ব্রেকিং নিউজঃ
Home / মতামত / করোনাকালীন শিক্ষার্থীদের জীবনের ছন্দপতন কিভাবে পোষাবে!

করোনাকালীন শিক্ষার্থীদের জীবনের ছন্দপতন কিভাবে পোষাবে!

:: মো. রুহুল আমিন ::

২০২০ সাল শেষে আমরা ২০২১ এর জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে আছি। ২০২০ সালের মার্চ মাসের ১৭ তারিখ থেকে এমাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত দীর্ঘ ১০ মাস করোনা ভাইরাসের কারনে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। এর মধ্যে একটি সময় এসে মাদ্রাসা গুলো খুলে দেয়া হয়েছে। স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ রেখে মাদ্রাগুলো খুলে দেয়ায় অনেক শিক্ষার্থীর অভিভাবক ইতিমধ্যে প্রশ্ন তুলেছেন স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ রাখার হেতু কি? মাদ্রাসাতে কি করোনার প্রকোপ নেই? যার কোন উত্তর আমাদের জানা নেই। অনেক অভিভাবকের মতে মাদ্রাসাগুলো খোলা রাখায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সন্মূখীন হবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা ব্যবস্থাপনায়। কারন স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ থাকায় ছোট শিশুদেরকে অধিকাংশ অভিভাবক মাদ্রাসায় ভর্তি করে দিয়েছে। যা স্বাভাবিক নিয়মে স্কুল-কলেজ খোলার পর দৃশ্যমান হবে বলে তাদের অভিমত। এদিকে করোনার প্রভাবে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের শিক্ষা নিয়ে যে ছন্দপতন হয়েছে তারই বা কি হবে?

দেশে করোনাভাইরাস মহামারি কারণে ২০২০ সালে নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রাখার পাশাপাশি অনুষ্ঠিত হয়নি পাবলিক পরীক্ষাগুলো। অনলাইনে বা টেলিভিশনে বিকল্প শিক্ষাদানের চেষ্টা হলেও তাতে সাফল্য এসেছে খুব কমই। আর এসব কারণে শিক্ষা ক্ষেত্রে যে ঘাটতি তৈরি হয়েছে তা নিয়ে কোনো পরিকল্পনা এখনো যেমন চূড়ান্ত হয়নি তেমনি কবে স্কুল কলেজ খুলবে তাও স্পষ্ট করে এখনো নির্ধারণ করতে পারেনি সরকার।

কুমিল্লা অঞ্চলের একটি স্কুলের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থীর  মা ফয়জুন্নেছা যিনি নিজেও একজন শিক্ষক তিনি বলছেন প্রায় দশ মাস ধরে স্কুলে যেতে পারছেনা তার মেয়ে। ফলে এই শিক্ষাবর্ষের অনেক কিছুর সাথে পরিচিত না হয়েই তাকে পরবর্তী ক্লাসে যেতে হচ্ছে ।

স্কুলের যে একটা সার্বিক পরিবেশ। অনেকগুলো বাচ্চার সঙ্গে একসাথে মেশা ও শেখা। এখন বাসায় পড়ানোর চেষ্টা করলেও দেখা যায় তার আগ্রহ নেই। পরীক্ষা হচ্ছেনা অনেক দিন ধরে। পরীক্ষা কিভাবে হয় সেটাই আসলে তার মনে নেই। পড়ার যে আগ্রহ সেটা অনেকটাই কমে গেছে। এমনকি তার আচরণেও পরিবর্তন হচ্ছে”। সে কথায় কথায় রাগ দেখাচ্ছে।

ক্লাসরুমে সরাসরি শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে একযোগে পড়ার মাধ্যমে যে শিক্ষণ প্রক্রিয়া সেটি না থাকায় এ বছরে তার যা যা শেখা উচিত তার অনেকখানিই হয়নি বলে মনে করছেন এই অভিভাবক।

