ষণকারীরা তাকে চাঁদপুর শহরে আসতে বাধা প্রদান করে এবং জানে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

অবশেষে ধর্ষিতা গৃহবধূ ও তার স্বামী চাঁদপুর মডেল থানায় এসে এই লোমহর্ষক ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জানায়, এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মৃত ইয়াকুব গাজীর ছেলে সেলিম গাজী, ভুদাই গাজীর ছেলে বাবুল গাজী, শোবহান মল্লিকের ছেলে ফিরোজ মল্লিক, জাহাঙ্গীর প্রধানের ছেলে মোস্তফা প্রধানিয়া, শফী প্রধানিয়া ছেলে সবুজ প্রধানীয়া ও শরফত আলী গাজীর ছেলে ফয়সাল গাজী, সহ ৭/৮জন মুখোশ পরে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ঘরের দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকে। এ সময় তারা গলায় অস্ত্র ঠেকিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে স্ত্রীকে পাশের ঘরে জোরপূর্বক নিয়ে একের পর এক ধর্ষণ করে। এ সময় কয়েকজনের মুখোশ খোলা থাকায় তাদেরকে খুব সহজে চেনা যায়।
ঘটনাটি রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ওসমান গাজী সহ কয়েকজনকে জানালে তারা ধর্ষণকারী কয়েকজনকে এনে সালিশি বৈঠক করেন। পরে সবার উপস্থিতিতে তাদেরকে জুতা পিটা করে ছেড়ে দেয়।

এই ঘটনার পর অসুস্থ স্ত্রীকে হাসপাতলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তারা বাধা দেয় এবং ঘটনাটি অন্য কাউকে জানালে জানে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।
সোমবার সকালে ধর্ষণকারীরা লোকজন নিয়ে বাড়িতে গিয়ে হামলা চালায় অবশেষে সেখান থেকে পালিয়ে এসে মেঘনা নদী পার হয়ে থানায় আশ্রয় নেই।

এ ঘটনায় এখন আমরা পুরো পরিবার নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। যেকোনো সময় ধর্ষণকারীরা আবারো বাড়িতে হামলা করার আশঙ্কা রয়েছে। এই ধর্ষনের ঘটনায় ধর্ষণকারীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

এই ঘটনায় ধর্ষিতা গৃহবধূ জানায়, রাতের আধারে তারা ঘরে ঢুকে অস্ত্রের গলায় ঠেকিয়ে জানে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে পাশের রুমে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। তাদের হাতে পায়ে ধরে মাফ চাইলেও রেহাই না দিয়ে তারা নির্মমভাবে একের পর এক সবাই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে।
রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগী জানান,গৃহবধূকে রাতের আধারে ঘরে ঢুকে যারা এই গণধর্ষণের ঘটনাটি ঘটিয়েছে তারা এলাকার ত্রাসের রাজত্ব চালিয়ে যাচ্ছে।

বিশেষ করে ঘটনার মূল হোতা মেম্বার রনির ছোট ভাই সেলিম গাজী এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে মানুষের গরু ছাগল চুরি ও বেশ কয়েকটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে।

রনি ও তার ভাই সেলিমের বিরুদ্ধে এর পূর্বে ধর্ষণ মামলা রয়েছে। এলাকায় প্রভাব খাটিয়ে লোকজন নিয়ে এই ধরনের সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

রাজরাজেশ্বর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হযরত আলী জানান, গণধর্ষণের ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক। শান্ত ইউনিয়ন অশান্ত হয়ে উঠেছে। ইউনিয়নে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে।
এই ধর্ষনের ঘটনায় যারা জড়িত রয়েছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি যাতে করে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে।

চাঁদপুর মডেল থানার ওসি নাছিম উদ্দিন জানান, গৃহবধূ ধর্ষণের ঘটনায় অভিযোগকারীরা থানায় এসে অভিযোগ দিয়েছেন। ধর্ষণের ঘটনাটি আমরা তদন্ত করে দেখছি। যারা জড়িত থাকবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরে পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জের উপস্থিতিতে বিয়ে ! জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া

বিশেষ প্রতিনিধি : বৈশ্বিক মহামারী করোনা দুর্যোগে সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জের উপস্থিতিতে …

vv