ব্রেকিং নিউজঃ
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / চাঁদপুরে অন্যরকম পরিবেশে উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর

চাঁদপুরে অন্যরকম পরিবেশে উদযাপিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর

মাসুদ হোসেন : মাসব্যাপী সিয়াম সাধনা ও সংযম পালনের পর অপার খুশি আর আনন্দের বারতা নিয়ে আমাদের মাঝে সমাগত হয় পবিত্র ঈদুল ফিতর। দিনটি বড়ই আনন্দের, খুশির। কিন্তু প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণকালে সারা দেশের ন্যায় সোমবার ঘরবন্দি অবস্থায় প্রথমবারের মতো অন্য রকম পরিবেশে ঈদ উদযাপন করেছেন চাঁদপুরের অধিকাংশ মানুষ।

অন্যান্য বছরের ন্যায় এবার জেলায় ঈদের দিন বন্ধু-বান্ধব, পাড়াপ্রতিবেশী কিংবা আত্মীয়স্বজনের সাথে কুশল বিনিময়, কোলাকুলি করা এবং এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় ঘুরে বেড়ানোর কোনো সুযোগ ভাগ্যে জুটেনি।

সোমবার (২৫ মে) পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনে ঈদগাহে নেই ঈদের নামাজ, দেখা নেই একে অপরকে আলিঙ্গন করার রীতি। যেন করনাভাইরাস কেড়ে নিয়েছে সব আনন্দ। মসজিদে মসজিদে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনেকে আবার ঘরেই আদায় করেছে ঈদুল ফিতরের নামাজ। নামাজ শেষে মোনাজাতে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করা হয়েছে। পাশাপাশি সম্প্রতি বৈশ্বিক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও নিহতদের জন্য দোয়া করা হয়েছে।

প্রতি বছর এ ঈদ আনন্দের বার্তা বয়ে আনলেও বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করা করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) এর কারণে সারাদেশের ন্যায় চাঁদপুরেও নিরানন্দভাবে অন্যরকম পরিবেশে পালিত হয়েছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। তবে এই বছর ঈদের আনন্দ অনেকটাই মলিন হয়ে গেছে।

প্রতি বছর সকলেই এই একটি দিন আত্মীয় স্বজন কিংবা বন্ধুদের সাথে মিলিত হয়। ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয় সবাই। কিন্ত প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ম্লান করে দিয়েছে সকলের আনন্দ। প্রথমবারের মতো ঈদের জামাত আদায় করতে পারেননি বলে অনেকেই হতাশ হয়েছেন। তবে নিজের এবং পরিবারের নিরাপত্তার স্বার্থে সরকারের প্রদত্ত নীতিমালাকে স্বাগত জানিয়েছে ধর্মপ্রাণ মুসলমান জনগোষ্ঠী। তারা আশা করছেন দ্রুতই করোনাভাইরাসের মহামারী দূরীভূত হবে এবং আগামী ঈদুল আয-হার নামাজ ঈদগাহে পড়তে পারবেন বলে দৃঢ় বিশ্বাস।

এদিকে জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের কিছু কিছু এলাকায় মসজিদে স্থান সংকুলানের কারনে ঈদগাহেও ঈদের নামাজ পড়তে দেখা গেছে। তবে এ নিয়ে কারও মতবিরোধ ছিলো না।

ঈদ মানে প্রতিবেশীদের নিয়ে খাওয়া দাওয়া, আড্ডা দেওয়া। নাড়ির টানে গ্রামে গিয়ে মা-বাবা, ভাই-বোনদের সঙ্গে একত্র হওয়া। নতুন জামাকাপড় পরা। কিন্তু এবার সেই অনাবিল আনন্দের আবহ নেই। খুশির জোয়ারও নেই। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির কারণে সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও থমকে গেছে স্বাভাবিক জীবনযাপন।

ঈদের দিনে আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু, প্রতিবেশীর বাড়িতে যাতায়াত ও খাওয়াদাওয়ার সেই রেওয়াজও পালিত হয় না এবার। নতুন জামাকাপড় কেনেনি অনেকেই। ঈদের মেলা নেই কোথাও।

প্রতিবছর চাঁদপুরের অন্যতম বিনোদন কেন্দ্র ত্রি নদীর মোহনা চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেড এলাকায় মানুষের মেলা বসে ঈদকে ঘিরে। ছেলে-মেয়ে নিয়ে অনেকেই যায় এ বিনোদনকেন্দ্রে। এবার সেটাও বন্ধ।

Facebook Comments

Check Also

শাহরাস্তি ইউএনও শিরিন আক্তারের কর্মদক্ষতায় শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন

মোঃ মাসুদ রানা : চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলা ইউএনও শিরিন আক্তার তার কর্মদক্ষতার মূল্যায়নের শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন …

vv