করোনা থেকে বাঁচার জন্য দেশের স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যে বন্ধ রাখা হয়েছে এতে কারো কারো দ্বিমত থাকলেও অধিকাংশ অভিভাবক তাদের সন্তানদের জীবন বাঁচাতে সরকারের এসিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছে। তবে সরকার বর্তমানে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ফেব্রুয়ারী মাস থেকে খুলে দেয়ার বিষয়ে ভাবছে তা ইতিমধ্যে সরকারের সর্বোচ্ছ মহল থেকে অর্থাৎ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১ লা জানুয়ারি বই উৎসবে ঘোষণা দিয়েছেন। ইতিমধ্যে শিক্ষামন্ত্রী ড়া. দিপু মনিও এবিষয়ে সরকারের চিন্তা ভাবনার কথা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বলেছেন।ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা: দিপু মনি বলেছেন সীমিত আকারে স্বাস্থ্য বিধি মেনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার চিন্তা তারা করছেন কিন্তু সেটি কবে নাগাদ হবে, তা নির্ভর করবে করোনা পরিস্থিতি ভালো হওয়ার পর। অর্থাৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার কোনো কর্মপরিকল্পনা বা রোডম্যাপ এখনো চূড়ান্তই করতে পারেনি সরকার। আবার পরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলে দেয়া গেলে এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে খুলে দেয়া হচ্ছেনা কেন এসব প্রশ্নেরও কোনো উত্তর নেই কারও কাছে।

ওদিকে শিক্ষামন্ত্রী যা বলেছেন তাতে শুধুমাত্র দশম ও দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষে নিয়ে আসার কথা উঠে এসেছে যারা সামনের জুন মাসে  এসএসসি ও জুলাই মাসে এইচএসি পরীক্ষায় অংশ নেবে।

২০২১ শিক্ষাবর্ষে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা অনুকূলে আসলেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর পরিকল্পনা করছি। আগামী জুন নাগাদ আশা করছি এসএসসি বা সমমান পরীক্ষা গ্রহণ করতে পারবো। পাশাপাশি অনলাইন কার্যক্রমও অব্যাহত থাকবে। সীমিত পরিসরে স্কুল কলেজ খুলে দেয়ার চেষ্টা করবো। বিশেষ করে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণী তারা যেন ক্লাসরুমে ক্লাস করে পরীক্ষা দিতে পারে সেরকম ব্যবস্থা আমরা করতে চাই”।

গত বছরের সতেরই মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর ছুটি দফায় দফায় বাড়িয়ে সর্বশেষ আগামী ১৬ই জানুয়ারি পর্যন্ত করা হয়েছে। যদিও বাংলাদেশে করোনার কারণে এখন আর কোনো কিছুর কার্যক্রমই বন্ধ নেই। রাস্তাঘাট, হাট বাজার, যানবাহনে উপচেপড়া ভিড় মানুষের। এমনকি আগেই খুলে দেয়া মাদ্রাসাগুলোও চলছে। বন্ধ আছে শুধু সাধারণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো।

তবে এ দীর্ঘ ছুটির সময়ে বিকল্প পদ্ধতিতে শিক্ষাদানের যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছিলো তাতেও শতভাগ সফলতা আসেনি। গাজীপুরের একটি স্কুলের শিক্ষিকা আকলিমা খাতুন বলছেন ইন্টারনেটের মাধ্যমে অর্থাৎ বিকল্প পদ্ধতিতে তারা চেষ্টা করেছেন পাঠদান চালিয়ে যাওয়ার কিন্তু সেটি ছিলো অনেকটা জরুরি অবস্থা মোকাবেলার মতো।

সরকার গত মার্চে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণার পর ঈদসহ নানা ছুটির কারণে মে মাস থেকে অনলাইনে শিক্ষার্থীদের পড়ানোর কাজ শুরু করে অনেক স্কুল। পরে স্কুল কবে খুলবে তার কোনো নিশ্চয়তা না থাকায় ঢাকাসহ সারা দেশে কোন কোন স্কুলে অনলাইনে শিক্ষাদান শুরু করলেও ঢাকার বাইরে যেখানে ইন্টারনেট আছে সেখানে রেকর্ডেড ক্লাসগুলোই পেয়েছে আগ্রহী শিক্ষার্থীরা।

