ব্রেকিং নিউজঃ
Home / অর্থনীতি / কচুয়ায় জমে উঠেছে ঈদের বাজার কেনাকাটায় ভিড়

কচুয়ায় জমে উঠেছে ঈদের বাজার কেনাকাটায় ভিড়

মো. রাছেল, কচুয়া : কচুয়া উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ঈদের কেনা কাটা বেশ জমে উঠেছে। লকডাউনে শপিং মল গুলো সকাল ৯টা থেকে রাত ৮ পর্যন্ত খোলা থাকার কথা বলা হলেও অনেক শপিং মল গুলো গভীর রাত পর্যন্ত খোলা থাকছে। কোন মার্কেটেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। বন্ত্র বিতানগুলোতে লক্ষ্যকরা যাচ্ছে উপচে পড়া ভিড়।

কচুয়া পৌর বাজারে ফাতেহা বস্র বিতানে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী শাড়ী কাপড়, থ্রি পিস ও পাঞ্জাবী সহ বিভিন্ন পোশাক পাওয়া যাওয়ায় অন্যান্য বছরের মত এ ঈদের ও ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় সকলের দৃষ্টি কাড়ছে। ক্রেতাদের মধ্যে পুরুষের চেয়ে মহিলাদের সংখ্যা দ্বিগুনের চেয়েও বেশী। পৌর বাজারে ঘুরে দেখা গেছে বেশির ভাগ ক্রেতা বিক্রেতা স্বাস্থ্য বিধি মানছে না। মুখে মাস্ক থাকলেও ক্রেতা বিক্রেতা ঘেঁষাঘেঁষি করে কেনাকাটা করছেন।

আরও পড়ুন… কচুয়ায় ইমামের সাথে পরকীয়ায় জড়ানো নারী নতুন করে বিয়ে করতে চায়!

ফাতেহা বন্ত্র বিতানের প্রোপ্রাইটর সাত্তার মিয়া, একই বাজারের ড্রেস কর্ণারের প্রোপ্রাইটর নূরু মিয়া ও রহিমানগর বাজারের মির বস্রালয়ের প্রোপ্রাইটর মনির হোসেন জানান, ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে দেশীয় সুতার তৈরি স্কাট থ্রি পিছ, জামদানি শাড়ি, খাদী, আড়ং ও কটুমো পাঞ্জাবী, আর ভারতীয় থ্রি পিছ অরগেন্ডী ও ভারতীয় শাড়ি কাপড়ের চাহিদা সবচেয়ে বেশি।

ক্রেতাদের কেনাকাটায় দোকানপাটে হুমড়ি খেয়ে পড়ার অবস্থা দেখে মনে হয় ঈদের কেনাকাটার ধুম লেগে গেছে। করোনা মহামারীর কথা যেন তাদের মনেই নেই। মানছে না তারা কোনই স্বাস্থ্যবিধি। মুখে নেই মাস্ক, নেই সামাজিক দূরত্ব। সচেতন শ্রেণীর মতে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে হাট-বাজারে ক্রেতাদের দোকানপাটে এ অভাবনীয় ভিড় করোনা সংকটকে আরো প্রকট করে তুলবে।

Facebook Comments

Check Also

মতলব উত্তর থানার ওসির বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগ, নিন্দা প্রকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : চাঁদপুরের মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল এর বিরুদ্ধে সামাজিক …

Shares
vv