ব্রেকিং নিউজঃ
Home / শীর্ষ / ঘোষেরহাট-মাষ্টার বাজার সড়কে নেই সংস্কার : শঙ্কিত যাত্রীসাধারন

ঘোষেরহাট-মাষ্টার বাজার সড়কে নেই সংস্কার : শঙ্কিত যাত্রীসাধারন

মাসুদ হোসেন : চাঁদপুরের ঘোষেরহাট-মাষ্টার বাজার সড়কের দৈর্ঘ্য সোয়া ২ কিলোমিটার। সড়কটি চলে গেছে দুই উপজেলার তিন ইউনিয়নের ওপর দিয়ে। হাজার হাজার মানুষের চলাচলের এই সড়কটি সংস্কার হচ্ছে না দীর্ঘদিন। এর ফলে সড়কজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য গর্ত। ভাঙা সড়কে চলাচলে ভোগান্তিতে পড়ছেন যাত্রীরা।

মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারী) সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সড়কের সদর উপজেলার আশিকাটি ইউনিয়নের সেনগাঁও মজুমদার বাড়ির সামনে থেকে শুরু হয়ে মতলব দক্ষিণের উপাদী দক্ষিণ ইউনিয়নের বাকরা মাল বাড়ী পর্যন্ত ১ কিলোমিটারে ছোট-বড় অসংখ্য গর্তে ভরা। তৈরি হয়েছে মৃত্যু ফাঁদ। ঘটছে ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

এছাড়াও সদরের আশিকাটি ইউনিয়নের দারুস সালাম কমপ্লেক্সের সামনের কালভার্টটিও দুই পাশে ভেঙ্গে তৈরি হয়েছে মরন ফাঁদ। যেকোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনা। সেই সাথে সড়কটির দুই পাশের মাটি সরে গিয়ে ভেঙ্গে গেছে পুরো রাস্তাটি। সাধারণত দুইটি সিএজি অতিক্রম করতে অনেক সমস্যা হয়।

সংস্কার না করায় সড়কটি খানাখন্দে বেহাল অবস্থায় পড়ে আছে। বর্তমানে সড়কটি যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। মাঝে মধ্যে যানবাহনের মালিক ও চালকেরা ব্যক্তিগত উদ্যোগে মাটি ভড়াট, ভাঙা ইট দিয়ে গর্তগুলো সাময়িকভাবে চলাচলের উপযোগী করলেও দু-একদিন পরেই সেখানে গর্তগুলো পূর্বের রূপ নেয়। ওই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন বাস-ট্রাক, পিকআপ, মাইক্রো, সিএনজি, অটোভ্যানসহ শত শত যানবাহন চলাচল করে।

এ সড়ক দিয়ে যেসব যানবাহন চলছে সেগুলো মারাত্মক ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে বাধ্য হচ্ছে। এতে যাত্রী সাধারণ ছাড়াও এলাকাবাসীকে প্রতিনিয়ত মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে সড়কটি যানবাহনের চলাচলে সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়বে বলে আশংকা করছে ভুক্তভোগীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই সড়কের উপর দিয়ে প্রতিদিন স্কুল, ব্যাংক, বীমা, ভূমি অফিস, ইউনিয়ন পরিষদ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রসহ অন্যান্য সরকারী বেসরকারী কার্যালয়ে কর্মরত চাকুরীজীবী ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা জীবন বাজি রেখে যাতায়াত করে আসছে। এছাড়াও অত্র অঞ্চলটি কৃষি উৎপাদনে ব্যাপক ভূমিকা রয়েছে। উপাদী দক্ষিণ ইউনিয়নসহ আশপাশ এলাকা থেকে উৎপাদনকৃত কৃষিপণ্য এ সড়কের ওপর দিয়ে চাঁদপুর জেলা শহরসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রপ্তানি করে আসছে। উক্ত সড়কের উপর দিয়ে নেয়া হচ্ছে মাষ্টার বাজারসহ ছোট বড় আরো কয়েকটি বাজারের ব্যবসার পণ্য সামগ্রী। ঘর বাড়ী নির্মাণের জন্যও ইট, বালি, রটসহ অন্যান্য নির্মাণ সামগ্রী নেয়া হয়ে থাকে এই সড়কের উপর দিয়ে। যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভাঙাচোরা এই সড়কে চলাচলের সময় প্রায়ই গর্তে পড়ে উল্টে যায় গাড়ি। তা ছাড়া সড়কে চলাচলকারী
লোকজনের মধ্যে বেশিরভাগই চাকুরীজীবী, শিক্ষার্থী ও কৃষিজীবী।

এই সড়ক দিয়ে কৃষকেরা ধান-চাল, আলু ও শাকসবজি নিয়ে যান চাঁদপুর শহরে। উক্ত এলাকাটি মতলব দক্ষিণ উপজেলার মধ্যে হলেও তাদের বেশিরভাগ কাজকর্মই করে আসছেন জেলা সদরসহ হাজীগঞ্জ বাজারের সাথে।

এলাকাবাসী জানান, সড়কটি দ্রুত সংস্কার করা না হলে জনসাধারণের চলাচল অযোগ্য হয়ে পড়বে। বেহাল এই সড়ক দিয়ে যানবাহন অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে আমরা চলাচল করছি। এই সড়কে প্রতিদিন চলাচলকারী ব্যাংক কর্মকর্তা মোঃ খায়রুল আলম বলেন, এই সড়কে চলাচল করতে গিয়ে প্রতিদিনই চিন্তিত থাকতে হয়। দিনশেষে বাসায় ফিরতে পারবো কিনা তা থাকতে হয় অনিশ্চিত। এই রুটের সিএনজি চালক আব্দুল মতিন ও মোস্তফা জানান, ঘোষেরহাট থেকে মাষ্টার বাজারসহ আশপাশ এলাকায় চলাচলের জন্য আমাদের স্ট্যান্ড থেকে প্রতিদিন প্রায় ৫০টি সিএনজি দৈনন্দিন যাত্রী নিয়ে আপ ডাউন করছে। সেই সাথে ব্যাটারি চালিত অটো বাইক তো আছেই। সর্বসাধারণের প্রত্যাশা, সড়ক বিভাগ যদি রাস্তাটি সংস্কার করে দেন তাহলে যাত্রীসহ যানবাহনের মালিক ও চালকদের ভোগান্তির অবসান ঘটবে। সিএনজি চালকরা আরো জানান, সড়কে খানাখন্দ থাকায় গাড়ি চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে।

ছোট-বড় গর্ত থাকায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাত্রীদের বহন করছি। সরকারের নিকট আমাদের দাবী অতি দ্রুত যেন রাস্তাটি সংস্কার করা হয়।

সম্প্রতি এ বিষয়ে মতলব দক্ষিণ উপজেলার ৬নং উপাদী দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ গোলাম মোস্তফা প্রধানীয়া জানান, এই রাস্তাটি খুবই ব্যাস্ততম একটি সড়ক। রাস্তাটির সংস্কারের জন্য স্থানীয় সরকারের (এলজিইডি) দপ্তরের কাছে আবেদন জমা দিয়েছি।

দুই উপজেলার মধ্যে হওয়ায় একটু বিলম্ব হচ্ছে। তবে টেন্ডারটি পাশ হলেই সংস্কার কাজ দ্রুত শুরু করা হবে।

Facebook Comments

Check Also

চাঁদপুরের পাড়া মহল্লায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে : অ্যাডি. এসপি মিজানুর রহমান

সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী : ‘পুলিশ জনতা এক সাথে কাজ করি, মাদক-জঙ্গী সন্ত্রাস মুক্ত দেশ গড়ি’ …

vv