মোঃ ফঘরুদ্দিন বলছেন শিক্ষক হিসেবে তার অভিজ্ঞতা বলছে এতে ঠেকার কাজ চলেছে কিন্তু বাস্তবের তুলনায় এটি ছিলো খুবই স্বল্প পরিসরের উদ্যোগ।

বাস্তবে তো পরীক্ষা নিতাম। এবার যারা ৪র্থ থেকে ৫মে উঠলো তারা তো প্রশ্নের সাথে পরিচিতই হতে পারলোনা। সৃজনশীল যে প্রশ্ন তাদের দেখার কথা সেটি তারা দেখতেই পারেনি। পুরো বছরে তাদের কোনো পরীক্ষাই হয়নি। ফলে এক বছর গ্যাপ দিয়ে যখন পঞ্চম শ্রেণীতে অথবা ৬ষ্ঠ উঠবে তখন তাদের কাছে বোঝা হয়ে যাবে এটা।

যদিও অনলাইনের পাশাপাশি টেলিভিশনে তৃতীয় শ্রেণী থেকে একাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বিনামূল্যে পাঠদানের চেষ্টা হয়েছে। অনেক স্কুল আবার নিজেদের ফেসবুক বা ইউটিউব চ্যানেলে প্রতিদিনকার ক্লাসগুলো আপলোড করে দিয়েছে। যদিও অনলাইন বা বিকল্প শিক্ষাদান পদ্ধতি সারাদেশর শতভাগ শিক্ষার্থীকে আনা যায়নি বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রী নিজেই।

ঢাকার একজন অভিভাবক আবদুল্লাহ আল হোসাইন বলছেন তার দু সন্তান স্কুলে পড়ছে। স্কুলগুলো অনলাইনে চেষ্টা করলেও এ বছর জানা উচিত ছিলো এমন অনেক কিছু অজানা রেখেই পরবর্তী শ্রেণীতে উঠতে হবে তাদের।

পড়াশোনা পরীক্ষার পাশাপাশি কো কারিকুলাম কার্যক্রম থাকে সেগুলো থেকে পুরোপুরি বঞ্চিত হয়েছে শিক্ষার্থীরা। স্বাভাবিক শিক্ষা গ্রহণ প্রক্রিয়া যেটি আমার দুই বাচ্চা স্বাভাবিকভাবে যতটুকু জানার কথা তা থেকে পিছিয়ে আছে। অনলাইনে হয়তো সিলেবাস শেষ করেছে কিন্তু সেটা করা হয়েছে বেছে বেছে। ফলে একটা পাঠের সাথে আরেকটার যে লিংক সেটা বাচ্চারা ধরতেই পারেনি অনেক ক্ষেত্রে।

এদিকে ক্লাস পরীক্ষা না হওয়ায় মাধ্যমিক পর্যায়ে একটি সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে অ্যাসাইনমেন্ট মূল্যায়ন করে অটো প্রমোশনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার এবং সে কার্যক্রম এখন চলছে।

তবে অনলাইনের অপর্যাপ্ত শিক্ষাদান, শিক্ষকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ না থাকা, সিলেবাস অনুযায়ী বিষয়ভিত্তিক পাঠ কার্যক্রম পরিপূর্ণ শেষ না হওয়ার জের ধরে প্রথম শ্রেণী থেকে শুরু করে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-সর্বত্রই শিক্ষায় একটি বড় ঘাটতি থেকে যাওয়ার আশংকা করছেন শিক্ষা বিশেষজ্ঞগণ।

ক্লাসের বিষয় পুরোপুরি শেষ না করলে পরের ক্লাসে গিয়ে অনেক কিছুই বুঝবে না। না বুঝেই মুখস্থ করতে চাইবে। সব বিষয়ের মধ্যে আগের ক্লাস বা পাঠের সম্পর্ক থাকে। বলতে গেলে ২০২০ সালে যে যেই ক্লাসের সেই ক্লাসের যা শেখার কথা শিখলোনা। তো সে পরের বছর পরবর্তী ক্লাসে গিয়ে তো বুঝতে পারবেনা। এক পর্যায়ে হয় ড্রপ আউট হবে না হয় ফেল করতে করতে যাবে।

