ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / চাঁদপুরের চার রেস্টুরেন্টে গরীবের জন্য জেলা প্রশাসকের বিনামূল্যে খাবার

চাঁদপুরের চার রেস্টুরেন্টে গরীবের জন্য জেলা প্রশাসকের বিনামূল্যে খাবার

সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী : চাঁদপুর জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় চাঁদপুর ডায়াবেটিক সমিতি ও চক্ষু হাসপাতালে অর্ধেক মূল্য ছাড়ে ঔষধ, সাবান, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার দেয়া হচ্ছে। এছাড়া জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে শহরের চার রেস্টুরেন্টে গরীব লোকজনদের বিনামূল্যে খাবার ব্যবস্থা করেছে জেলা প্রশাসন।

হোটেলগুলো হলো, শহরের আল আরাফ হোটেল, ক্যাফে ঝিল (নতুন বাজার শাখা), আজিজিয়া হোটেল ও চাঁদপুর হোটেল। জেলা প্রশাসন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, শহরের অভিজাত এসব হোটেলকে পূর্বেই প্রস্তুতির জন্যে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ‘প্রতিদিন ওইসব দুঃস্থ অসহায় মানুষ বিনা পয়সায় হোটেলগুলোতে খেয়ে যাবে। আর দিনশেষে তার বিল নিজেই পরিশোধ করবেন জেলা প্রশাসক মাজেদুর রহমান খাঁন।’

এ বিষয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব)আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান স্যার অসহায়, হতদরিদ্র এবং খেটে খাওয়া মানুষের কথা বিবেচনা করে বেশ কয়েকটি হোটেলে জেলা প্রশাসনের তহবিল থেকে খাবারের ব্যবস্থা নিয়েছেন। করোনা ভাইরাস আতঙ্ক যত দিন থাকবে ততদিন পর্যন্ত জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এভাবে দরিদ্রদের খাওয়ানো হবে। চাঁদপুর শহরের চারটি হোটেল আমরা বিবেচনা করেছি। আজ থেকে হোটেল কতৃপক্ষ দরিদ্রদের খাইয়ে তাদের নাম লিখে রাখবে। আমরা তাদের বিল পরিশোধ করবো।

এদিকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে চলামান সংকট উত্তরণে চাঁদপুরে হতদরিদ্র মানুষের জন্য বিনামূল্যে খাদ্য সহায়তা চালু করেছে জেলা প্রশাসন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মাধ্যমে এসব লোকজনের মাঝে দেয়া হচ্ছে চাল-আলুসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী। এছাড়া হতদরিদ্র লোকজনকে অর্ধেক মূল্য ছাড়ে দেয়া হচ্ছে ঔষধ।

জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান জানিয়েছে,‘দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে খেটে খাওয়া হতদরিদ্র লোকজনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে খাদ্য সহায়তা,ঔষধ প্রদান, নগদ অর্থ সহায়তা সহ সকল ধরনের সহায়তা করা হচ্ছে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধে হতদরিদ্র মানুষের জন্য জেলা প্রশাসনের এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।’

রেস্টুরেন্টে কতোজনকে খাওয়ানো হলো এবং কারা সহায়তা পেলো এসব কীভাবে নির্ধারণ বা নিয়ন্ত্রণ করা হবে এমন প্রশ্নে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বলেন, ‘প্রতিদিন প্রতিটি হোটেলে ১০০ করে মোট ৩০০ জন। আলাদা রেজিস্টারে নাম ঠিকানা লিখে রাখবে। একজন দিনে একবার। দুঃস্থ লোক বাছাই করবে হোটেল মালিক। এমনটাও হতে পারে আশেপাশের কেউ দুঃস্থ লোককে পেলে নিয়ে গেলো।’

এদিকে জেলা প্রশাসক মো. মাজেদুর রহমান খানের এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অনেকেই নিজ নিজ টাইমলাইনে পোস্ট দিতে দেখা গেছে।

চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এইচ এম আহসান উল্যাহ তাঁর Ahsan Ullahআইডি থেকে লিখেছেন “স্যালুট চাঁদপুরের মান্যবর জেলা প্রশাসক মোঃ মাজেদুর রহমান খান। আপনার মহানুভবতার প্রতিদান আল্লাহ আপনাকে দিবেন।

চাঁদপুরবাসী আপনারা জানেন কি আমাদের প্রিয় জেলা প্রশাসক বর্তমান সঙ্কটকালে অসহায়, দুঃস্থ, গরিব ও দিনমজুরদের প্রতিদিন খাবারের জন্যে কী ব্যবস্থা করেছেন?
জেলা প্রশাসক মহোদয় চাঁদপুর শহরের কয়েকটি হোটেলে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছেন প্রত্যেকদিন ওইসব দুঃস্থ অসহায় মানুষ বিনা পয়সায় হোটেলগুলোতে খেয়ে যাবে। আর দিন শেষে জেলা প্রশাসক নিজে ওই হোটেলগুলোর বিল পরিশোধ করবেন। যতদিন পর্যন্ত করোনার কারণে বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হবে, ততদিন জেলা প্রশাসক মহোদয়ের এই ব্যবস্থা থাকবে।
ভুখা নাঙ্গা ক্ষুধার্ত মানুষগুলোকে আহারের ব্যবস্থা করে দিয়ে আমাদের এই জেলার প্রিয় অভিভাবক মহানুভবতার পরিচয় দিলেন।
রাব্বুল আলামিনের কাছে ওনার মঙ্গল কামনা করছি।

সাইফ ইমতিয়াজ লিখেছেন Saifee Imtiaz প্রসংসার দাবিদার।বাট জটলা যেন না হয় ভাই পার্সেল করে দিলে ভালো হবে।দূরত্ব বজায় নিয়ে খেয়ে নিবে। আবারও শ্রদ্ধা দোয়া ও ভালোবাসা রইলো জেলা প্রশাসক স্যার ও আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান স্যারকে।

সৌদি আরব প্রবাসী সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম হৃদয় লিখেছেন Zahangir Alam Hridoy অনেক বিত্তশালীদের ফ্রি খাওয়ার অভ্যাস আছে, তারা নিজেরা না গিয়ে অন্যদের দিয়েও তো মাগনা খাবার নিতে পারেন সে দিকে খেয়াল রাখতে পারেন।

আরেকটি বিষয় তিনি দৈনিক যে খাবারের বিল দিবেন তা কি উনার নিজের ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে দিবেন? দিলে অবশ্যই আল্লাহ উনার দান কবুল করুন, নেক হায়াত দান করুন এবং অবশ্যই ধন্যবাদ পাওয়ার কাজ করছেন মহতি উদ্যোগের জন্য। আর যদি সরকারের সহযোগিতা তহবিল থেকে দেন তাহলে সরকারের কথাও আসা উচিৎ – এবং ধন্যবাদ জানাই সবাইকে, এমন মহতি উদ্যোগ দেশের সকল জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড গুলিতেও নেয়ার জন্য আবেদন করছি। আল্লাহ পাক সবাইকে হেফাজত করুন এবং সুস্থ ও নেক হায়াত দান করুন

মো. আতাউল্যাহ লিখেছেন Md Ataullah স্যার -কে আল্লাহ উত্তম প্রতিদান দিন। মিডিয়ার মাধ্যমে আমরাও জানলাম স্যারের এই প্রশংসনীয় উদ্যোগের কথা। সত্যি এ ধরনের মানবীয় উদ্যোগ আমাদেরকে আলোর পথ দেখায়। স্যারকে আল্লাহ তায়ালা দীর্ঘ নেক হায়াত দান করুন। আমিন।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরের ৪০ গ্রামে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত

বিশেষ প্রতিনিধি : চাঁদপুর জেলার অর্ধশতাধীক গ্রামে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে। প্রায় শত বছর …

vv