আবার ২০২০ সালের শিক্ষায় এ ঘাটতির পাশাপাশি সামনে যোগ হবে ২০২১ সালের নিয়মিত শিক্ষা কার্যক্রম শুরুর চ্যালেঞ্জ। এবিষয়ে শিক্ষা বিশেষজ্ঞগণ বলছেন, ঘাটতি যাতে কম হয় সেজন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে এটি সত্যি কিন্তু বাংলাদেশে ইন্টারনেট অবকাঠামো কিংবা নানা কারণে শিক্ষার্থীরাও অনেকে তার সুবিধা নিতে পারেনি।

একটা সিলেবাস কেন করা হয়?  সে লেভেলে শিক্ষার্থীর প্রয়োজনীয়তার কথা চিন্তা করে। পর্যালোচনা করে বিষয়গুলো সেখানে রাখা হয় যেটা তাদের প্রয়োজন বা বয়সের সাথে সম্পৃক্ত। এটা ভিত তৈরি করবে উপরের লেভেলে পড়াশোনা বা বোঝার জন্য। এটা তো বড় গ্যাপ তৈরি হয়েছে।

একজন শিক্ষার্থী যদি  সিলেবাসের পূর্ণাঙ্গ কারিকুলাম না বোঝে তাহলে পরেও এই সংকট কাটিয়ে ওঠা কঠিন হতে পারে কারণ পরিস্থিতি ভালো হলে স্কুল কলেজ খুললে শিক্ষককে আগে বুঝতে হবে যে শিক্ষার্থী আগের বছরে কোন বিষয়গুলো জানার সুযোগ পায়নি। তবে এজন্য খুলতে হবে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়।

কিন্তু পরিস্থিতি ভালো হলেও শিক্ষায় বিদায়ী বছরের ঘাটতি পোষানো হবে কিভাবে এমন প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি বিবিসিকে বলেছেন, ঘাটতিগুলো নিরূপণের জন্যই শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট দেয়া হয়েছে এবং তার ভিত্তিতে তারা সামনে ঘাটতি পুষিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা করবেন।

তিনি বলেন, কোথায় ঘাটতি হয়েছে সেটা বুঝতে পারবো বলে আশা করি। সে অনুযায়ী ২০২১ সালের সিলেবাস, কতটা রেমিডিয়াল ক্লাস নিবো সেটা তার ওপর নির্ভর করবে। শিক্ষার্থীদের যখন ক্লাসে আনবো তখনও নানা অ্যাসেসমেন্টের মধ্যে নিয়ে যাবো এবং ঘাটতি পূরণে সর্বোচ্চ চেষ্টা  করবো। হয়তো এক শিক্ষাবর্ষে ঘাটতি পূরণ করা যাবে না, সেক্ষেত্রে একাধিক শিক্ষাবর্ষ মিলিয়ে ঘাটতিগুলো পূরণের চেষ্টা করবো।

এদিকে বিদায়ী বছরে যে এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি বিশেষ ব্যবস্থায় তার ফল প্রকাশ হবে এমাসে। তবে পিছিয়ে যাবে ২০২১ সালের এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষা। এর মধ্যেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ২০২১ শিক্ষাবর্ষের বই বিতরণ শুরু হয়েছে।

যদিও সে বই নিয়ে শিক্ষার্থীরা আবার কবে থেকে নিয়মিত স্কুলে যেতে পারবে সেটি কারও জানা নেই।

লেখক  মো. রুহুল আমিন, শিক্ষক ও সাংবাদিক।। 

E-mail : [email protected]

Facebook Comments

Check Also

হাজীগঞ্জে আগুনে পুড়ে ৩ প্রতিষ্ঠানের প্রায় ২ কোটি টাকা ক্ষতি, অভিযোগের তীর ফায়ার সার্ভিস

সাইফুল ইসলাম সিফাত : হাজীগঞ্জ বাজারে অগ্নিকান্ডে ৩টি প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। রবিবার ভোর …

Shares
vv